Daily Sunshine

কৃষকের দাবি আদায়ের প্লাটফর্ম কৃষকলীগ : তারিন

Share

স্টাফ রিপোর্টার: আব্দুল লতিফ তারিন। ১৯৭৮ ছাত্রলীগের হাত ধরে রাজনীতিতে পদার্পণ। অবশ্য যেসময় তিনি ছাত্রলীগের রাজনীতিতে প্রবেশ করেন তখন দেশের অনেকেই নির্যতন ও কারাবরণের ভয়ে আওয়ামী লীগ বা এর সহযোগী সংগঠনের নাম নিতেও ভয় পেতেন। ছোটবেলা থেকেই স্বাধীনতা সংগ্রামে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা ও তার আদর্শের কথা শুনে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে তার আগ্রহ জন্মায়। এখন তিনি কৃষকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ সভাপতি। অতিরিক্ত দায়িত্ব হিসেবে তাকে রাজশাহী বিভাগের কৃষকলীগের সমন্বায়কের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগের সহযোগী এই সংগঠনটিকে প্রান্তিক পর্যায়ে সংগঠিত করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখে চলেছেন তারিন। আগামীতে পঞ্চগড়-১ আসন থেকে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনের ইচ্ছ পোশন করেন তিনি। অবশ্য এর জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বা আওয়ামী লীগের সিদ্ধান্তের বাইরে কিছুই করবেন না।
তবে আজকেই এই পর্যায়ে পৌছাতে তাকে বিএনপি-জমাতের নির্যাতন ও মিথা মামলায় কারাবরণ সহ্য করতে হয়েছে। সিরাজগঞ্জে জন্মগ্রহণ করলেও তিনি বেড়ে উঠেছেন পঞ্চগড়ে। এরপর ঢাকায় উচ্চশিক্ষা লাভ। ছাত্র রাজনীতি শেষে ১৯৯১ সালে কৃষকলীগের কেন্দ্রী কমিটির সদস্য নির্বাচিত হন আব্দুল লতিফ তারিন। ১৯৯৭ সালে সাংগঠনিক সম্পাদক, ২০০২ সালে যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক। ২০০৮ সালে সহ সভাপতি এবং ২০১৯ সালে আবারো তিনি কৃষকলীগের সহ সভাপতি নির্বাচিত হন।
আব্দুল লতিফ তারিন জানান, শ্রমিকদের দাবি আদায়ের জন্য রয়েছে শ্রমিক সংগঠন, যুবকদের দাবি আদায়ের জন্য রয়েছে যুব সংগঠন, ছাত্রদের জন্য রয়েছে ছাত্র সংগঠন। তবে কৃষকদের কথা বা দাবি আদায়ের কোন প্লাটফর্ম ছিলো না। অথচ দেশে এখনো ৬০ থেকে ৭০ শতাংশ মানুষ কৃষি কাজের সাথে সম্পৃক্ত নয়তো কৃষকের সন্তান। পা ফাটা কৃষকদের কথা বলার কোন প্লাটফর্ম ছিলো না। এই মানুষগুলোর কথা চিন্তা করেই ১৯৭২ সালে প্রতিষ্ঠা করা হয় কৃষকলীগ।
তারিন কৃষকলীগের গুরুত্ব তুলে ধরে বলেন, করোনা কালীন সময়ে পুরো বিশ্বের মতো বাংলাদেশের অর্থনীতির চাকা যাখন স্থবির হয়ে পড়তে শুরু করে; ঠিক তখন এই কৃষক করোনার ভয়কে উপেক্ষা করে মাঠে নামে, ফসল ফলায়। আর তাদের পরিশ্রমের ফলেই আজ এই মহামারিকালীন সময়েও দেশর অর্থনীতির চাকা সচল রয়েছে। নয়তো আজ দেশে মহামারির চাইতে দুর্ভিক্ষে আরো বেশি মানুষ মারা যেতো। এবার দেশের কৃষিতে যখন শ্রমিক সংকট দেখা দেয় তখন কৃষকলীগ শ্রমিক দিয়ে কৃষকদের জমির ফসল কেটে ঘরে তুলতে সহায়তা করে। মাদক, সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে কৃসক লীগ সজাগ রয়েছে। গ্রমের কৃষককে সংগঠিত করতে কৃষকলীগ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিরা রাখছে। এলক্ষে প্রতিটি ওয়ার্ডে কৃষকলীগের কমিটি গঠন করা হচ্ছে। আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে ওয়ার্ড পর্যায়ে কৃষকলীগের কমিটি তৈরির কাজ শেষ হবে। জানুয়ারিতে থানা পর্যায়ের ও ফেব্রুয়ারিতে জেলা ও মহানগর কমিটি গঠনের কাজ শেষ হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে ধানা ক্রয় কমিটিতে কৃষকলীগের একজন করে সদস্য থাকবে বলে খাদ্য মন্ত্রণালয় সম্প্রতি একটি গেজেট প্রকাশ করেছে। কৃষকলীগের এটা একটা বড় সফলতা বলে মনে করেন তারিন।

নভেম্বর ১৯
০৬:৩৯ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

শীতের আমেজে আহা…ভাপা পিঠা

শীতের আমেজে আহা…ভাপা পিঠা

রোজিনা সুলতানা রোজি : প্রকৃতিতে এখন হালকা শীতের আমেজ। এই নাতিশীতোষ্ণ আবহাওয়ায় ভাপা পিঠার স্বাদ নিচ্ছেন সবাই। আর এই উপলক্ষ্যটা কাজে লাগচ্ছেন অনেক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। লোকসমাগম ঘটে এমন মোড়ে ভাপা পিঠার পসরা সাজিয়ে বসে পড়ছেন অনেকেই। ভাসমান এই সকল দোকানে মৃদু কুয়াশাচ্ছন্ন সন্ধ্যায় ভিড় জমাচ্ছেন অনেক পিঠা প্রেমী। রাজশাহীর বিভিন্ন

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

৭ ব্যাংকের সমন্বিত নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত

৭ ব্যাংকের সমন্বিত নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত

সানশাইন ডেস্ক: সাত ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার পদের সমন্বিত নিয়োগ পরীক্ষা (২০১৮ সালভিত্তিক) স্থগিত করা হয়েছে। আগামী ৫ ডিসেম্বর রাজধানীর ৬৭টি কেন্দ্রে এ পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। শনিবার (২৮ নভেম্বর) ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটির (বিএসসি) সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। যে সাতটি ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষার স্থগিত করা হয়েছে সেগুলো হলো হলো—সোনালী

বিস্তারিত