Daily Sunshine

তাহেরপুরে সংগঠিত আ’লীগ দল-রক্ষার নির্বাচনে বিএনপি

Share

স্টাফ রিপোর্টার, বাগমারা: চতুর্থ ধাপের ১৪ জানুয়ারি রাজশাহীর বাগমারা উপজেলার তাহেরপুর পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। বড় দুইদল আ’লীগের দলীয় মনোনয়ন নৌকার প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ গ্রহন করছেন, দুই-দুবারের সফল মেয়র অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ। ১৪ জানুয়ারির পৌর নির্বাচনে তিনি হ্যাটট্রিক করবেন বলে তাহেরপুর পৌর এলাকার ভোটারেরা জানিয়েছেন। অপর দিকে বিরোীধ দল বিএনপির একক ধানের শীর্ষের প্রার্থী আবু নঈম শামসুর রহমান নির্বাচনে অংশ গ্রহন করছেন।
প্রতিক বরাদ্দের পর থেকেই তাহেরপুর পৌর আ’লীগ ঐক্যবদ্ধ হয়ে মাঠ দখলে রেখে নৌকার প্রার্থী অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদের সমর্থকরা। ছত্রভঙ্গ হয়ে পিছিয়ে পড়েছে বিএনপির প্রার্থী ধানের শীষ আবু নঈম শামসুর রহমান। আ’লীগ সমান তালে নৌকার প্রতিকের নির্বাচনী প্রচারণা চালিয়ে গেলেও বিএনপির মাইকিং ছাড়া কোন নেতাকর্মীরা দেখা যাচ্ছে না।
ঐক্যবদ্ধ হয়ে নির্বাচনী মাঠ দাপিয়ে বেড়াচ্ছে আ’লীগের নেতাকর্মীরা। কোন্দলের কারণেই বিএনপির নেতাকর্মীদের সংঘবদ্ধ করতে পারছেনা দলের শীর্ষ নেতারা। মেয়রদের পাশাপাশি সাধারন কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলরেরা পিছিয়ে নেই। নির্বাচনী মাঠ গরম করতে মাইকিংসহ সমর্থিত প্রার্থীদের পক্ষে সংঘবদ্ধ ভাবে নির্বাচনী প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন তারা। শীতকে উপেক্ষা করে নির্বাচনী মাঠ সরাগম করেছেন প্রার্থীরা।
তাহেরপুর পৌর নির্বাচনে আ’লীগ মনোনীত নৌকার প্রার্থী অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ ফুরফুরে মেজাজে নির্বাচনী প্রচারণা চালাতে পারলেও বিএনপির মনোনীত প্রার্থী আবু নঈম শামসুর রহমান মিন্টু তা পারছেন না। দলীয় নেতাকর্মীদের সংঘবদ্ধ করতে না পারায় বিএনপি’র প্রার্থীর বড় ধরনের ধাক্কা খাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে মনে করছেন মাঠ পর্যায়ের বিএনপি সমর্থিত দলের নেতাকর্মীরা। মানসিক দিক থেকেই নির্বাচনী মাঠে দুর্বল হয়ে পড়েছে তারা।
বিগত সময়ে তাহেরপুর পৌরসভায় যে পরিমান উন্নয়নমূলক কর্মকান্ড হয়েছে তা দেখেই বিএনপির সমর্থিত নেতাকর্মীরা ভোটারদের কাছে নিজেদের উপস্থাপন করতে ব্যর্থ হচ্ছেন বলে মাঠ পর্যায়ের নেতাকর্মীরা মনে করছেন। যার কারণেই বর্তমান নৌকার প্রার্থী মেয়র আবুল কালাম আজাদ ফুরফুরে মেজাজে চলাফিরা করছেন।
নাম জানাতে অনিচ্ছুক বিএনপির একাধিক স্থানীয় নেতা জানান, তাহেরপুর পৌরসভায় মেয়র আবুল কালাম আজাদের বিকল্প নেই। প্রথম নির্বাচনে তিনি আ’লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে অংশ গ্রহন করে জয়লাভ করেন। তখন থেকেই তিনি তাহেরপুর বাসির সমস্ত উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ডের দাবী পূরন করেন। তার কর্মকান্ডের কারনে দ্বিতীয় বারে বিপুল ভোটে জয়লাভ করে আ’লীগের দলীয় মেয়র নির্বাচিত হন। দ্বিতীয়বার মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ তাহেরপুর পৌরসভাকে একটি মডেল পৌরসভা হিসেবে তৈরী করেন। তার উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ডে মেয়র আবুল কালাম আজাদ তাহেরপুর পৌরবাসীর রত্ন হিসেবে বিবেচিত হয়েছেন। তার কর্মকান্ডের কারণেই তাহেরপুর বাসীর জনসাধারণ দলমত নির্বিশেষে মেয়র আবুল কালাম আজাদকে আবারো নৌকা মার্কা প্রতিকে ভোট দিয়ে তৃতীয় বারের মত মেয়র নির্বাচিত করবেন।
এবারো তিনি ১৯ দফা কর্মসূচি নিয়ে নির্বাচনী মাঠে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। বিএনপি তাদের দলকে টিকিয়ে রাখার জন্যই তাহেরপুর পৌরসভায় তাদের দলীয় প্রার্থী দিয়েছেন বলে স্থানীয় নেতাকর্মীরা মনে করছেন। পৌরসভার ৯টি কেন্দ্রেই মেয়র পদের নৌকার প্রার্থী আবুল কালাম আজাদ প্রথম স্থান অধিকারের মাধ্যমে হ্যাটট্রিক করে মেয়র নির্বাচিত হবেন বলে এলাকার সচেতন মানুষ মনে করছেন।
তাহেরপুর পৌরসভায় ১৪ হাজার ৬১৯ জন ভোটার আগামী ১৪ ফেব্রুয়ারি তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন বলে উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে।

ফেব্রুয়ারি ০২
০৭:২৩ ২০২১

আরও খবর

বিশেষ সংবাদ

প্রাণ ফিরে পাচ্ছে রাবির টুকিটাকি চত্বর

প্রাণ ফিরে পাচ্ছে রাবির টুকিটাকি চত্বর

স্টাফ রিপোর্টার ,রাবি: টুকিটাকি চত্বর। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের চিরপরিচিত একটি চত্বর। প্রায় ৩৫ বছর আগে বিশ্ববিদ্যালয়টির লাইব্রেরি চত্বরে ‘টুকিটাকি’ নামের ছোট্ট একটি দোকান চালু হয়। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মুখে মুখে টুকিটাকি নামটি ছড়িয়ে পড়ে। দোকানটি ভীষণ জনপ্রিয়তা পায়। ফলে সবার অজান্তেই একসময় লাইব্রেরি চত্বরটির নাম হয়ে যায়

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

আসছে ৫৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি

আসছে ৫৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি

সানশাইন ডেস্ক : মান্থলি পেমেন্ট অর্ডারভুক্ত (এমপিও) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৫৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমতি পেলে চলতি মাসেই গণবিজ্ঞপ্তি জারি করতে পারে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। এনটিআরসিএ সূত্রে জানা গেছে, সারা দেশের এমপিওভুক্ত স্কুল-কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রায় ৫৭ হাজার ৩৬০টি শূন্য পদের তালিকা

বিস্তারিত