Daily Sunshine

নিজের নিয়োগেই জালিয়াতি মসজিদ মিশন একাডেমি অধ্যক্ষের

Share

স্টাফ রিপোর্টার: রাজশাহীর মসজিদ মিশন একাডেমীর অধ্যক্ষ নূরুজ্জামান খানের বিরুদ্ধে নিজের নিয়োগে জালিয়াতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির শিক্ষকরা এসংক্রান্ত একটি অভিযোগপত্র রাজশাহী শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান ও দপ্তর সমূহে পাঠিয়েছেন বলে জানা গেছে।
মসজিদ মিশন একাডেমীর অধ্যক্ষ নূরুজ্জামান খান একত্রে দুইটি এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চাকরি করেছেন ও সরকারি কোষাগার থেকে বেতন তুলেছেন। যা সম্পূর্ণ অবৈধ। তিনি মসজিদ মিশন একাডেমীতে স্কুল শাখায় চাকরিরত অবস্থায় কথিত পদোন্নতির মাধ্যমে ইসলামের ইতিহাস পদে প্রভাষক পদে যোগদান করেন এবং সেই পদে কর্মরত অবস্থায় তথ্য গোপন করে গোদাগাড়ী উপজেলার পালপুর ধরমপুর কলেজে একই বিষয়ে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন এবং দীর্ঘ ৬বছর উভয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চাকরির পাশাপাশি বেতন ভোগ করতে থাকেন।
অভিযোগ পত্রে দেয়া তথ্য মতে, মসজিদ মিশন একাডেমীর শিক্ষক নূরুজ্জামান খান অধ্যক্ষ হিসেবে নিয়োগের যোগ্যতা রাখে না। কারণ হিসেবে বলা হয়, মসজিদ মিশন একাডেমীতে তার নিয়োগ অবৈধ। কারণ প্রথমত তিনি মসজিদ মিশন একাডেমীতে স্কুল শাখায় চাকুরি করা অবস্থায় ৩০ আগস্ট ১৯৯৫ সালে মসজিদ মিশন একাডেমীর (স্কুল এন্ড কলেজ) ইসলামের ইতিহাস বিভাগের প্রভাষক হিসেবে পদোন্নতির মাধ্যমে যোগদান করেন। অথচ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পদোন্নতির মাধ্যমে নিয়োগের কোন নিয়ম নেই। দ্বিতীয়ত তিনি তথ্য গোপন করে ১৯৯৬ সালে গোদাগাড়ী থানার পালপুর ধরমপুর কলেজে একই বিষয়ে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। এভাবে তিনি একই সাথে দুইটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানেই চাকরি করতে থাকেন। ২০০১ সালের মে মাসে পালপুর ধরমপুর কলেজটি এমপিও ভূক্ত হলে নূরুজ্জামান খান ঐ কলেজে বেতন উত্তোলন করতে থাকেন। যার সরকারি ইনডেক্স নং ৬১৮৩৬৬ এবং ব্যাংক একাউন্ট নং ৫৫০২/২৯, সোনালী ব্যাংক, গোদাগাড়ী শাখা, রাজশাহী। এসময় তিনি মসজিদ মিশন একাডেমীর স্কুল শাখা থেকেও বেতন উত্তোলন করতে থাকেন। এর মধ্যে ২০০২ সালের মে মাসে মসজিদ মিশন একাডেমীর কলেজ শাখাটি এমপিওভুক্ত হয়। তিনি পালপুর ধরমপুর কলেজের বেতন না তুলে উক্ত কলেজ থেকে পদত্যাগ না করে তথ্য গোপন করে মসজিদ মিশন একাডেমী থেকে ১৯৯৫ সালে যোগদানের তথ্য দিয়ে বেতন উত্তোলন শুরু করেন এবং পরবর্তীতে ১৯৯৫ সালের যোগদানের তারিখ ব্যবহার করে সিনিয়রিটির ভিত্তিতে সহকারী অধ্যাপক হন। যার উপর ভিত্তি করে তিনি অত্র একাডেমীর ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হন এবং পরবর্তীতে অধ্যক্ষ হিসেবে নিয়োগ লাভ করেন। মূলত মসজিদ মিশন একাডেমীতে চাকরি করা অবস্থায় ও স্কুল শাখা থেকে বেতন ভোগ করা অবস্থায় যখন তিনি পালপুর ধরমপুর কলেজে যোগদান করেন তখন থেকেই তিনি আর মসজিদ মিশন একাডেমীর শিক্ষক থাকতে পারেন না। তদুপরি তিনি ২০০১ সালের মে মাস থেকে ২০০২ সালের এপ্রিল পর্যন্ত উভয় প্রতিষ্ঠানে চাকরি ও বেতন উত্তোলন করেছেন যা সম্পূর্ণ অবৈধ। সুতরাং পালপুর ধরমপুর কলেজে যোগদান পূর্বক এক বছরব্যাপি সরকারী বেতন উত্তোলন করার কারণে ১৯৯৫ সালের যোগদান দেখিয়ে মসজিদ মিশন একাডেমীতে এমপিওভুক্ত হওয়া, সহকারী অধ্যাপক হওয়া, ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ হওয়া এবং অধ্যক্ষ পদে আবেদন করা সবই অবৈধ।
অভিযোগকারী শিক্ষকগন বিষয়টির সত্যতা যাচাই করে অধ্যক্ষ নূরুজ্জামান খানের বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন বলে জানাগেছে।
পালপুর ধরমপুর মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ আব্দুল মালেক জানান, মসজিদ মিশন একাডেমীর বর্তমান অধ্যক্ষ ১৯৯৬ থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত পালপুর ধরমপুর মহাবিদ্যালয়ে ইসলামের ইতিহাস বিষয়ে প্রভাষক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তবে এই ৬বছর তিনি মসজি মিশন একাডেমীতে কর্মরত ছিলেন কিনা তা তিনি জানেন না।
অভিযোগ প্রসঙ্গে কথা বলতে চাইলে মসজিদ মিশন একাডেমীর অধ্যক্ষ নূরুজ্জামান খান ডাক্তারের কাছে যাওয়ার কথা বলে ব্যস্ততা দেখান ও পরে কথা বলবেন বলে বিষয়টি এড়িয়ে যান।

অক্টোবর ১৪
০৬:২৩ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

নগরীর পুরাতন বইয়ের বাজার, কেমন আছেন দোকানীরা?

নগরীর পুরাতন বইয়ের বাজার, কেমন আছেন দোকানীরা?

আবু সাঈদ রনি: সোনাদীঘি মসজিদের কোল ঘেষে গড়ে উঠেছে রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী পুরাতন বইয়ের দোকান। নিম্নবিত্ত ও অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের একমাত্র আশ্রয়স্থল এই পুরাতন লাইব্রেরী। মধ্যবিত্তরা যে যায় না ঠিক তেমনটিও না। কি নেই এই লাইব্রেরীতে? একাডেমিক, এডমিশন, জব প্রিপারেশনসহ সব ধরনের বই রাখা আছে সারি সারি সাজানো। নতুন বইয়ের দোকানের সন্নিকটে

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

চাকুরির নিয়োগ দিচ্ছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

চাকুরির নিয়োগ দিচ্ছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

সানশাইন ডেস্ক : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন পদে জনবল নিয়োগ দেয়া হবে। রাবির নিজস্ব ওয়েবসাইটে এই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। পদের নাম: কম্পিউটার অপারেটর পদ সংখ্যা: ০১ টি। বেতন: ১২৫০০-৩০২৩০ টাকা। পদের নাম: মেডিক্যাল টেকনােলজিস্ট (ফিজিওখেরাপি) পদ সংখ্যা: ০২ টি। বেতন: ১২৫০০-৩০২৩০ টাকা। পদের নাম: মেডিক্যাল টেকনােলজিস্ট (ডেন্টাল) পদ সংখ্যা:

বিস্তারিত