Daily Sunshine

বাঘায় ছয়মাসে দুই শতাধিক বাল্যবিয়ে

Share

নুরুজ্জামান, বাঘা: শনিবার সন্ধ্যায় বাঘা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে মোবাইল ফোনে মনিগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ৮ নং ওয়ার্ড সভাপিত কাওসার রহমান জানালেন একটি বাল্য বিয়ের প্রস্তুতির খবর। তিনি ঐ বিয়ে বন্ধের জন্য নির্দেশ দিলেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলামকে। এরপর চেয়ারম্যান পাঠালেন গ্রাম পুলিশ। তিনি সেখান থেকে ম্যানেজ হয়ে ফিরে এলেন বলে অভিযোগ স্থানীয়দের। তারপর রাতের আধারে হলো বাল্য বিয়ে।
শুধু মনিগ্রাম ইউনিয়নের তুলশীপুর নয়, এমন বাল্য বিয়ের ঘটনা ঘটছে বাঘা উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে। এক অনুসন্ধ্যানে দেখা গেছে, দেশব্যাপী করোনা সংকট চলমান অবস্থায় গত ৬ মাসে উপজেলার ৭টি ইউনিয়ন এবং ২টি পৌরসভা মিলে প্রায় দুই শতাধিক বাল্য বিয়ের ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে চকরাজাপুর ইউনিয়নে বাল্য বিয়ের শিকার হয়েছে ৫৫ জন শিক্ষার্থী। যারা এ বাল্য বিয়ের শিকার হচ্ছে তাদের পড়া লেখা ৬ষ্ট থেকে নবম শ্রেণির মধ্যে।
এসব ঘটনায় উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন সমাজের সুধীজনরা। তারা বলছেন, স্থানীয় প্রশাসন বিভিন্ন সভা সেমিনারে বড়-বড় বক্তিতা করলেও কার্যক্ষেত্রে তাদের ভূমিকা নিরব। এ কারণে অসঙ্খ শিক্ষার্থী মাধ্যমিকের গন্ডিও পেরুতে পারছে না। তারা আরও অভিযোগ করেন, বাল্য বিয়ে প্রতিরোধের জন্য সরকারি ভাবে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেয়া হলেও এ বিষয়ে তার কোন ভূমিকা নেই।
মনিগ্রাম ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ৮ নং ওয়ার্ড সভাপতি ও তুলশিপুর গ্রামের বাসিন্দা কাওছার রহমান জানান, বাল্য বিয়ের ঘটনাস্থল তার বাড়ির পাশে। শনিবার সন্ধ্যায় অষ্টম শ্রেণি পড়া এক ছাত্রীকে ইচ্ছের বিরুদ্ধে পাশ্ববর্তী রুস্তমপুর গ্রামের আব্দুল মতিনের ছেলে রুবেল হোসেনের সাথে বিয়ে দেয়া হচ্ছে এ খবর শোনার পর দেশের প্রচলিত আইনের প্রতি শ্রদ্ধা রেখে আমি এ খবরটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে জানায়। এর আধাঘণ্টা পর মনিগ্রাম ইউপি চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম ওই বিয়ে বন্ধের জন্য গ্রাম পুলিশ পাঠান মেয়ের বাড়ী। কিন্তু গ্রাম পুলিশ সেখান থেকে ম্যানেজ হয়ে বাড়ী ফিরে। রাতের আঁধারে বিয়ে সম্পন্ন হয়।
এর আগে বাঘা পৌর এলাকার বাজুবাঘা নতুনপাড়া গ্রামের এক পিতা- সপ্তম শ্রেণি পড়া মেয়েকে শুক্রবার রাতে বিয়ে দেয়ার দিন ধার্য করলেও প্রশাসনকে খবর দেয়া হতে পারে এমন সন্দেহে আগের দিন বৃহস্পতিবার তার মেয়েকে অন্য এলাকায় নিয়ে গিয়ে পাকুড়িয়া এলাকার শিমুলের (২৫) সাথে বিয়ে দেন। পরে সোমবার তার বাড়িতে অনুষ্ঠান করেন।
অনুসন্ধ্যানে জানা গেছে, বাঘায় মাধ্যমিক পর্যায়ে ৫২ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। এ সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যায়নরত শিক্ষার্থীদের গোপনে বাল্য বিয়ে দেয়ার হিড়িক পড়েছে। বিশেষ করে উপজেলার সীমান্তবর্তী পদ্মার চরাঞ্চলের চকরাজাপুর ও পলাশী ফতেপুর এবং সমতল এলাকার হেলালপুর এম.এইচ বালিকা, তেথুরিয়া, চন্ডিপুর, মনিগ্রাম ও বাউসা উচ্চ বিদ্যালয় বাল্য বিয়ে রেকর্ড ভঙ্গ করেছে।
হেলালপুর এম.এইচ বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল খালেক বলেন, তার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে গত এক বছরে সপ্তম থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত মোট ২৫ শিক্ষর্থীর বাল্য বিয়ে দেয়া হয়েছে। এর মধ্যে তিনি চেষ্টা চালিয়ে উপজেলা প্রশাসনের মাধ্যমে দুটি বিয়ে বন্ধ করতে পেরেছেন। তাঁর মতে, বর্তমান প্রেক্ষপটে দেশব্যাপী নারী এবং শিশুদের প্রতি যে সামাজিক নির্যাতন চলছে তার কয়েকটি কুফলের মধ্যে বাল্য বিয়ে অন্যতম।
চরাঞ্চলের শিক্ষক গোলাম মোস্তফা জানান, সরকার শিক্ষার্থীদের জন্য ব্যাপক সুযোগ-সুবিধা দেয়ার পরেও গোপনে বাল্য বিয়ে রোধ করা যাচ্ছে না। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, গত ৬ মাসে চরাঞ্চলের ২টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে ৫৫ শিক্ষার্থী বাল্য বিয়ের শিকার হয়েছে। এ খবর প্রকাশিত হলেও টনক নড়েনি প্রশাসনের।
বাঘা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিন রেজা বলেন, বাল্য বিয়ে সংক্রান্তে অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হয়। এরপরও যদি কোন পিতা-মাতা অন্যত্র নিয়ে গিয়ে তাদের কন্যার বিয়ে দেন সেক্ষেত্রে কিছু করার থাকে না। তিনি বাল্য বিয়ে প্রতিরোধের জন্য শিক্ষক মহল এবং উপজেলা প্রশাসনকে আরো সতর্ক ও সক্রীয় হওয়াসহ সামাজিক আন্দোলন গড়ে তোলার কথা বিভিন্ন সভা-সেমিনারে ব্যক্ত করে থাকেন বলে জানান।

অক্টোবর ২০
০৭:২৭ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

শীতের আমেজে আহা…ভাপা পিঠা

শীতের আমেজে আহা…ভাপা পিঠা

রোজিনা সুলতানা রোজি : প্রকৃতিতে এখন হালকা শীতের আমেজ। এই নাতিশীতোষ্ণ আবহাওয়ায় ভাপা পিঠার স্বাদ নিচ্ছেন সবাই। আর এই উপলক্ষ্যটা কাজে লাগচ্ছেন অনেক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। লোকসমাগম ঘটে এমন মোড়ে ভাপা পিঠার পসরা সাজিয়ে বসে পড়ছেন অনেকেই। ভাসমান এই সকল দোকানে মৃদু কুয়াশাচ্ছন্ন সন্ধ্যায় ভিড় জমাচ্ছেন অনেক পিঠা প্রেমী। রাজশাহীর বিভিন্ন

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

ইউএনডিপিতে চাকরির সুযোগ

ইউএনডিপিতে চাকরির সুযোগ

সানশাইন ডেস্ক: ইউনাইটেড ন্যাশনস ডেভেলপমেন্ট প্রোগ্রাম (ইউএনডিপি) বাংলাদেশে বিভিন্ন প্রোগ্রামে কর্মকর্তা নিয়োগ দেবে। এসব পদে আবেদনের বিস্তারিত পাওয়া যাবে https://www.bd.undp.org/content/bangladesh/en/home/jobs.html লিংকে। পদগুলো হলো- ১. ন্যাশনাল কনসালট্যান্ট-ন্যাশনাল জিআইএস এক্সপার্ট ২. বিজনেস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস স্পেশালিস্ট ৩. কমিউনিকেশনস অ্যান্ড অ্যাডভোকেসি অফিসার ৪. প্রোগ্রাম সাপোর্ট ইন্টার্ন, ইউএনডিপি কান্ট্রি অফিস ৫. ইনক্লুসিভ ডিজিটাল ইকোনমি কনসালট্যান্ট

বিস্তারিত