Daily Sunshine

নওহাটা পৌর নির্বাচনে চারজনের মনোনয়ন প্রত্যাহার

Share
Spread the love

স্টাফ রিপোর্টার: চতুর্থ ধাপের নির্বাচনে রাজশাহীর নওহাটা পৌরসভার ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। এ পৌরসভায় একজন মেয়র পদে ও তিনজন কাউন্সিলর পদে তাদের মনোনয়ন প্রত্যাহার করেছেন। মঙ্গলবার মনোনয়ন প্রত্যাহারের শেষ দিনে মেয়রপ্রার্থী মামুনুর সরকার জেড ও কাউন্সিলর পদে ২ নম্বর ওয়ার্ডে হাসান ইমাম, ৬ নম্বর ওয়ার্ডে বোরহান উদ্দিন ও ৭ নম্বর ওয়ার্ডে এনামুল হক তাদের মনোনয়ন প্রত্যাহার করেন।
যাচাই-বাছাই শেষে মেয়র, কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৭১ জন প্রার্থী ছিলেন। এরমধ্যে মেয়রপদে ৪ জন, কাউন্সিলর পদে ৪৯ জন এবং সংরক্ষিত নারী আসনে ১৮ জন। ব্যাংক ঋণ ও কাগজপত্রে ত্রুটির জন্য সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪ জনকে বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু আপীলে ১ নম্বর ওয়ার্ডে আবু বকর ছিদ্দিক ও ৪ নম্বর ওয়ার্ডে সোহেল রানা তাদের প্রার্থীতা ফেরৎ পান। এ নিয়ে মেয়র পদে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন ৩ জন, সংরক্ষিত নারী আসনে ১৮ জন ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৮ জন। প্রার্থী প্রত্যাহার সময় শেষে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন পবা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম।
পবা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শহিদুল ইসলাম প্রামানিক জানান, নওহাটা পৌরসভায় মেয়র পদে তিনজন, সংরক্ষিত নারী আসনে ১৮ জন এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৮ জন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারবেন। মেয়র পদের প্রার্থীরা হলেন- আওয়ামী লীগ মনোনীত হাফিজুর রহমান হাফিজ, বিএনপি মনোনীত বর্তমান মেয়র আলহাজ্ব শেখ মো. মকুবল হোসেন এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী আব্দুল বারী খান।
সংরক্ষিত নারী আসনের প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীরা হলেন, ১ নম্বর আসনে- শ্রীমতী কালী রাণী, মোসা. মরিয়ম বিবি ঝর্ণা, মোসা. নাজমীন, মোসা. জরিনা বেগম, আসমা বেগম, মোসা. রত্না খাতুন ও তাজমা ইসলাম পারুল। ২ নম্বর আসনে- ফাতেমা আক্তার সুমি, মোসা. রেশভানু বেগম, মোসা. সোখিনা বিবি, আজেদা বিবি ও হুসনেয়ারা বিবি। ৩ নম্বর আসনে মোসা. শীনা বেওয়া, মোসা. ফরিদা বেগম, মোসা. রাজিয়া সুলতানা, মোসা. রাশেদা বেগম, শ্রীমতী রীতা সাহা ও মোসা. নার্গিস বেগম।
১ নম্বর ওয়ার্ডে সাধারণ কাউন্সিলর প্রতিদ্বন্দ্বি প্রার্থীরা হলেন, আলেফ আলী, ইদ্রিস আলী, নাজমুল ইসলাম বারিক, আফজাল হোসেন, আশরাফ আলী, আবু বকর সিদ্দিক, দিদার হোসেন ভুলু ও শাহীন আলী। ২নম্বর ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিপ্রার্থীরা হলেন, আজিজুল হক, আজাদ আলী, সাইফুল ইসলাম ও আজাহার আলী। ৩ নম্বর ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিপ্রার্থীরা হলেন, মাসুদ পারভেজ, খায়রুল ইসলাম, নসিম উদ্দিন, সুজন মোল্লা, মোজাম্মেল হক, নাসিম উদ্দিন ও হাবিব মিয়া। ৪ নম্বর ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিপ্রার্থীরা হলেন, নাজিম উদ্দিন মোল্লা, দারেস আলী, মোস্তফা আলী, স্বপন আলী, সোহেল রানা ও মুর্শেদ সরকার।
৫নম্বর ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিপ্রার্থীরা হলেন, মোখলেছুর রহমান, অনিসুর রহমান, বাসের উদ্দিন, ফয়জুল ইসলাম, মকছেদ আলী ও সাজ্জাদ হোসেন। ৬নম্বর ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিপ্রার্থীরা হলেন, শফিকুল ইসলাম, কামাল হোসেন, নুরুজ্জামান খান, আলাউদ্দিন মোল্লা, আবু বাক্কার সিদ্দিক ও আতিকুর রহমান। ৭নম্বর ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিপ্রার্থীরা হলেন, মোস্তাক আলী, দেওয়ান সাদেক আলী ও আবু সুফিয়ান সেখ। ৮নম্বর ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিপ্রার্থীরা হলেন, মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ, মন্টু সেখ, হাবিবুর রহমান ও আব্দুল আলীম এবং ৯নম্বর ওয়ার্ডে প্রতিদ্বন্দ্বিপ্রার্থীরা হলেন, অব্দুল আলীম সরকার, সাইদুর রহমান ও আবতাব উদ্দিন।
এই পৌরসভার মোট ওয়ার্ড ৯টি, সংরক্ষিত ওয়ার্ড ৩টি, কেন্দ্র ১৯টি, ভোটকক্ষ ১২৪টি, ভোটার সংখ্যা ৪৩ হাজার, ৮শ ৪২ জন। যারমধ্যে পুরুষ ভোটার সংখ্যা ২১ হাজার, ৬শ ৫৩ জন ও নারী ভোটার সংখ্যা ২২ হাজার, ১শ ৮৯ জন।

জানুয়ারি ২৭
০৫:৫২ ২০২১

আরও খবর

বিশেষ সংবাদ

প্রাণ ফিরে পাচ্ছে রাবির টুকিটাকি চত্বর

প্রাণ ফিরে পাচ্ছে রাবির টুকিটাকি চত্বর
Spread the love

Spread the loveস্টাফ রিপোর্টার ,রাবি: টুকিটাকি চত্বর। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের চিরপরিচিত একটি চত্বর। প্রায় ৩৫ বছর আগে বিশ্ববিদ্যালয়টির লাইব্রেরি চত্বরে ‘টুকিটাকি’ নামের ছোট্ট একটি দোকান চালু হয়। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মুখে মুখে টুকিটাকি নামটি ছড়িয়ে পড়ে। দোকানটি ভীষণ জনপ্রিয়তা পায়। ফলে সবার অজান্তেই একসময় লাইব্রেরি চত্বরটির নাম

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

৪১তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ১৯ মার্চ

৪১তম বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা ১৯ মার্চ
Spread the love

Spread the loveসানশাইন ডেস্ক : ৪১তম বিসিএসের প্রিলিমিনারি পরীক্ষা নির্ধারিত সময়ে নেয়ার পক্ষে মত দিয়েছে বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশন। এই পরীক্ষা ১৯ মার্চ নেয়ার দিন ধার্য করেছে পিএসসি। বুধবার বিকেলে পিএসসিতে এক অনির্ধারিত সভায় যথাসময়ে এই পরীক্ষা নেয়ার মত দেয়া হয়। পরীক্ষা পেছানোর বিষয়ে এ অনির্ধারিত সভায় কোনো আলোচনা হয়নি।

বিস্তারিত