Daily Sunshine

‘রাজশাহী সিল্ক শাড়ি’ উপহার না নিয়ে এমপিদের কিনে দিলেন মন্ত্রী

Share

স্টাফ রিপোর্টার : দুই দিনের সফরে রাজশাহীতে অবস্থান করছেন বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী গোলাম দস্তোগীর গাজী বীরপ্রতীক। সফর সূচি অনুসারে রবিবার তিনি বাংলাদেশ রেশম উন্নয়ন বোর্ডে অবস্থিত গবেষণাগারে আধুনিক পলুপালন ঘর এবং রেশম কারখানায় লুমের উদ্বোধন করেন। আনুষ্ঠানিকতা শেষে ফিরে যাবার সময় মন্ত্রী রেশম কারখানার শোরুমে প্রবেশ করলেন। এই শোরুমে প্রতিষ্ঠানটির নেজেদের উৎপাদিত ‘রাজশাহী সিল্ক’ এর শাড়ি ও কাপড় বিক্রি করা হয়।
এসময় মন্ত্রীর সাথে রাজশাহী-২ আসনের সাংসদ ফজরে হোসেন বাদশা, সংরক্ষিত আসনের সাংসদ আদীবা আঞ্জুম মিতা, বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয়ের সচিব লোকমান হোসেন মিয়া উপস্থিত ছিলেন। সিল্কের শোরুমে ঢুকেই সেলস ম্যানদের মন্ত্রী রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী সিল্ক শাড়ি দেখাতে বললেন। একের পর এক বাহারি ও রংবেরঙের শাড়ি দেখে মন্ত্রী আবেগ ধরে রাখতে পারলেন না। তিনি প্রতিটি কাপড়, এর গড়ন এবং রং পর্যবেক্ষণ করেন। এসময় তিনি রাজশাহী সিল্কের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি সমস্ত প্রটোকল ও আনুষ্ঠানিকতা ভুলে আড্ডাঘন পরিবেশ সৃষ্টি করেন। সঙ্গী দুই জন সাংসদ এবং সচিবকে বললে, আমি আপনাদের শাড়ি কিনে দেবো। আপনারা বা আপনাদের পরিবারের সদস্যরা এই শাড়ি পড়লে এর ব্রাণ্ডিং হবে। সাধারণ মানুষ কিনতে আগ্রহী হবে।
এসময় সদর আসনের সাংসদ ফজলে হোসেন বাদশা সংরক্ষিত আসনের সাংসদ আদীবা আঞ্জুম মিতাকে উদ্দেশ্য করে বলেন, আমিও আপনাকে একটি শাড়ি কিনে দেবো। আদিবা আঞ্জুম মিতাও মন্ত্রী দস্তোগীর গাজী এবং সাংসদ বাদশাকে তাদের স্ত্রীর জন্য শাড়ি কিনে দিতে চান। এভাবে তারা হাসিঠাট্টার মাধ্যমে একের পর এক ৮টি শাড়ি কিনলেন।
শোরুম কর্তৃপক্ষ শাড়িগুলো মন্ত্রী ও সাংসদদের উপহার হিসেবে দিতে চাইলেও তারা তা না নিয়ে শাড়িগুলো মূল্য পরিশোধ করেন। পরে মন্ত্রী সকলের উদ্দেশ্যে বলেন, আপনারা রেশম উন্নয়ন বোর্ডের এই শোরুম থেকে শাড়ি কিনবেন। এলাকার অন্যকেও শাড়ি কিনতে উৎসাহিত করবেন। রাজশাহীর ঐতিহ্য আপনাদেরকেই ধরে রাখতে হবে।

জানুয়ারি ১১
০৫:৪৫ ২০২১

আরও খবর