Daily Sunshine

রাজশাহীতে চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণা অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

Share

স্টাফ রিপোর্টার, দুর্গাপুর : রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান আতিকের বিরুদ্ধে সরকারি চাকরি দেয়ার নামে টাকা আত্মসাৎ, ছিনতাই ও চাঁদাবাজির অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগী সাধারণ মানুষ। বৃহস্পতিবার বেলা ১১টায় দুর্গাপুর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এসব অভিযোগ করেন ভুক্তভোগীরা। শুধু সরকারি চাকরি নয়, ছাত্রলীগের পরিচয়ে সরকারি খাস পুকুর ও ফসলি জমিতে পুকুর খননের নামেও চাঁদাবাজির অভিযোগ করা হয় সংবাদ সম্মেলনে।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আরিফুল ইসলাম নামের এক যুবক অভিযোগ করেন, ২০১৯ সালে বাংলাদেশ সেনাবাহীনিতে কম্পিউটার অপরেটর পদে সার্কুলার হয়। ওই সার্কুলারে আরিফুলের চাকরি দেওয়ার কথা বলে ছাত্রলীগ নেতা আতিক। এমনকি চাকরির জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে বলে আরিফুলকে সঙ্গে করে ঢাকায় যেতে হবে। সেখানে স্যারকে কিছু টাকা দিতে হবে। এমন কিছু তথ্য দিয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আতিক আরিফুলের কাছ থেকে ৫০ হাজার টাকা নেয়। এরপর আরিফুলকে নিয়ে ঢাকায় যায় আতিক। ঢাকায় গিয়ে তিনদিন ধরে বিভিন্ন অলিতে গলিতে ঘুরিয়ে ভুলভাল বুঝিয়ে আরিফুলকে বাড়িতে নিয়ে আসে। তারপর থেকে দীর্ঘ এক বছর চাকরি হবে হচ্ছে বলে দিন পার করতে থাকে ছাত্রলীগ নেতা আতিক। এক বছর পর পুণরায় নতুন করে টাকা দাবি করে আতিক। টাকা না দিলে চাকরিও হবেনা আবার আগের টাকাও ফেরত দিবেনা বলে জানিয়ে দেয় আতিক।
সংবাদ সম্মেলনে পানানগর গ্রামের মুকুল হোসেন নামের আরেক ভুক্তভোগী অভিযোগ করেন, দীর্ঘ ৫ বছর যাবৎ সরকারি খাস পুকুরের শর্ত মেনে লিজ নিয়ে পুকুরে মাছ চাষ করে আসছেন তিনি। কিন্তু গত বছরের মাঝামাঝি সময় হঠাৎ করেই আতিক তার পুকুরে উপস্থিত হয়। পরে তারা পুকুরের চারপাশে নেটজাল দিয়ে বেড়া দিয়ে আসে। পরের দিন পুকুরে খাবার দিতে গিয়ে বিষয়টি দেখতে পেয়ে আতিকের সঙ্গে যোগাযোগ করলে আতিক তার কাছ থেকে ৩০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। পরে তাকে ১০ হাজার টাকা দেন মুকুল। কিন্তু তাতে সন্তুষ্ট না হয়ে আতিক তার বিরুদ্ধে স্থানীয় কিছু মানুষকে দিয়ে তাকে ভয়ভীতি ও হুমকী দিতে থাকে। এমনকি আতিককে টাকা না দেয়ায় পুকুরের মাছ ধরতেও মুকুলকে বাধা দেয়া হচ্ছে বলেও অভিযোগ করা হয়।
উপজেলা যুবলীগের ক্রিড়া বিষয়ক সম্পাদক আলামিন সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আতিক তার কাছ থেকে গত বছরের ২৯ ফেব্রুয়ারী তাকে বেধড়ক মারপিট করে নগদ ২ লাখ ১৪ হাজার টাকা, ২টা মোবাইল ফোন ছিনতাই করে নেয়। ওই ঘটনায় সে আতিকসহ তিনজনকে আসামী করে রাজশাহীর আদালতে মামলাও দায়ের করেন তিনি। মামলাটি বর্তমানে বিচারাধীন। বর্তমানে মামলা তুলে নিতে প্রাণ নাশের হুমকীও দেয়া হচ্ছে বলেও সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করেন আলামিন।
এসব অভিযোগ ছাড়াও ছাত্রলীগ নেতা আতিকের বিরুদ্ধে জমি দখল, ফসলি জমিতে পুকুর খনন করতে গেলে কৃষকদের কাছে চাঁদা দাবিরও অভিযোগ করা হয় সংবাদ সম্মেলনে। ছাত্রলীগ নেতা আতিকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা নেয়াসহ তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবিও জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে।
সংবাদ সম্মেলনে উপজেলা যুবলীগের ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক আলামিন, ভুক্তভোগী আরিফুল ইসলাম, মুকুল হোসেন ছাড়াও ১০/১৫ জন উপস্থিত ছিলেন।

জানুয়ারি ০৮
০৫:৩৩ ২০২১

আরও খবর