Daily Sunshine

নগরীতে আবেদন সাড়ে ৬ হাজার ভ্যাকসিন ডাটাবেজ প্যানেলে কাজ করতে প্রতিবন্ধকতা

Share

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী বিভাগের ৮টি জেলায় প্রথম ধাপে মোট ৬ লাখ ৭২ হাজার ডোজ করোনা প্রতিষেধক ভ্যাকসিন এসেছে। যা সংশ্লিষ্ট জেলাসমূহের ইপিআই কেন্দ্রগুলো থেকে নির্ধারিত পদ্ধতিতে উপজেলা পর্যায়ে পৌছে দেয়া হয়েছে। তবে এই ভ্যাকসিন নিতে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে ঠিক কতো সংখ্যক নাগরিক অনলাইনে রেজিস্ট্রেশন করেছেন শনিবার বিকেল পর্যন্ত স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগ নিজেরাই তা জানতে পারেননি। এমনকি কেন্দ্রীয় ডাটাবেজে (এমআইএস) প্রবেশেও প্রতিবন্ধকতার অভিযোগ পাওয়া গেছে।
রাজশাহীর ৯টি উপজেলার আবেদনকারীদের তথ্য দিতে না পারলেও সিভিল সার্জন জানিয়েছেন শনিবার পর্যন্ত রাজশাহী নগরীতে ভ্যাকসিনের জন্য আবেদন (রেজিস্ট্রেশন) করেছেন ৬ হাজার ৩১৯ জন।
এদিকে রবিবার কেন্দ্র থেকে দেশের সকল উপজেলা ও জেলা পর্যায়ে ভ্যাকসিনেশন প্রোগ্রাম উদ্বোধনের পর প্রথম দিনেই রাজশাহী-২ আসনের সাংসদ ফজলে হোসেন বাদশা, রাজশাহী জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল, সিভিল সার্জন ডা. কাইয়ুম তালুকদার এই ভ্যাকসিন নিবেন বলে জানা গেছে। এ জন্য তারা সরকার নির্ধারিত সুরক্ষা পেজে রেজিস্ট্রেশন করেছেন।
স্বাস্থ্য বিভাগের ডিজির সাথে শনিবার রাতে প্রতিটি জেলার সিভিল সার্জনসহ উপজেলা পর্যায়ের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তাদের ভার্চুয়াল মিটিং সম্পন্ন হয়েছে। সেখানে সংশ্লিষ্ঠদের ভ্যাকসিনেশন প্রোগ্রামের কেন্দ্রীয় ডাটাবেজের (এআইএস) এডমিন পাসওয়ার্ড দিয়ে দেয়া হয়েছে। এতে করে আগামী কাল ভ্যাকসিন প্রদান কার্যক্রম সুষ্ঠভাবে শুরুর প্রথমিক প্রতিবন্ধকতা কাটলো। তবে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত রাজশাহীর সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা কেন্দ্রীয় ডাটাবেজে প্রবেশ করতে পারেননি। এক্ষেত্রে তারা কারিগরী ত্রুটির সম্মুখিন হচ্ছেন বলে জানা গেছে।
করোনা ভ্যাকসিন নিতে নাগরিকদের সরকার নির্ধারিত সুরক্ষা ওয়েবপেজে রেজিস্ট্রেশন বাধ্যতামূলক। আর সেই রেজিস্ট্রেশন দেখেই কাকে কোন কেন্দ্রে ভ্যাকসিন দেয়া হবে তা নির্ধারণ করে দেবেন সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্য কর্মকর্তা। একারণে তাদের ভ্যাকসিনেশন প্রোগ্রামের ডাটাবেজে প্রবেশাধিকার গুরুত্বপূর্ণ।
রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. এফএএম আঞ্জুমান আরা বেগম জানান, তিনি শনিবার ডাটাবেজের এ্যডমিন পাসওয়ার্ড পেয়েছেন। তবে তিনি বারবার চেষ্টা করেও ডাটাবেজে ঢুকতে পারছেন না। দুএকবার ঢুকতে পালেও লগ আউট হয়ে গেছে। একই অভিজ্ঞতা জানিয়েছেন তানোর উপজেলার স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা রোজী আরা খাতুন।
রাজশাহী জেলার সিভিল সার্জন ডা. কাইয়ুম তালুকদার বলেন, প্রথম চালানে রাজশাহীর জন্য ১ লাখ ৮০ হাজার ডোজ ভ্যাকসিন পাওয়া গেছে। এর মধ্যে সিটি কর্পোরেশন এলাকার ৩০ হাজার ডোজ। শনিবার রাতে আমরা স্বাস্থ্য বিভাগের ডিজি মহোদয়ের সাথে জুম মিটিং করি। এসময় সংশ্লিষ্ট উপজেলা ও সিটিকর্পোরেশনের স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের ডাটাবেজের আইডি ও পাসওয়ার্ড দিয়ে দেয়া হয়েছে।
রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন এলাকায় ৬ হাজার ৩ ১৯ জন রেজিস্ট্রেশন করেছেন। বাকি ৯টি উপজেলার তথ্য এখন পর্যন্ত পাওয়া যায়নি। আগামীকাল সকাল ১০টায় আমরা ভ্যকসিনেশন প্রোগ্রামের উদ্বোধন করতে পারবো। এলক্ষে পর্যাপ্ত সংখ্যক স্বাস্থ্যকর্ম প্রস্তুর আছে। সিভিল সার্জন জানান, ভ্যাকসিন নিতে রেজিস্ট্রেশন বাধ্যতমূলক। যারা ভ্যাকসিন নিতে ইচ্ছুক তাদের জন্য প্রতিটি ভ্যকসিন প্রদান কেন্দ্রে আলাদা বুথ থাকবে, সেখান থেকে চাইলে রেজিস্ট্রেশন করা যাবে।
রামেকের উপপরিচালক ডা. সনাইফুল ফেরদৌস বলেন, প্রথম দিনে রামেকের এ্যক্সামিনেশন রুমে (৩২ নম্বর ওয়ার্ডের নিচ তলায়) ৮টি বুথে করোনা ভ্যকসিন প্রদান করা হবে। এ জন্য ৪ জন ডাক্তার ও ২০ জন সিস্টারকে প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। প্রথম দিন রাজশাহী মেডিকেল কলেজের প্রিন্সিপাল নওশাদ আলী ও আমি (সাইফুল ফেরদৌস) করোনার ভ্যাকসিন নেবো।
জেলা প্রশাসক আব্দুল জলিল বলেন, সরকার বিনামূল্যে জনগণের জন্য করোনার ভ্যাকসিনের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন। যা এখন পর্যন্ত অনেক উন্নত রাষ্ট্রও তাদের নাগরিকদের জন্য করতে পারেনি। ভ্যাকসিন নিয়ে কোন প্রকার গুজবে কান দেয়া যাবে না। এখন পর্যন্ত যারা ভ্যাকসিন নিয়েছেন তাদের সবাই সুস্থ আছেন। আমি নিজেও ভ্যাকসিন নেয়ার জন্য আবেদন করেছি। সিভিল সার্জন যেখানে বলবেন রবিবার আমি সেই কেন্দ্রে গিয়ে ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিবো। এসময় তিনি সকলকে নিয়ম মেনে ভ্যকসিন নেয়ার জন্য আবেদন করতে অনুরোধ করেন।
রাজশাহী বিভাগের স্বাস্থ্যের পরিচালক ডা. হাবিবুল আহসান তালুকদার জানান, দেশে বিদ্যমান ইপিআই (হাম-রুবেলা টিকাদান কর্মসূচি) টেকনোলজি থেকে সামান্য কিছু পার্থক রয়েছে করোনা ভ্যাকসিন কর্মসূচিতে। এ জন্য স্বাস্থ্য কর্মীদের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। ধিরে ধিরে তা রপ্ত করে নিবেন সংশ্লিষ্ট স্বাস্থ্যকর্মীরা। এর মাঝে কোনো সমস্যা হলেও তা সমাধান করার মতো সক্ষমতা স্থানীয় স্বাস্থ্য বিভাগের আছে। কজের মাধ্যমে দক্ষতা আরো বৃদ্ধি পাবে। স্বাস্থ্য বিভাগের এই পরিচালক জানান, ভ্যকসিনেশন ডাটাবেজ সার্ভারে এ্যকসেস ছাড়া ভ্যকসিনের কেন্দ্রগুলোতে ভ্যাকসিন দেয়া শুরু করা যাবে না। কারণ ডাটাবেজের তালিকা দেখে সংশ্লিষ্ট নাগরিকদের ভ্যাবসিন দিতে হবে। প্রথম ধাপে রাজশাহী বিভাগের ৮টি জেলায় মোট ৬ লাখ ৭২ হাজার ডোজ করোনা প্রতিষেধক ভ্যাকসিন আছে উল্লেখ করে পরিচালক জানান, বিভাগের জন্য যা পর্যাপ্ত। চাহিদা অনুসারে পরবর্তিতে আরো সরবরাহ করবে সরকার।
প্রসঙ্গত, প্রথম পর্যায়ে শুধুমাত্র ৫৫ বছর উর্ধ্ব নাগরিক, মুক্তিযোদ্ধা, পুলিশ, সামরিক বাহিনী, বিজিবি, স্বাস্থ্য বিভাগের সদস্য, প্রশাসন এবং সাংবাদিকসহ ১৫টি পেশা সংশ্লিষ্টরা এই ভ্যকসিন নিতে আবেদন করতে পারবেন। যারা মূলত করোনাকালীন সময়ে মাঠ পর্যায়ে কাজ করে আসছেন। তবে প্রত্যেককেই সুরক্ষা নামক সরকারি ওয়েব পেজে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। এনআইডি নম্বর, মোবাইল নম্বরসহ রেজিস্ট্রেশনের পর সেখান থেকে পাওয়া তথ্য অনুসারে নির্ধারিত তারিখে সংশ্লিষ্ট বুথে গিয়ে ভ্যাকসিন নেয়া যাবে। যারা ভ্যাকসিনের জন্য আবেদন গ্রহণ হবে তাদেরকে দুইটি করে ডোজ নেয়া লাগবে। প্রথম ডোজের পর অন্তত ৪ থেকে ৮ সপ্তাহ পর দ্বিতীয় ডোজ নেয়া লাগবে।

ফেব্রুয়ারি ০৭
০৪:০৪ ২০২১

আরও খবর

বিশেষ সংবাদ

প্রাণ ফিরে পাচ্ছে রাবির টুকিটাকি চত্বর

প্রাণ ফিরে পাচ্ছে রাবির টুকিটাকি চত্বর

স্টাফ রিপোর্টার ,রাবি: টুকিটাকি চত্বর। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের চিরপরিচিত একটি চত্বর। প্রায় ৩৫ বছর আগে বিশ্ববিদ্যালয়টির লাইব্রেরি চত্বরে ‘টুকিটাকি’ নামের ছোট্ট একটি দোকান চালু হয়। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মুখে মুখে টুকিটাকি নামটি ছড়িয়ে পড়ে। দোকানটি ভীষণ জনপ্রিয়তা পায়। ফলে সবার অজান্তেই একসময় লাইব্রেরি চত্বরটির নাম হয়ে যায়

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

৪১তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ১৯ মার্চ

৪১তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ১৯ মার্চ

সানশাইন ডেস্ক : ৪১তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা নির্ধারিত সময়ে নেয়ার পক্ষে মত দিয়েছে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন। এই পরীক্ষা ১৯ মার্চ নেয়ার দিন ধার্য করেছে পিএসসি। বুধবার বিকেলে পিএসসিতে এক অনির্ধারিত সভায় যথাসময়ে এই পরীক্ষা নেয়ার মত দেয়া হয়। পরীক্ষা পেছানোর বিষয়ে এ অনির্ধারিত সভায় কোনো আলোচনা হয়নি। ২০১৯ সালের

বিস্তারিত