Daily Sunshine

মুক্তিযোদ্ধা আজির গার্ড অব অনারে সমাহিত হলেও মিলছে না স্বীকৃতি

Share

নিয়ামতপুর প্রতিনিধি: আর কত অপক্ষোর প্রহর গুনতে হবে আজির উদ্দিনের পরিবারের। স্বাধীনতা যুদ্ধের পর থেকে অদ্যবদি পর্যন্ত যখন তার সহযোদ্ধারা বিভিন্ন সময়ে মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতিসহ সম্মান পেলেও তিনি রয়েছেন বঞ্চিত।
স্বাধীনতার ৫০ বছর পরও যখন একের পর এক মুক্তিযোদ্ধারা যখন নতুনভাবে তাদের প্রাপ্য সম্মান ও স্বীকৃতি পেয়েছেন। ঠিক তখনও তিনি কোন কারণে বঞ্চিত তা জানেন না আজির উদ্দিনের পরিবার।
সংশ্লিষ্ট দপ্তরে যতটুকু প্রমাণ থাকলে একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে স্বীকৃতি পাওয়া যায় তার সবটাই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে পাঠানোর পর কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেন না সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ।
সম্প্রতি নিয়ামতপুর উপজেলার আরো ১৭ মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পেয়েছেন অথচ ১৯৭১ সালে রনাঙ্গনে পাকিস্তানী হানাদার, রাজাকার, আলবদর বাহিনীদের মুর্তিমান আতংক আজির উদ্দিন বার বার হচ্ছেন বঞ্চিত। ফলে আজির উদ্দিনের স্ত্রীর প্রশ্ন আমার স্বামী কি প্রাপ্য সম্মানটুকু পাব না।
তার পুরো নাম আজির উদ্দিন। তিনি নওগাঁর নিয়ামতপুর উপজেলার সদর ইউনিয়নের মুড়িহারী গ্রামের মৃত মহির উদ্দিনের সন্তান। সবাই জানেন, চিনেন কিন্তু মিলেনি তার মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি ও প্রাপ্য সম্মান টুকুও। এ নিয়ে সবার মাঝে চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে।
জানা যায়, স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা সংসদসুত্রে জানা যায় উপজেলা ভিত্তিক মুক্তিযোদ্ধার তালিকায় নিয়ামতপুর সদর ইউনিয়নে ১৬ নং ক্রমিকে মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে আজির উদ্দিনের নাম রয়েছে। যার জাতীয় তালিকা নং ৫৪, ভোটার সূচক নং ৬৪-৬৯-৫২-০০১।
এছাড়া বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, কেন্দ্রীয় সম্মেলন প্রস্তুত কমিটির তালিকায় একই সূচকে মুক্তিযোদ্ধা হিসাবে আজির উদ্দিনের নাম রয়েছে। যুদ্ধশেষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্দেশে অস্ত্র জমা দেওয়ারও রশিদ রয়েছে। সবশেষ অনলাইনেও আবেদন করেও কোন লাভ হয়নি।
মুক্তিযোদ্ধা আজির উদ্দিন তার জীবনদশায় মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি পায় নাই। বর্তমানে তাঁর স্ত্রী ও সন্তানরা মানবেতর জীবনযাপন করছে। ভাংগা মাটির ছোট্ট একটি ঘরে বসবাস করেন আজির উদ্দিনের স্ত্রী।
আজির উদ্দিনের ৬ সন্তান। তিন ছেলে এবং তিন মেয়ে। বড় ছেলে আকতার ও মেঝ ছেলে আইজুল দিন মজুরের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে, ছোট ছেলে তাইজুল নওগাঁ পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির লেবার হিসাবে কাজ করে। দুই মেয়ে বিয়ে হলেও ছোট মেয়েটিকে এখনও বিয়ে দিতে পারেন নাই অর্থের অভাবে।
আজির উদ্দিন ২০১৩ সালে মৃত্যুবরণ করলে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় দাফন করা হলেও মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি না পাওয়ায় সরকারী সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত। ফলে পরিবারটি অনাহারে অর্ধাহারে জীবন কাটাচ্ছে। শুধু মাত্র জাতীয় দিবসগুলোতে সংবর্ধনা নিয়েই তাদের সান্তনা।
কথা হয় ছোট ছেলে তাইজুল ইসলামের সাথে তিনি বলেন, আমার বাবা নিয়াতমপুর উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার জামশেদ আলীর সাথে চাঁপাইনবাবগঞ্জের বর্ডার এলাকায় যুদ্ধ করেছে। সাথে ভাবিচার মুক্তিযোদ্ধা পটল সরেন, আমইল গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা করিম ও তালপুকুরিয়ার আব্দুল বারীও ছিলেন। তারা প্রত্যেকেই মারা গেছেন।
আজির উদ্দিনের ছেলে তাইজুল ইসলাম ক্ষোভের সাথে জানান, ১৯৭১ সালে দেশ মাতৃকার টানে ৭ মার্চ জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাষন শোনার পর নানান বাধা পায়ে ঠেলে মৃত্যু নিশ্চিত যেনেও আমার বাবা যুদ্ধে চলে যান। আমার বাবার যৌবনের সবটুকু দিয়ে যুদ্ধ করেছে স্বাধীনতার জন্য। তখন জীবনের মায়া ছিল আমার বাবার কাছে নগন্য। কিন্তু আমার বাবা সবার কাছেই নগণ্য হয়ে পড়েছে।
আজির উদ্দিনের স্ত্রী জয়গন বলেন, আমি খেয়ে না খেয়ে একটি ভাংগা ছোট্ট ঘরে বাস করছি। ঘরটি যে কোন মূহুর্তে ভেংগে পড়তে পারে। টাকার অভাবে ভাংগা ঘর মেরামত করতে পারছি না। তাই সরকারের কাছে আমার আকুল আবেদন আমার স্বামী দেশের জন্য যুদ্ধ করেছে। আমার আমার আমার সন্তানদেরকে একটু ভালোভাবে বাঁচার সুযোগ করে দিন।

ফেব্রুয়ারি ১২
০৭:২৬ ২০২১

আরও খবর

বিশেষ সংবাদ

প্রাণ ফিরে পাচ্ছে রাবির টুকিটাকি চত্বর

প্রাণ ফিরে পাচ্ছে রাবির টুকিটাকি চত্বর

স্টাফ রিপোর্টার ,রাবি: টুকিটাকি চত্বর। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের চিরপরিচিত একটি চত্বর। প্রায় ৩৫ বছর আগে বিশ্ববিদ্যালয়টির লাইব্রেরি চত্বরে ‘টুকিটাকি’ নামের ছোট্ট একটি দোকান চালু হয়। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মুখে মুখে টুকিটাকি নামটি ছড়িয়ে পড়ে। দোকানটি ভীষণ জনপ্রিয়তা পায়। ফলে সবার অজান্তেই একসময় লাইব্রেরি চত্বরটির নাম হয়ে যায়

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

আসছে ৫৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি

আসছে ৫৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি

সানশাইন ডেস্ক : মান্থলি পেমেন্ট অর্ডারভুক্ত (এমপিও) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৫৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমতি পেলে চলতি মাসেই গণবিজ্ঞপ্তি জারি করতে পারে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। এনটিআরসিএ সূত্রে জানা গেছে, সারা দেশের এমপিওভুক্ত স্কুল-কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রায় ৫৭ হাজার ৩৬০টি শূন্য পদের তালিকা

বিস্তারিত