Daily Sunshine

‘ভয় দেখিয়ে নয়, জনগণকে স্বাস্থ্যবিধি পালনের গুরুত্ব বোঝাতে হবে’

Share

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের আয়োজনে করোনার দ্বিতীয় ধাপ মোকাবেলায় বিশেষ উদ্বুদ্ধকরণ কর্মসূচি পালিত হয়েছে। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় নগরীর সিরোইল বাস টার্মিনাল এলাকায় আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এই কর্মসূচির উদ্বোধন করেন রাজশাহী মহানগর পুলিশের কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক। এসময় পথচারীসহ পরিবহণ যাত্রী ও শ্রমিকদের মাঝে দুই হাজার মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার বিতরণ করা হয়।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে পুলিশ কমিশনার বলেন, সাধারণ মানুষকে লাঠি দেখিয়ে বা আইনের ভয় দেখিয়ে নয় বরং তাদেরকে করোনা প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি পালনের বিষয়ে সচেতন করে এই কর্মসূচিতে সম্পৃক্ত করার মাধ্যমে দেশ থেকে করোনা নির্মুলের উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশ। আর সেই কর্মসূচিতে পরিবহণ শ্রমিক সংগঠনের পাশাপাশি সকলেই এগিয়ে এসেছে। আমাদের সকলকে মাস্ক পরার অভ্যেস গড়ে তুলতে হবে। মাস্ক পরার মাধ্যমে আমরা শুধু সমাজ নয় নিজেদের পরিবারকেও নিরাপদ রাখতে পারবো। পুলিশের এই কর্মকর্তা আরো বলেন, আমরা যদি করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলা করতে ব্যর্থ হই, তবে সবার স্বার্থে দেশে আবারো লকডাউন দিতে বাধ্য হবে সরকার। আর তখন কর্মজীবি ও সাধারণ মানুষ দুর্ভোগে পড়বেন। তাই আগে থেকেই নিজেদের স্বার্থে সবাইকে সতর্ক ও সচেতন হতে হবে।
পরিবহণ শ্রমিক নেতা মাহাতাম হোসেন চৌধুর জানান, করোনা প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি পালনের বিকল্প নেই। মাস্ক পড়তে হবে, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার করতে হবে। যাত্রীদের সুবিধার্থে প্রতিটি পরিবহণে মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার রাখা হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকল যানবাহন চলাচল করবে, অন্যথায় সংশ্লিষ্ট পরিবহণের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন, পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকতাসহ বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ শ্রমিক ফেডারেশনের উত্তরবঙ্গ আঞ্চলিক কমিটির (রাজশাহী বিভাগ) ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলহাজ মো. রফিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মাহাতাম হোসেন চৌধুরী, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. ওয়ালিউল্লা জিয়া, রাজশাহী জেলা মোটর শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি জাহঙ্গীর আলম, যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মো. গাজী, সাংগঠনিক সম্পাদক ফেরদৌস, সুলতান, ক্যাশিয়ার জনিসহ সংগঠনের নেতাকর্মীবৃন্দ।

মার্চ ২৪
০৫:৫৩ ২০২১

আরও খবর

Subcribe Youtube Channel

বিশেষ সংবাদ

কী বন্ধ, কী খোলা জেনে নিন

কী বন্ধ, কী খোলা জেনে নিন

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে ১৪ এপ্রিল থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত দেশের সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকছে, বন্ধ থাকছে যানবাহনও। বিধি-নিষেধ থাকছে সার্বিক কার্যাবলী ও চলাচলেও। সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। বন্ধ থাকছে: সকল সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি অফিস/আর্থিক প্রতিষ্ঠান। সকল প্রকার পরিবহন (সড়ক, নৌ, রেল, অভ্যন্তরীণ

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির অবনতির কারণে ১৪ এপ্রিল সকাল ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। তবে এ সময়ে টিকা কার্ড নিয়ে টিকা গ্রহণের জন্য যাতায়াত করা যাবে বলে জানানো হয়েছে। সোমবার (১২ এপ্রিল) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, অতি জরুরি প্রয়োজন

বিস্তারিত