Daily Sunshine

ভবানীগঞ্জে ৯ ভোট কেন্দ্র প্রস্তুত, ৫ টি ঝুঁকিপূর্ণ

Share

মাহফুজুর রহমান প্রিন্স, বাগমারা: আর একদিন পরেই আগামী কাল শনিবার দ্বিতীয় ধাপে অনুষ্ঠিত হবে ভবানীগঞ্জ পৌরসভার নির্বাচন। ইতমধ্যে এ নির্বাচনের সকল প্রস্ততি সম্পন্ন হয়েছে বলে উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে। এ নির্বাচনে পৌরসভার নয়টি ভোট কেন্দ্রে মোট ১৪ হাজার ৪০৪ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন।
উপজেলা নির্বাচন কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, এ নির্বাচনে পৌরসভার নয়টি ওয়ার্ডের মোট ৯টি ভোট কেন্দ্রে সকাল আটটা থেকে বিরতিহীন ভাবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহন অনুষ্ঠিত হবে। ইতোমধ্যে ভোট কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিজাইডিং অফিসার ও সহকারি প্রিজাইজিং অফিসার ও পুলিং অফিসারকে নির্বাচনী প্রশিক্ষণ শেষ হয়েছে। আজ শুক্রবার সকাল থেকেই নির্বাচনের কাজে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের ভোটের বাক্স ব্যালোট পেপারসহ অনুসাঙ্গিক মালমাল বুঝিয়ে দেওয়া হবে। তারা শুক্রবার দুপুরের পর পরই স্ব স্ব ভোট কেন্দ্রে গিয়ে অবস্থান করবেন। পরদিন শনিবার সকাল ৮টা থেকে ভোট গ্রহন কাজ শুরু করবেন।
উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ভবানীগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে মোট ৯টি ভোট কেন্দ্রের মধ্যে ১ নং ভোট কেন্দ্র নির্ধারন করা হয়েছে কসবা নিম্ন মাধ্যমিক প্রাথমিক বিদ্যালয়। এ ভোট কেন্দ্রে মোট ভোটারের সংখ্যা ১৩৫৫, ২ নং ভোট কেন্দ্র উত্তর একডালা দাখিল মাদ্রাসা, ভোটারের সংখ্যা ১৩৭৪, ৩ নং ভোট কেন্দ্র কসবা সাদিপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ভোটারের সংখা ১৬২৩, ৪ নং কেন্দ্র ভবানীগঞ্জ মহিলা ডিগ্রি কলেজ, ভোটার ১২৯৯ জন।
৫ নং কেন্দ্র ভবানগঞ্জ মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ভোটারের সংখ্যা ১৬১২, ৬ নং কেন্দ্র শহীদ সেকেন্দার মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয়, ভোটারের সংখ্যা ২২১৬, ৭ নং ভোট কেন্দ্র সাদোপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ভোটারের সংখ্যা ১৬৯০, ৮ নং কেন্দ্র দর্গামাড়িয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ভোটারের সংখ্যা ১৫৪৪ এবং ৯ নং ভোট কেন্দ্র আলহাজ্ব সিরাজ উদ্দিন সরদারের আমবাগান, এখানে মোট ভোটারের সংখ্যা ১৬৯২ জন।
উপজেলার বিভিন্ন ভোট কেন্দ্রসহ কয়েকটি মহল্লার স্থানীয় ভোটারদের সূত্রে জানা গেছে শনিবার ভবানীগঞ্জ পৌর নির্বাচনের পৌর এলাকার মোট ৯টি ভোট কেন্দ্রের ৫টিই তারা ঝুকিপূর্ণ আখ্যায়িত করছেন। কেন্দ্রগুলো হলো উত্তর একডালা দাখিল মাদ্রাসা, ভবানীগঞ্জ মহিলা ডিগ্রি কলেজ, ভবানীগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শহীদ সেকেন্দার মেমোরিয়াল উচ্চ বিদ্যালয় ও সাদোপপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।
ভোটারদের মতে, উত্তর একডাল দাখিল মাদ্রাসা ভোট কেন্দ্রটি অধিকতর ঝুকিপূর্ণ। এরআগে এখানে বিএনপি মনোনীত ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থীর নির্বাচনী অফিস ভেঙ্গে দেওয়া হয়। এছাড়া এখানে আওয়ামী লীগের পক্ষ ত্যাগ করে স্বতন্ত্র প্রার্থী জগ প্রতীকের মামুনুর রশিদ মামুনের নিজ গ্রাম। তিনি এ নির্বাচনে একটি বড় ফ্যাক্টর হয়ে দাড়িয়েছে। এরআগে আওয়ামী লীগের কিছু উচ্ছৃঙ্খল ক্যাডারের হাতে মামুনের এক কর্মী লাঞ্চিত হয়। তখন থেকেই মামুন এ কেন্দ্রে শক্ত অবস্থান গড়ে তুলে প্রতিশোধ নেওয়ার জন্য।
অপরদিকে ভবানীগঞ্জ মহিলা ডিগ্রি কলেজ কে কিছুটা ঝুকিপূর্ন বলে অখ্যায়িত করছেন স্থানীয় ভোটাররা। তাদের মতে, এখানে বিএনপি’র প্রার্থী ধানের শীষ প্রতীকের ভোটারের সংখ্যা বেশি হওয়ায় তারা যে কোন মূল্যে এ ওয়ার্ডে তাদের বিজয় নিশ্চিত করতে চাইবে।
জানা গেছে আওয়ামী লীগও এ ওয়ার্ডে শক্তভীত রচনা করে চলেছে। যেকোন মূল্যে এ ওয়ার্ডের বিজয় ছিনিয়ে নিতে চায়। ভবানীগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রটিকেও একই ভাবে ঝুকিপূর্ণ বলছেন স্থানীয়রা। এখানেও বিএনপির অধিক্য বেশি হওয়ায় এ আশংকার কারন।
এছাড়া ৫ নং এ ওয়ার্ডটিকে আত্মঘাতি বলেও আখ্যায়িত করছেন অনেকে। এ ওয়ার্ড থেকে এর আগে যেসব নেতা কর্মী বিএনপি ছেড়ে আওয়ামী লীগে যোগ দিয়েছেন তাদের কেউ অনেকে সন্দেহের চোখে দেখছেন।
অপরদিকে শহীদ সেকেন্দার মেমোরিয়াল আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়টি পূর্ব থেকেই ঝুকিপূর্ণ। এখানে বিএনপি প্রার্থী আব্দুর রাজ্জাকের বাড়ি। এ ওয়ার্ডটি রাজ্জাকের ভোট ব্যাংক বলে পরিচিত। বিগত ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে এ পৌরসভা নির্বাচনে রাজ্জাকের সাথে বর্তমান মেয়র নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আব্দুল মালেকের তীব্র প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছিল এ কেন্দ্রে। সে সময় এ কেন্দ্রে ব্যাপক সংঘর্ষের ঘটনাও ঘটেছিল। এতে রাজ্জাকের কয়েকজন অনুগত কর্মী আহত হয়েছিল। তাই রাজ্জাক এ কেন্দ্রে এবার শক্ত অবস্থান গড়ে তুলেছে।
অপরদিকে সাদোপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোট কেন্দ্রটিকেই স্থানীয়রা অধিক ঝুকিপূর্ণ বলে দাবী করেছেন। তাদরে মতে এটিও জামায়াত বিএনপি অধ্যুষিত এলাকা। গত পৌর নির্বাচনে এ ভোট কেন্দ্রে ব্যাপক সংর্ঘষের ঘটনা ঘটলে পুলিশকে পরিস্থিতি শান্ত করতে কয়েক রাউন্ড গুলি বর্ষণ করতে হয়েছিল। এছাড়া এ ওয়ার্ডের অন্তর্গত সূর্যপাড়া মহল্লায় বর্তমান মেয়র আব্দুল মালেকের বাসভবন হওয়ায় তিনিও নিজের মান মর্যাদা রক্ষায় নিজ ভোট কেন্দ্রে বিজয় নিশ্চিত করতে প্রানপন চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে জানান তার কর্মী সমর্থকরা।
তবে যে কোন মূল্যে নির্বাচন সুষ্ঠ নিরপেক্ষ করতে বদ্ধ পরিকর স্থানীয় নির্বাচনের সাথে জড়িত সংশ্লিষ্টরা। জানা গেছে এ পৌরসভায় মেয়র পদের জন্য চারজন, সংরক্ষিত ৩টি আসনে ১৩ জন এবং সাধারণ কাউন্সিলরের ৯টি পদে ৩০ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বলে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তার দপ্তর সূত্রে জানা গেছে।
এ দিকে নির্বাচনের সময় যতই ঘনিয়ে আসছে নির্বাচনী উত্তেজনা ততই বাড়ছে। তবে এসব ঘটনাকে বিচ্ছিন্ন ঘটনা দাবী করে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা বলেছেন, আমরা সুষ্ঠ ও সুন্দর পরিবেশে নির্বাচন করার জন্য বদ্ধপরিকর। আইন শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রন ও নির্বাচনী পরিবেশ সুষ্ঠ সুন্দর রাখার জন্য ৯টি ভোট কেন্দ্রে নয়জন ম্যাজিস্ট্রেটকে নিয়োগ করা হয়েছে। এছাড়া পুলিশ বাহিনীর পাশাপাশি চার প্লাটুন বিজিবির সদস্য নিয়োজিত থাকবে।
বাগমারা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোস্তাক আহম্মেদ জানান, সুষ্ঠ নির্বাচনের জন্য পৌরসভার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। এছাড়া পৌর এলাকার সর্বত্রই পুশিলী টহল জোরদার করা হয়েছে।

জানুয়ারি ১৫
০৭:৪৬ ২০২১

আরও খবর

বিশেষ সংবাদ

প্রাণ ফিরে পাচ্ছে রাবির টুকিটাকি চত্বর

প্রাণ ফিরে পাচ্ছে রাবির টুকিটাকি চত্বর

স্টাফ রিপোর্টার ,রাবি: টুকিটাকি চত্বর। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের চিরপরিচিত একটি চত্বর। প্রায় ৩৫ বছর আগে বিশ্ববিদ্যালয়টির লাইব্রেরি চত্বরে ‘টুকিটাকি’ নামের ছোট্ট একটি দোকান চালু হয়। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মুখে মুখে টুকিটাকি নামটি ছড়িয়ে পড়ে। দোকানটি ভীষণ জনপ্রিয়তা পায়। ফলে সবার অজান্তেই একসময় লাইব্রেরি চত্বরটির নাম হয়ে যায়

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

আসছে ৫৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি

আসছে ৫৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি

সানশাইন ডেস্ক : মান্থলি পেমেন্ট অর্ডারভুক্ত (এমপিও) শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ৫৫ হাজার শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অনুমতি পেলে চলতি মাসেই গণবিজ্ঞপ্তি জারি করতে পারে বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ)। এনটিআরসিএ সূত্রে জানা গেছে, সারা দেশের এমপিওভুক্ত স্কুল-কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রায় ৫৭ হাজার ৩৬০টি শূন্য পদের তালিকা

বিস্তারিত