Daily Sunshine

নিয়ামতপুরে আ’লীগ নেতা বন্ধ রেখেছে গভীর নলকূপের সেচ

Share

নিয়ামতপুর প্রতিনিধি: নওগাঁর নিয়ামতপুরে গভীর নলকূপ (সেচপাম্প) অপারেটরকে চাহিদা মতো সেচচার্জ না দেয়ায় কৃষকদের ইরি-বোরো আবাদের জমিতে পানি দেয়া হচ্ছে না। গত ৬ দিন থেকে জমিতে পানি না দেয়ায় মাটি শুকিয়ে ফেটে গেছে।
নওগাঁর নিয়ামতপুর উপজেলার বাহাদুরপুর ইউনিয়নের সাদাপুর গ্রামের মাঠের এমন অবস্থা। প্রতিকার চেয়ে স্থানীয় কৃষকরা অভিযোগ নিয়ে যাবে এমন সাহসও পাচ্ছেন না।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নিয়ামতপুর উপজেলার বাহাদুরপুর ইউনিয়নের সাদাপুর (খড়িবাড়ী বাজারের উত্তরে) গ্রামের মাঠে বরেন্দ্র উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের একটি গভীর নলকূপ (সেচপাম্প) আছে। যেখানে প্রায় ৪০-৪৫ কৃষকের ১৬৩ বিঘা ফসলি জমি রয়েছে। গত কয়েক বছর থেকে গভীর নলকূপের অপারেটর বাহাদুরপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাদাপুর খড়িবাড়ীর নূরুন নবী নিজের চাহিদা মতো ১ হাজার ৩৫০ টাকা করে কোনো নিয়মকানুন ছাড়াই কৃষকদের কাছ থেকে সেচচার্জ নিয়ে আসছে। কৃষকরা বাধ্য হয়ে এ সেচ চার্জ দিয়ে আসছেন।
চলতি ২০২০-২১ অর্থ বছরে ইরি-বোরো মৌসুমে বিএমডিএ (বরেন্দ্র বহুমূখী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ)’র গভীর নলকূপ সমিতি ভিত্তিক পরিচালনা করার কোন নিয়ম না থাকলেও সাদাপুর গ্রামের এ গভীর নলকূপের অপারেটর নূরুন নবী স্বেচ্ছাচারীভাবে গত তিনবছর যাবত সমিতির মত প্রতিটি কৃষকদের কাছ থেকে বিঘা প্রতি ১ হাজার ৩৫০ টাকা করে তুলে পরিচালনা করে আসছেন। যা সম্পূর্ণ বেআইনী।
এবারও প্রতিটি কৃষকদের কাছ থেকে বিঘা প্রতি ১ হাজার ৩৫০ টাকা করে আদায় করে সেচ কাজ চালিয়ে যাচ্ছিলেন। কিন্তু হঠাৎ এক সপ্তাহ যাবত সেচ বন্ধ করে দিয়েছে। অপারেটরের দাবী আরো টাকা দিতে হবে।
কৃষকরা তার দাবি মেনে না নেয়ায় ৮ দিন থেকে অধিকাংশ জমিতে পানি দেয়া হয়নি। জমিতে পানি না দেয়ায় মাটি শুকিয়ে ফেটে যাচ্ছে। সেইসঙ্গে জমিতে রোপণ করা কচি চারা হলুদবর্ণ হয়ে শুকিয়ে যাচ্ছে। চারাগুলো মরে গেলে কৃষকদের অনেক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হবে।
ফসল রক্ষার্থে কয়েকজন কৃষক, নিজে সেব কার্ডে টাকা তুলে নিজ দায়িত্বে জমিতে পানি দিয়েছে।
কৃষক রবিউল ইসলাম, বাবুল ও শামসুল বলেন, এবছর আমরা বিঘা প্রতি ১ হাজার ৩৫০ টাকা করে সেচ চার্জ দিয়েছি। তারপরও কোন হিসাব না করেই অপারেটর পানি বন্ধ করে বলে আরো টাকা না দিলে আবাদ তুলতে পারবো না। টাকা দিলে পানি দিবো। অনুরোধ করেও কোন কাজ হয়নি।
অপারেটর নূরুন নবী বাহাদুরপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ও এলাকার ত্রাস। তাই আমরা ভয়ে কোন কথা বলতে পারছি না। কোথাও কোন অভিযোগ দেই নি। সে এখন আরো ২৫০ টাকা করে দাবী করে। যদি কোন বিচার আমরা না পাই তাহলে ধান বাঁচাতে নিরুপায় হয়ে তার দাবী আমাদের মেনে নিতে হবে।
কৃষক সামসুল বলেন, আমি এ স্কীমে সাড়ে ১২ বিঘা আবাদ করেছি। বিঘা প্রতি ১ হাজার ৩৫০ টাকা দিয়েছি। তারপরও পানি বন্ধ করে দিয়েছে। আরো বিঘা প্রতি ২৫০ টাকা চায়। যা আমার পক্ষে সম্ভব না। এসময় ধান গামড় হয়ে ধান বের হওয়ার সময়। কিন্তু এখন চারাগুলো শুকিয়ে হলুদ ভাব দেখা দিয়েছে। অপারেটর জমিতে পানি দিবে না বলে বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছে।
অপারেটর নূরুন নবী বলেন, এবার কয়েকবার মর্টার পুড়ে গেছে। আমার ব্যক্তিগত টাকা দিয়ে মর্টার মেরামত করতে হয়। বরেন্দ্র উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ কোন খরচ বহন করেন না। তাই ১ হাজার ৩৫০ টাকায় আবাদ তোলা সম্ভব নয়। কোন উপায় না পেয়ে প্রত্যেক কৃষকদের বলে দিয়েছি বিঘাপ্রতি আরো ২৫০ টাকা করে দিতে হবে। সেচ বন্ধ প্রসঙ্গে বলেন, কয়েকদিন বন্ধ রেখেছি। সন্ধ্যা থেকে সেচ চালু করবো।
সহকারী প্রকৌশলী (বিএমডিএ) মতিউর রহমান বলেন, আমার কাছে এ রকম কোন অভিযোগ আসে নাই। আপনার মাধ্যমেই জানলাম। আমাদের গভীর নলকূপের সমিতি ভিত্তিক পরিচালনার কোন নিয়ম নেই। তাই সেচ চার্জের রেটেরও কোন কিছু নেই।
তবে কোন গভীর নলকূপ যদি সমিতি ভিত্তিক পরিচালনা করে তাহলে সেই স্কীমের কৃষকদের মতামতের ভিত্তিতে। হিসাব নিকাশ ঠিক রেখে। বিষয়টি জানলাম, তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

মার্চ ২৯
০৬:২০ ২০২১

আরও খবর

Subcribe Youtube Channel

বিশেষ সংবাদ

২০৩০ সালে রমজান মাস হবে দুইটি

২০৩০ সালে রমজান মাস হবে দুইটি

আর মাত্র একদিন পরই শুরু হবে আত্মশুদ্ধি ও সিয়াম-সাধনার মাস রমজান। বছরের এই একটি মাসে আমরা আমলের মাধ্যমে সওয়াবকে ৭০ গুণ বাড়িয়ে নিতে পারি। ইংরেজি বর্ষপঞ্জি অনুযায়ী বছরে একবারই আসে রমজান মাস। কিন্তু কেমন হবে যদি বছরে দুইটি রমজান মাস হয়? হ্যাঁ- আগামীতে এমনই একটি বছর আসবে যেটিতে রমজান মাস

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির অবনতির কারণে ১৪ এপ্রিল সকাল ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। তবে এ সময়ে টিকা কার্ড নিয়ে টিকা গ্রহণের জন্য যাতায়াত করা যাবে বলে জানানো হয়েছে। সোমবার (১২ এপ্রিল) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, অতি জরুরি প্রয়োজন

বিস্তারিত