Daily Sunshine

মুক্তিযুদ্ধে শহীদ ৬ ছাত্র-শিক্ষকের পরিবারকে সম্মান জানালো রাজশাহী কলেজ

Share

স্টাফ রিপোর্টার : মহান মুক্তিযুদ্ধে শহীদ হয়েছেন এরকম পাঁচজন ছাত্র ও একজন শিক্ষকের পরিবারকে সম্মাননা প্রদান করেছে রাজশাহী কলেজ। ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস উপলক্ষে কর্মসূচির অংশ হিসেবে বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে রাজশাহী কলেজ মিলনায়তনে এ সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
রাজশাহী কলেজের যে ছয়জন মহান মুক্তিযুদ্ধে শহিদ হন তাদের মধ্যে রয়েছেন- গণিত বিভাগের শিক্ষক এস এম ফজলুল হক। এছাড়াও পাঁচজন শিক্ষার্থী হলেন- ওয়াসিমুজ্জামান ওয়াসিম, শামসুল আলম, ওমর ফারুক, শওকত আলী এবং লায়েক আলী।
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে মহান মুক্তিযুদ্ধে আত্মত্যাগের স্বীকৃতিস্বরুপ এ সম্মাননা প্রদান করা হয়। অনুষ্ঠানে রাজশাহী কলেজের ছয়জন শহীদের পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। তারা স্মৃতিচারণ বক্তব্য রাখেন।
কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাঃ আব্দুল খালেকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, কলেজের সদ্য সাবেক অধ্যক্ষ প্রফেসর মহা. হবিবুর রহমান।
শহীদ শিক্ষক এসএম ফজলুল হকের পরিবারের পক্ষে তাঁর বোন মনোয়ারা বেগম, শিক্ষার্থীদের মধ্যে শহিদ ওয়াসিমুজ্জামান ওয়াসিমের পরিবারের পক্ষে তাঁর বোন জুলফিয়া বেগম, শহিদ শামসুল আলমের পরিবারের পক্ষে তাঁর তিন ভাই রবিউল আলম বাবু, আজিজুল আলম বেন্টু ও খাদেমুল ইসলাম, শহিদ শওকত আলীর পরিবারের পক্ষে তাঁর বোন রোজিটি নাজনীন ও ভাই সেবগাতুল্লাহ সনেট এবং শহিদ ওমর ফারুকের পক্ষে তাঁর পরিবারের সদস্য এএনএস মুসা মাসুদ ও লায়েক আলীর পরিবারের পক্ষ থেকে সম্মাননা গ্রহণ করা হয়।
সম্মাননা অনুষ্ঠানে শহীদ শওকত আলীর বোন মোসা. রোজেটি নাজনীন স্মৃতিচারণ করে জানান, তিনি ৬০ বছরের অধিক সময় ধরে রাজশাহীতে আছেন। এখানেই তার ভাই শহীদ শওকত আলীর শৈশব কেটেছে। নগরীর বড়কুঠি এলাকায় তার ভাইয়ের সেই শৈশবের স্মৃতি এখনো তার চোখের সামনে ভেসে ওঠে। একাত্তরের ১৪ এপ্রিল ভোর ৬টার দিকে বাবা সাত্তার আলী ও ভাই শওকতসহ ৬ জনকে ধরে নিয়ে যায় হানাদার বাহিনী।
রোজেটি নাজনীন বলেন, আমার ভাইয়ের অপরাধ ছিলো, তিনি ৭ মার্চ বাড়ির ছাদে জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেছিলেন, এবং ইপিআর সদস্যের খাবার দিয়েছিলেন।
তিনি আরো বলেন, ভাই ও বাবাকে হত্যার পর লাশ খুঁজে পাওয়া যায়নি। সেসময় আমার বয়স ছিল ১২ বছর। সেই বয়সে যুদ্ধের বিভীষিকা প্রত্যক্ষ করেছি। বাবা-ভাইয়ের লাশ খুঁজতে মায়ের সঙ্গে ঘুরে বেড়িয়েছি। কিন্তু লাশ পাইনি।
তিনি আরো বলেন, তার পরিবারের শহীদসহ সকল শহীদ মৃত্যু বরণ করেননি৷ তারা আজও অমর হয়ে আছেন। এ সময় তিনি তরুণ প্রজন্মকে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে চর্চা করার আহ্বান জানান। তিনি ছাড়াও অন্যান্য শহীদের পরিবারের সদস্যরা স্মৃতিচারণ করে বক্তব্য রাখেন। প্রত্যেকেই স্বাধীনতার এত বছর পরে সম্মাননা প্রদানের জন্য রাজশাহী কলেজের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রফেসর মহা. হবিবুর রহমান বলেন, রাজশাহী কলেজের কৃতী এসকল শহীদ শিক্ষার্থীদের পরিবারের সদস্যরা রাজশাহী কলেজ পরিবারের সদস্য। সুতরাং তাদের সুখে-দুঃখে রাজশাহী কলেজ পরিবার সবসময় পাশে থাকবে। এ সময় তাদের নামফলক কলেজের স্বাধীনতা চত্বরে উন্মোচন করা হবে বলে জানান তিনি।
সভাপতির বক্তব্যে ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাঃ আব্দুল খালেক বলেন, ইতিহাস থেকে আমরা অনেক কিছু জানতে পারি। তবে শহিদ পরিবারের স্বজন ও সন্তানদের স্মৃতিচারণ আমাদের জ্ঞানকে আরো সমৃদ্ধ করবে। সম্মাননা গ্রহণ ও স্মৃতিচারণ করার জন্য শহিদ পরিবারের সদস্যদের প্রতি তিনি গভীর কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন।
অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহী কলেজ শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক প্রফেসর আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, ইতিহাস বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. মো. ইলিয়াস উদ্দিন, শিক্ষক পরিষদের সাবেক সম্পাদক প্রফেসর ড. পীযুষ কান্তি ফৌজদার। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, মুক্তিযুদ্ধের তথ্য সংগ্রাহক ওলিউর রহমান বাবুসহ রাজশাহী কলেজের সকল বিভাগের বিভাগীয় প্রধান, শহিদ পরিবারের সদস্য ও শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।
অনুষ্ঠানের শেষে ৫২’র ভাষা আন্দোলন, মহান মুক্তিযুদ্ধে শহিদ এবং বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের শহিদ সদস্যদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ দোয়া অনুষ্ঠিত হয়। ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মো. আব্দুর রাকিব দোয়া পরিচালনা করেন।

মার্চ ২৬
০৬:২০ ২০২১

আরও খবর

Subcribe Youtube Channel

বিশেষ সংবাদ

২০৩০ সালে রমজান মাস হবে দুইটি

২০৩০ সালে রমজান মাস হবে দুইটি

আর মাত্র একদিন পরই শুরু হবে আত্মশুদ্ধি ও সিয়াম-সাধনার মাস রমজান। বছরের এই একটি মাসে আমরা আমলের মাধ্যমে সওয়াবকে ৭০ গুণ বাড়িয়ে নিতে পারি। ইংরেজি বর্ষপঞ্জি অনুযায়ী বছরে একবারই আসে রমজান মাস। কিন্তু কেমন হবে যদি বছরে দুইটি রমজান মাস হয়? হ্যাঁ- আগামীতে এমনই একটি বছর আসবে যেটিতে রমজান মাস

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির অবনতির কারণে ১৪ এপ্রিল সকাল ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। তবে এ সময়ে টিকা কার্ড নিয়ে টিকা গ্রহণের জন্য যাতায়াত করা যাবে বলে জানানো হয়েছে। সোমবার (১২ এপ্রিল) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, অতি জরুরি প্রয়োজন

বিস্তারিত