Daily Sunshine

শিবগঞ্জে কাউন্সিলর পদে স্থগিত নির্বাচন দাবীতে কর্মকর্তাকে চিঠি

Share

স্টাফ রিপোর্টার, শিবগঞ্জ: স্থগিত হওয়া চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থীর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৩১ মার্চ। তুচ্ছ ও ক্ষমতার আধিপাত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে ৫টি হত্যাকান্ড এবং সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ ওয়ার্ড হিসেবে পরিচিত এ ওয়ার্ডটি।
বর্তমান কাউন্সিলর ও আসন্ন নির্বাচনের কাউন্সিলর প্রার্থী তাদের পরিবার, সমর্থক, ভোটার ও গ্রামবাসীর জান-মালের নিরাপত্তা চেয়ে নির্বাচন কমিশন বরাবর এক পত্র দেয়ায় শিবগঞ্জে আবারো ওই ওয়ার্ডটি সমালোচনায় এসেছে। এবার নির্বাচন কমিশনে প্রতিপক্ষ গ্রুপের কয়েকজনের সাথে বর্তমান জেলা অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকেও আসন্ন সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও শান্তিপূর্ণ নির্বাচনের জন্য অন্তরায় হিসেবে আখ্যায়িত করে এর প্রতিকার চেয়ে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বরাবর সোমবার একটি পত্র দিয়েছেন।
এছাড়াও জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও অফিসার ইনচার্জ (ওসি) বরাবর পত্রের অনুলিপিও দিয়েছেন।
বিষয়টি মঙ্গলবার দুপুরে প্রকাশ পেলে এ নিয়ে ব্যপক আলোচনা শুরু হয়।
চিঠিতে কাউন্সিলর খাইরুল আলম জেম আগামী ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনে পৌরসভার তার ওয়ার্ডের দুটি ভোট কেন্দ্র ঝুকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করার দাবি জানিয়েছেন। তার দাবী মর্দনা ও এর আশেপাশের গ্রামে হিন্দুদের ট্রাস্টের দেবত্তর সম্পত্তির ভোগদখল নিয়ে মামলা-হামলার জেরে ৫টি হত্যাকান্ড হয়েছে। এছাড়াও গত ৭ মাসে ৯ নং ওয়ার্ডে কাউন্সিলর নির্বাচনকে ঘিরে কয়েকশ লোক নিজ গ্রাম ছেড়ে পাশের কয়েকটি গ্রামে আশ্রয় নিয়েছে। হামলা, মামলার আতঙ্ক হতে প্রায় প্রতিদিনই ঘটে চলেছে হামলা, হুমকি, কৃষি ফসল ও ঘরবাড়ি লুটপাটের ঘটনা ঘটছে। বিষয়গুলো তাৎক্ষণিক স্থানীয় প্রশাসনকে অবহিত করা হয়েছে।
কাউন্সিলর জেম আরো বলেন, ৩১ মার্চ নির্বাচনের দিন যতই ঘণিয়ে আসছে তত আনেসুর রহমান সোনা মিয়া, আব্দুল, মাওলানা মতিন, মজু, টুটুল, গাজী, আলম কাপড়ার নেতৃত্বে ৩০/৪০ জনের চিহ্নিত রাকেট সাজানোসহ অসংখ্য সন্ত্রাসী ঘটনা ঘটিয়ে চলেছে। আমার উপর ২১ ফেব্রুয়ারি একটি মিথ্যে মামলা করা হয়েছে। আমার পরিবারের সকল সদস্যরা নিরাপত্তা জনিত কারণে গ্রামে বসবাস করতে পারছে না। চাঁপাইনবাবগঞ্জ পুলিশের এডিশনাল এসপি মাহবুব আলম এইসব চিহ্নিতদের পর্দার অন্তরালে থেকে বিভিন্ন প্রকার সহযোগিতা, কুপরামর্শ দিয়ে আমাকে ও আমার সমর্থকদের নির্বাচনের বাইরে রেখে এক তরফা ও পেশিশক্তি নির্ভর নির্বাচন করতে চাচ্ছে।
পত্রে তিনি আরো বলেন, আমি ও আমার সমর্থক ও পরিবারের সকল সদস্য উদ্বেগ ও শঙ্কা নিয়ে বসবাস করছি। এ নির্বাচনকালীন সময়ে আমার এবং সমর্থক ও পরিবারের কোন সদস্যর প্রাণহানিসহ কোন ঘটনার সম্মুখীন হলে তার জন্য দায়ী থাকবে এডিশনাল এসপিসহ চিহ্নিত ব্যক্তিরা। বিষয়গুলো আমলে নিয়ে অবিলম্বে নির্বাচন সুষ্ঠ, অবাধ ও উৎসবমুখর করতে, সকল ভোটার ও প্রার্থীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।
এ বিষয়ে জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোতাওয়াক্কিল রহমান জানান, পত্রের প্রেক্ষিতে আগামী ৩১ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য নির্বাচনকে ঘিরে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। নির্বাচনের দিন দুটি ভোট কেন্দ্রে দুইজন ম্যাজিস্ট্রেট, পুলিশ, র‌্যাব, গ্রাম পুলিশ সদস্যরা নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করবেন। সুষ্ঠু নির্বাচন সম্পন্ন করতে যাবতীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান তিনি।
অন্যদিকে মুঠোফোনে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাহবুব আলম খান বলেন, অভিযোগটি সম্পূর্ণ ভিক্তিহীন। অভিযোগের সাথে আমার কোন সংশ্লিষ্টতা নেয়। এমনকি পত্রটিতে যাদের সাথে আমার যোগসাজশের অভিযোগ করা হয়েছে, তাদের কাউকেই আমি চিনি না।
প্রসঙ্গত: শিবগঞ্জ পৌরসভায় গত ১৪ ফেব্রুয়ারি নির্বাচন হলেও ৯ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর প্রার্থী আব্দুস সালামের মৃত্যু জনিত কারণে সাধারণ কাউন্সিলর পদে নির্বাচন স্থগিত করে ৩১ মার্চ নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করে। তবে ওই নির্বাচনে মেয়র ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে নির্বাচন সম্পন্ন হয়।

মার্চ ২৪
০৫:৪২ ২০২১

আরও খবর

Subcribe Youtube Channel

বিশেষ সংবাদ

চিকিৎসক-পুলিশের পাল্টা বিবৃতি, হাইকোর্টের ক্ষোভ

সানশাইনডক্সে: চলমান লকডাউনে রাস্তার ‘মুভমেন্ট পাস’ নিয়ে চিকিৎসক, ম্যাজিস্ট্রেট ও পুলিশের বাগবিতণ্ডার ঘটনায় দুই পেশাজীবী সংগঠনের পাল্টাপাল্টি বিবৃতিতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন হাইকোর্ট। আদালত বলেছেন, ওই ঘটনায় সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পাল্টাপাল্টি বিবৃতি দেয়া সমীচীন হয়নি। তাদের এমন আচরণ অনাকাঙ্ক্ষিত। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাছে এমন আচরণ কাম্য নয়। মঙ্গলবার (২০ এপ্রিল) হাইকোর্টের বিচারপতি এম.

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির অবনতির কারণে ১৪ এপ্রিল সকাল ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। তবে এ সময়ে টিকা কার্ড নিয়ে টিকা গ্রহণের জন্য যাতায়াত করা যাবে বলে জানানো হয়েছে। সোমবার (১২ এপ্রিল) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, অতি জরুরি প্রয়োজন

বিস্তারিত