Daily Sunshine

আমের মুকুলের ঘ্রাণে মুখর গ্রাম

Share

গোমস্তাপুর প্রতিনিধি: শীতের তীব্রতা কাটিয়ে গোমস্তাপুরের আমবাগানগুলোতে ফুটতে শুরু করেছে মুকুল। মুকুলের সমারহে বাতাসে বইতে শুরু করেছে পাগল করা ঘ্রাণ। অন্য প্রতিটি গাছে আসতে শুরু করেছে মুকুলের মোহ। এ বছর আবহাওয়া অনুকূল থাকলে লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি আম উৎপাদিত হবে বলে কৃষি বিভাগ মনে করছে। অন্যদিকে বাগান মালিকরা এ বছর আমের বাম্পার ফলনের হবে বলে আশা করছেন।
গোমস্তাপুর উপজেলার আমবাগানগুলো ঘুরে দেখা গেছে, আম বাগানের সারি সারি গাছের ডালে শোভা পাচ্ছে হলুদ আর সবুজের মহামিলন। গাছের প্রতিটি ডালপালায় মুকুল ছেয়ে আছে। চারিদিকে ছড়িয়ে পড়ছে মুকুলের পাগল করা ঘ্রাণ, ছড়াচ্ছে সেই মুকুলের সুবাসিত পাগল করা বাতাস। বাতাসে মিশে সৃষ্টি করছে মৌ মৌ গন্ধ। যে গন্ধ মানুষের মন ও প্রাণকে বিমোহিতসহ মুকুলের আশেপাশে মৌমাছির আনাগোনা। অনেকেই মুকুল রক্ষা করতে গাছে গাছে ওষুধ স্প্রে করতে দেখা যাচ্ছে। অনেক আমবাগান মালিক মনে করছে এ বছর আমের ফলন নির্ভর করছে আবহাওয়ার ওপর।
উপজেলা কৃষি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, চলতিবছর উপজেলায় ৪৩ হেক্টর জমিতে আমগাছ রয়েছে। এরমধ্যে ফজলি ৯৮৫ হেক্টর, আশ্বিনা ১ হাজার ২৩০ হেক্টর, ল্যাংড়া ৩৯৫ হেক্টর, খিরসাপাত ২৫৫ হেক্টর, গোপাল ভোগ ২২০ হেক্টর, আমরুপালি ২৮০ হেক্টর, মল্লিকা ৫ হেক্টর, লক্ষণভোগ ১৯৫ হেক্টর, বোম্বাই ১৫ হেক্টর, উন্নত গুটি ৩৭৫ হেক্টর জমিতে আম গাছ রয়েছে।
আম বাগান মালিক বাবু আলি বলেন, বর্তমানে আবহাওয়া ভাল থাকায় বাগানের গাছে গাছে মুকুল ফুটতে শুরু করেছে। তার বাগানে গত কয়েক সপ্তাহ থেকে বেশির ভাগ গাছে মুকুল এসেছে। পোকা-মাকড় ও অন্যান্য রোগবালাই থেকে মুকুল রক্ষা করতে প্রাথমিক পর্যায়ে পরিচর্যা শুরু করা হয়েছে। বড় ধরনের কোনো দুর্যোগ না হলে আমের বাম্পার ফলন হবে বলে তিনি মনে করছেন।
বোয়ালিয়া ইউনিয়নের বাগান মালিক ও আম ব্যবসায়ী মাসুদ জানান, আম বাগানে মুকুল আসার পর থেকেই তিনি গাছের প্রাথমিক পরিচর্যা শুরু করেছেন। মুকুলে রোগবালাইয়ের আক্রমন থেকে রক্ষা করতে স্থানীয় কৃষি বিভাগের পরামর্শ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ওষুধ স্প্রে করছেন।
এ বিষয়ে গোমস্তাপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাসুদ হোসেন জানান, এখন পর্যন্ত উপজেলার আম বাগানগুলে মুকুল ৭৫% পর্যন্ত ফুঁটেছে। শৈত্য প্রবাহের কারণে মুকুল ফুটতে দেরি হয়েছে। তবে আবহাওয়ার পরিবেশ অনূকুল থাকায় এবার মুকুল ফুটার পরিমাণ ৯৫% বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করছেন।
তিনি জানান, আমচাষীদের বিভিন্ন সময় পরিচর্চা বিষয়ে পরামর্শ দেয়া হয়েছে। যেমন মাঠ দিবস,উঠান বৈঠক, সভা-সেমিনার ইত্যাদি। ছত্রাকনাশ-কীটনাশক ব্যবহারে স্প্রের পরিমান, ফলন অথবা মটর দানা বাধার সময়, মার্বেল আকৃতি হওয়ার সময় মোট ৩বার স্প্রে দেওয়ার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। বিশেষ করে গমএইচ এবং হপারের আক্রমণ থেকে রক্ষার জন্য।
এছাড়া আমচাষীদের প্রতি দুইমাস অন্তর-অন্তর আম গাছের পাশে সার দেওয়ার জন্য উপ-সহকারী কর্মকর্তা মাধ্যমে পরামর্শ দেয়া হয়েছে। অন্যান্য বিষয়ে পরামর্শের প্রয়োজন হলে উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা অথবা উপজেলা কৃষি অফিসে যোগাযোগ করার জন্য বলা হয়েছে।
তিনি আশা করছেন চলতি মৌসুমে আবহাওয়া অনুকূল থাকলে আমের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি উৎপাদন হবে।

ফেব্রুয়ারি ২০
০৬:২৮ ২০২১

আরও খবর

বিশেষ সংবাদ

প্রাণ ফিরে পাচ্ছে রাবির টুকিটাকি চত্বর

প্রাণ ফিরে পাচ্ছে রাবির টুকিটাকি চত্বর

স্টাফ রিপোর্টার ,রাবি: টুকিটাকি চত্বর। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের চিরপরিচিত একটি চত্বর। প্রায় ৩৫ বছর আগে বিশ্ববিদ্যালয়টির লাইব্রেরি চত্বরে ‘টুকিটাকি’ নামের ছোট্ট একটি দোকান চালু হয়। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মুখে মুখে টুকিটাকি নামটি ছড়িয়ে পড়ে। দোকানটি ভীষণ জনপ্রিয়তা পায়। ফলে সবার অজান্তেই একসময় লাইব্রেরি চত্বরটির নাম হয়ে যায়

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

আসছে ৫৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি

আসছে ৫৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি

সানশাইন ডেস্ক : মান্থলি পেমেন্ট অর্ডারভুক্ত (এমপিও) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৫৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমতি পেলে চলতি মাসেই গণবিজ্ঞপ্তি জারি করতে পারে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। এনটিআরসিএ সূত্রে জানা গেছে, সারা দেশের এমপিওভুক্ত স্কুল-কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রায় ৫৭ হাজার ৩৬০টি শূন্য পদের তালিকা

বিস্তারিত