Daily Sunshine

ওসির কুপ্রস্তাব ফিরিয়ে দেয়ায় নারী পুলিশ কর্মকর্তার স্বামীকে গ্রেপ্তারের অভিযোগ

Share

স্টাফ রিপোর্টার : নারী পুলিশ কর্মকর্তাকে দেয়া কুপ্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় তার স্বামীকে জামায়াত-শিবির কর্মী হিসেবে গ্রেপ্তার করে সন্ত্রাস দমন আইনে মামলা দেয়া হয়েছে। চাঞ্চল্যকর এ ঘটনা ঘটেছে রাজশাহী মহানগর পুলিশের বোয়ালিয়া মডেল থানায়। সিআইডির পরিদর্শক ওই নারী পুলিশ কর্মকর্তা বর্তমানে সারদা পুলিশ ট্রেনিং একাডেমিতে সংযুক্ত রয়েছেন।
বোয়ালিয়া মডেল থানার পরিদর্শক (ওসি) নিবরাণ চন্দ্র বর্মনের বিরুদ্ধে কুপ্রস্তাব দেয়ার অভিযোগ তুলে মহানগর পুশিল কমিশনার বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন ওই নারী পুলিশ কর্মকর্তা। এ ঘটনায় রাজশাহী মহানগর পুলিশে তোলপাড়ের সৃষ্টি হয়েছে।
নীতিমালা অনুযায়ী যৌনহয়রানির শিকার অভিযোগ কারীর নাম প্রকাশ করা হলো না। তবে তিনি যে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন তার গ্রহনের কপি এই প্রতিবেদকের কাছে সংরক্ষিত রয়েছে।
অভিযোগে বলা হয়েছে, ওই নারী পুলিশ কর্মকর্তার সঙ্গে অপর পুলিশ কর্মকর্তা মাহবুব আলমের সঙ্গে বিয়ে হয়। বর্তমানে দামকুড়া থানার পরিদর্শক (ওসি) হিসেবে কর্মরত রয়েছেন। পূর্বে তিনি বোয়ালিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হিসেবেও কর্মরত ছিলেন।
অভিযোগে নারী পুলিশ কর্মকর্তা উল্লেখ করেন, বিয়ের পর শারিরিক ও মানুষিক অত্যাচার নির্যাতনের শিকার হয়ে গত ২০১৮ সালে তাদের মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। এরপর পারিবারিকভাবে মাহবুব হোসাইন নামের এক সাংবাদিককে তিনি বিয়ে করেন। তিনি দৈনিক রাজশাহী সংবাদ নামের স্থানীয় পত্রিকায় কাজ করেন। তার বাড়ি নগরের চন্দ্রিমা থানার ললিতাহার এলাকায়।
অভিযোগে জানা যায়, পুলিশ কর্মকর্তা মাহবুব আলম বোয়ালিয়া থানায় পরিদর্শক তদন্ত হিসেবে কর্মরত থাকাকালীন সময়ে তাদের পারিবারিক কলহের বিষয়ে ওসি নিবরাণ চন্দ্র বিষয়টি জানতেন। পারিবারিক বিষয় নিয়ে মাঝে মধ্যেই ওসি নিবারনের সঙ্গে ওই নারীর কথা হতো। কথা বলার সময়ে ওসি নিবারণ চন্দ্র বলতেন (যা অভিযোগে উল্লেখ করা হয়েছে) ‘তুমি সুন্দর, তুমি দেখতে আকর্ষনিয়, তোমাকে আমার অনেক ভালো লাগে, তোমার মত একটা মেয়ে পেলে জীবনে আর কিছু লাগেনা’ ইত্যাদি।
ওসির এ ধরনের প্রস্তাবে সাড়া না দেয়ায় আবার হুমকিও দিতেন। তিনি বলেন, ‘তুমি মাহবুবের সঙ্গে কেমনে সংসার করো তা দেখে নেব। তুমি আমার প্রস্তাব মেনে নাও তোমার সংসার সুন্দর ও সুখের হবে।’
ওই নারী কর্মকর্তা আরও বলেন, সারদা থাকার পরও তিনি আমাকে কুপ্রস্তুাব ও হুমকি দিতেন। তিনি বোঝাতে চেয়েছেন তার প্রস্তাবে রাজি হলে কোন সমস্যা নাই, কিছুই করবে না সে।
অভিযোগে বলা হয়, এভাবেই চলে আসছিল। কিন্তু গত ১৬ মার্চ রাত দেড়টার দিকে তার স্বামী মাহবুব হোসাইন তাকে ফোন করেন বাসায় পুলিশ আসছে। এরপর তিনি ওসি নিবরাণ চন্দ্র ও ওসি তদন্ত আব্দুল লতিফকে ফোন করেন। কিন্তু রাতে কেউ ফোন রিসিভ করেননি। পরদিন সকালে তিনি থানায় আসেন। ডিউটি অফিসারের নিকট জানতে পারেন তার স্বামীকে থানার এসআই আব্দুল মতিনের নেতৃত্বে একদল পুলিশ নিয়ে এসেছে।
এরপর ওসি নিবরাণ চন্দ্রের কাছে গেলে তিনি ওই নারী পুলিশ কর্মকর্তাকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘এই তো তুমি আসলা, জলঘোলা করেই আসলা, তুমি বসো আমি একটু কমিশনার স্যারের সাথে কথা বলে তোমার স্বামীকে ছেড়ে দেব।’ কিছুক্ষণ পরে তিনি এসে ওই নারী কর্মকর্তার নাম ধরে বলেন, ‘দেখেতো আমাকে সুন্দর লাগছে না, তোমাকেও সুন্দর লাগছে’।
ওসির এমন মাতলামো আচরণে নারী পুলিশ কর্মকর্তা প্রতিবাদ করলে ওসি নিবরাণ চন্দ্র বলেন, ‘আরে তোমার স্বামী তো শিবির করে, তোমার স্বামীকে কে বাঁচাবে; আর কমিশনার ! আমি যা বলবো কমিশনার কি তার বাইরে যাবে নাকি ? এখন কি করবা; স্বামী বাঁচাবা না আমার কথা রাখবা ’ ওসির এমন আচরণে তিনি দ্রুত ওসির কক্ষ ত্যাগ করেন।
ভুক্তভোগী ওই নারী কর্মকর্তা বলেন, পরে ওসি আমার স্বামীর বিরুদ্ধে সন্ত্রাস দমন আইনে মামলা দিয়ে আদালতে চালান দেয়। বর্তমানে তার স্বামী জেলহাজতে রয়েছেন। তিনি আরও বলেন, ‘তার স্বামী কোন রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পৃক্ত না। তার নামে থানায় কোন জিডিও নাই। সে সুনামের সঙ্গে সাংবাদিকতা করে। আমি সবকিছু জেনেই তাকে বিয়ে করেছি। বিয়ের পর থেকে সুখে শান্তিতে বসবাস করছি। কিন্তু ওসির প্রস্তাবে রাজি না হওয়ার কারণে আজ তাকে (স্বামী) মিথ্যা মামলা দিয়ে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে। একেবারে পূর্বপরিকল্পিতভাবে সে এ কাজ করেছে।”
তিনি বলেন, ‘আমি একজন পুলিশের নারী কর্মকর্তা। আমি ওসির নিকট থেকে এমন আচরণ পেলে সাধারণ মানুষ কি আচরণ পাবে। আমি ওসি নিবারণ চন্দ্রের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়ার আবেদন করেছি। আমি তার বিরুদ্ধে আইনী ব্যবস্থাও নেব।’
এ বিষয়ে ওসি নিবারণ চন্দ্রের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘উনার স্বামী শিবিরের রাজনীতির করে। সে খড়খড়ি এলাকায় শিবিরকে সংঘঠিত করার কাজ করছিল। এ কারণে তাকে আমরা গ্রেপ্তার করেছি।’ নারী পুলিশ কর্মকর্তার অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘তার স্বামী কে না ছাড়ার কারণে সে এই অভিযোগ করেছে। আমি কেন তাকে কুপ্রস্তাব দেব ? ’

মার্চ ২৫
০৬:৪৭ ২০২১

আরও খবর

Subcribe Youtube Channel

বিশেষ সংবাদ

২০৩০ সালে রমজান মাস হবে দুইটি

২০৩০ সালে রমজান মাস হবে দুইটি

আর মাত্র একদিন পরই শুরু হবে আত্মশুদ্ধি ও সিয়াম-সাধনার মাস রমজান। বছরের এই একটি মাসে আমরা আমলের মাধ্যমে সওয়াবকে ৭০ গুণ বাড়িয়ে নিতে পারি। ইংরেজি বর্ষপঞ্জি অনুযায়ী বছরে একবারই আসে রমজান মাস। কিন্তু কেমন হবে যদি বছরে দুইটি রমজান মাস হয়? হ্যাঁ- আগামীতে এমনই একটি বছর আসবে যেটিতে রমজান মাস

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির অবনতির কারণে ১৪ এপ্রিল সকাল ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। তবে এ সময়ে টিকা কার্ড নিয়ে টিকা গ্রহণের জন্য যাতায়াত করা যাবে বলে জানানো হয়েছে। সোমবার (১২ এপ্রিল) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, অতি জরুরি প্রয়োজন

বিস্তারিত