Daily Sunshine

ফাঁড়ি ইনচার্জ মাসুদের বিরুদ্ধে বিস্তর অভিযোগ

Share

আটক বাণিজ্যসহ মাদক ব্যবসায়ীদের পৃষ্ঠপোষকতা

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী নগরীর তালাইমারী পুলিশ ফাঁড়ির এসআই মাসুদ রানার বিরুদ্ধে স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ীদের থেকে নিয়মিত মাসোহারা আদায়, মাদকসহ আসামী ধরে অর্থের বিনিময়ে ছেড়ে দেয়া, অবৈধ যানবাহন নিজের করে তা ফাঁড়িতে রেখে ব্যবহার করাসহ মিমাংসার নামে অর্থ হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এমনই এক অভিযোগের প্রেক্ষিতে আরএমপি কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক মঙ্গলবার বিকেলে তালাইমারি ফাঁড়িতে স্বশরীরে উপস্থিত হয়ে অভিযুক্ত এসআই মাসুদ রানাকে ফাঁড়ি থেকে সাসপেণ্ড (বরখাস্ত) করেছেন।

সূত্রমতে, মঙ্গলবার দুপুরে জায়ফুল ইসলাম সোহেল নামরে একজন চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীকে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ হেরোইনসহ ভদ্রা জামালপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করে তালাইমারী ফাঁড়ির পুলিশ। এই সোহেলের বিরুদ্ধে থানায় পূবের মাদকের মামলা আছে। আটকের পর আসামী সোহেলকে ফাঁড়ির এসআই মাসুদ রানার কাছে হস্তান্তর কর হয়। তবে হেরোইনসহ আটক ওই আসামীর খবর উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে না জানিয়ে ও মামলা না দিয়ে মাসুদ রানা গোপনে আসামীকে ছেড়ে দেয়ার জন্য লিয়াজো শুরু করেন। তবে হেরোইনসহ আসামী আটকের এই ঘটনার খবর পেয়ে বিকেলে ফাঁড়িতে স্বশরীরে উপস্থিত হন পুলিশ কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক। অভিযোগের সত্যতা পেয়ে তাৎখনিক এসআই সামুদকে সাসপেন্ড করেন পুলিশ কমিশনার এবং তাকে পুলিশ লাইন্সে ক্লোজ করা হয়।

চন্দ্রিমা থানার ওসি সিরাজুম মুনির জানান, ফাঁড়িতে কমিশনার আসার পর ২৫ গ্রাম হোরোইনসহ সোহেলকে গ্রেফতার দেখিয়ে মামলা দেয়া হয়েছে। এসআই মাসুদ রানাকে সাসপেণ্ড করার বিষয়টি নিশ্চিত করে ওসি জানান, কমিশনার স্যার নিজে ফাঁড়িতে উপস্থিত হয়েছিলেন। এসআই মাসুদ রানার কর্মকাণ্ডে অনিয়ম পাওয়াত তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছেন কমিশনার স্যার।

এদিকে তালাইমারী পুলিশ ফাঁড়ির সদস্যসহ একাধিক স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানাযায়, অভিযুক্ত এই এসআই মাসুদ রানা ফাঁড়ির দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই একের পর এক অনিয়ন করে আসছেন। তার পৃষ্ঠপোষকতায় এলাকায় মাদক, অসামাজিক কর্মকাণ্ডসহ নানা অপরাধ বৃদ্ধি পেয়েছে। তিনি স্থানীয় চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে প্রতি মাসে চাঁদা আদায় করেন এবং এর বিনিময়ে মাদকব্যবসায়ীরা এলাকায় মাদকের অভআরণ্য গড়ে তুলেছেন।

ভদ্রা প্রাইমারি স্কুলের কাছে গত শুক্রবার একটি সড়ক দুর্ঘটনা হয়। ওই ঘটনায় মিমাংসা করে দেয়ার নামে অভিযুক্ত গাড়ির চালকের কাছ থেকে ১০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়া হয়েছে বলে অভিযো রয়েছে এই এসআই মাসুদ রানার বিরুদ্ধে। এসংক্রান্ত কল রেকর্ড সাংবাদিকের হাতে রয়েছে।

মেহেরচণ্ডি স্কুল মোড়ের পশ্চিমে আ. রহমান রুহুলের ছেলে মো. শামিম এলকায় বহুদিন থেকেই প্রকাশ্যে মাদকের ব্যবসা করেন। দূরদূরান্ত থেকে তার কাছে মদ ও ইয়াবা কিনতে আসেন মাদকসেবীরা। পরিচয় গোন করে মাাদক ব্যবসায়ী শামিমের সাথে কথা হলে তিনি জানান, তালাইমারী ফাঁরির ইনচার্জ মাসুদ রানাকে নিয়মিত মাসোহারা দিয়ে আসছেন তিনি। এর বিনিময়ে শামিম এলাকায় নির্বিঘ্নে মাদকের ব্যবসা করছেন। এই শামিমের বিরুদ্ধে চন্দ্রিমা থানায় মাদকের একাধিক মামলা রয়েছে। এর আগে চন্দ্রিমা ফাঁড়ির পুলিশ তাকে গাঁজাসহ আটক করলেও উর্্ধ্ববতন কর্তৃপক্ষের চাপে শামিমকে ছেড়ে দিতে বাধ্য হন।

গত বছরের ৪ এপ্রিাল রাতে চাল ভর্তি একটি মিনি ট্রাক স্থানীয়দের সহযোগীতায় জব্দ করা হয়। গাড়িতে থাকা সংশ্লিষ্টদের ফাঁড়িতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের এক পর্যায়ে মাসুদ রানা তাদের ছেড়ে দিতে চায়। তবে স্থানীয়দের দাবির প্রেক্ষিতে ওই গাড়িতে থাকা চালের বস্থা খুলে চেক করা হলে সেখান থেকে কয়েকটি প্যাকেটে হেরোইন পাওয়াযায়। ওই ঘটনায় এসআই মাসুদের কারণে জড়িত একজন পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। প্রথম পর্যায়ে শুধুমাত্র এসআই মাসুদ ও তার অনুগত কনসটেবল জামিল চালের ওই বস্তাগুলো খতিয়ে দেখেন ও হেরোইনগুলো সরিয়ে রাখেন। পরে উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা আসলে তাদের সামনে সবগুলো চালের বস্তা নামিয়ে তদন্ত করা হয়। তবে পরের বস্তাগুলোতে আর হেরোইন পাওয়া যায়নি। এর পর দিন জানানো হয় সেখান থেকে ৫০০ গ্রাম হেরোইন উদ্ধার করা হয়েছে এবং ৩জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে স্থানীয়দের অভিযোগ ওই গাড়িতে হেরোইনের পরিমাণ আরো বেশি ছিলো। হেরোইন উদ্ধারের কিছুদিনের মধ্যেই এসআই মাসুদ রানার চলাফেরায় পরিবর্তন আসে। তিনি একটি প্রাইভেট কার কেনেন। ওই গাড়ির মালিকানা নিয়েও অভিযোগ রয়েছে।

প্রাইভেট কারটি তারই ফাঁড়ির একজন কনসটেবল জামিলের কাছ থেকে কেনা। অভিযোগ রয়েছে ওই গাড়ির বৈধ কাগজপত্র নেই, থাকলেও তার কাগজপত্রে ত্রুটি রয়েছে। মাসুদের অনুরাগী জামিল সেই প্রাইভেট কার ছাড়াও একটি মূল্যবান মোটরসাইকেল নিয়ে চলাফেরা করেন, আর ওই মোটরসাইকেলটির সিসি অনুসারে দেশের সড়কে চলাচলের অনুমোদন নেই এমকি ওই মোটরসাইকেলটি চোরাই বা কাগজপত্র নেই বলে অভিযোগ রয়েছে। আর সেই প্রাইভেট কার ও মোটরসাইকেলটি ফাঁড়িতে রাখা হয়। এসআই মাসুদ রানা ওই কারে পুুুলিশ লেখাা স্্ট্রকার লাগিয়ে নিয়মিত থানা সহ রাজশাহী চষে বেড়ান। জানুয়ারির শুরুর দিকে এবিষয়ে সংবাদ প্রচারের পর তার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু হয়। যার দায়িত্্বে রয়েছেন মতিহার থানার এসি সোনিয়া।

এদিকে গত বছরের ২৭ নভেম্বর শুক্রবার ভদ্রার জামালপুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে হবি নামে এক জনকে গাঁজাাসহ আটক করে তালাইমারি ফাঁড়ির পুলিশ। স্থানীয়দের দেয়া তথ্য মতে হবি একজন গাঁজা সেবনকারী ও ব্যবসায়ী। এই আটকের সময়ও উপস্থিত ছিলেন এসআই মাসুদের অনুগত কনসটেবল জামিল। অভিযোগ রয়েছে আটকের পর মামলা না দিয়ে ওই রাতেই হবিকে ছেড়ে দেয়া হয়। আর নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয়রা জানান, হবিকে ছাড়াতে স্থানীয় এক আওয়ামী লীগের নেতা মধ্যস্থতা করেন। পরবর্তিতে অভিযুক্ত হবির কাছ থেকে ২০ হাজার টাকা নিয়ে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়। এবিষয়ে সংবাদ প্রকাশ হয়েছে।

আরএমপি’র কমিশনার আবু কালাম সিদ্দিক বলেন, মঙ্গলবার তালাইমারী ফাঁড়ির বিরুদ্ধে অভিযোগ শোনর পর সেখানে স্বশরীরে কমিশনার ভিজিট করেন। এসময় মামলা-মোকদ্দমায় দেয়ায় অনিয়ম পাওয়ায় তাকে সাসপেণ্ড করা হয়েছে।

কমিশনার আরো বলেন, আমরা পুলিশের কাজের জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে চাই। মাদকের বিরুদ্ধে আমাদের জিরো টলারেন্স নীতি। সাধারণ জনগণকে নিরাপত্তা দেয়া এবং অপরাধীদের আইনের আওতায় আনতে আরএমপি কাজ করে চলেছে।

তবে অভিযুক্ত এসআই মাসুদ রানার সাথে কথা হলে তিনি সমস্ত অভিযোগ অশ্বিকার করেন।

ফেব্রুয়ারি ০৪
০৫:২১ ২০২১

আরও খবর

বিশেষ সংবাদ

প্রাণ ফিরে পাচ্ছে রাবির টুকিটাকি চত্বর

প্রাণ ফিরে পাচ্ছে রাবির টুকিটাকি চত্বর

স্টাফ রিপোর্টার ,রাবি: টুকিটাকি চত্বর। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের চিরপরিচিত একটি চত্বর। প্রায় ৩৫ বছর আগে বিশ্ববিদ্যালয়টির লাইব্রেরি চত্বরে ‘টুকিটাকি’ নামের ছোট্ট একটি দোকান চালু হয়। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মুখে মুখে টুকিটাকি নামটি ছড়িয়ে পড়ে। দোকানটি ভীষণ জনপ্রিয়তা পায়। ফলে সবার অজান্তেই একসময় লাইব্রেরি চত্বরটির নাম হয়ে যায়

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

৪১তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ১৯ মার্চ

৪১তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ১৯ মার্চ

সানশাইন ডেস্ক : ৪১তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা নির্ধারিত সময়ে নেয়ার পক্ষে মত দিয়েছে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন। এই পরীক্ষা ১৯ মার্চ নেয়ার দিন ধার্য করেছে পিএসসি। বুধবার বিকেলে পিএসসিতে এক অনির্ধারিত সভায় যথাসময়ে এই পরীক্ষা নেয়ার মত দেয়া হয়। পরীক্ষা পেছানোর বিষয়ে এ অনির্ধারিত সভায় কোনো আলোচনা হয়নি। ২০১৯ সালের

বিস্তারিত