Daily Sunshine

উন্নয়নে আলোকিত এখন কাটাখালী

Share

স্টাফ রিপোর্টার : প্রায় পাঁচ বছর আগের কাটাখালী পৌরসভা আর বর্তমানের কাটাখালী পৌরসভা মধ্যে উন্নয়নে আকাশ-পাতাল পার্থক্যে দাঁড়িয়েছে। দেশের অন্যান্য পৌরসভায় আলো নেই রাস্তা নেই এমন অভিযোগ থাকলেও কাটাখালী পৌরসভা অনেকটাই ব্যতিক্রমভাবে সুন্দর ও সুচারুভাবে এগিয়ে চলছে। ২০১৫ সালের ডিসেম্বরে মেয়র নির্বাচিত আব্বাস আলী। মেয়র হওয়ার পর থেকেই জনকল্যাণমূলক পদক্ষেপে পাল্টে যেতে থাকে পৌরসভার অবকাঠামোগত উন্নয়ন, পরিবেশ পরিস্থিতি ও জীবনমানের।

রাজনৈতিক বেড়াজাল ডিঙ্গিয়ে অনেক চড়াই-উৎরায়ের পর কাটাখালি পৌরসভার মেয়র নির্বাচিত হন আব্বাস আলী। জামায়াত-বিএনপি অধ্যুষিত এই পৌরসভায় জনগণের আস্থা ও বিশ্বাসের সাথে কাজ করে চলেছেন তিনি। জোট সরকারের আমল এবং তার পরবর্তী সময়েও ককটেল বোমার আতংক ও বারুদের গন্ধ শুঁকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যেতে হতো শিক্ষার্থীদের। আজ সেদিন আর নেই। জনগণকে একদিকে ঝলমলে তকতকে এবং অপরদিকে বিশ্বাস ও আস্থার প্রতিষ্ঠান হিসেবে পৌর পরিষদকে উপহার দিচ্ছেন মেয়র আব্বাস। এক পৌরসভা একজন প্রতিনিধি যে জনগণের সেবক, শাসক নয়-এটা মেয়র আব্বাস প্রমাণ করতে অনেকটাই সক্ষম হয়েছেন। এলাকা থেকে দুর্নীতি, চাঁদাবাজি, মাদকদ্রব্য, সন্ত্রাস, জঙ্গি, বাল্যবিবাহ ও নারী নির্যাতন মুক্ত কাটাখালী পৌরসভা গড়তে তুলতে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন।

এক সময় বিধবা, মাতৃত্ব, বয়স্ক ভাতা নির্ধারিত ব্যাংকে যেয়ে নিতে হতো দুঃস্থ, অসহায় ও গরীব ভাতাভোগিদের। এতে সকালে ব্যাংকে উপস্থিত হলে অনেকের বিকেল হয়ে যেত। টাকা নিতে এসব ভাতাভোগিদের অমানবিক দুর্ভোগ পোয়াতে হতো। অনেকে অসুস্থ্য হয়ে পড়তেন। মেয়রের উদ্যোগে বয়স্ক ভাতার টাকা তোলার জন্য কাউকে এখন আর ব্যাংকে যেতে হয় না। পৌরসভাতেই সম্মানের সাথে টাকা তোলার সুবিধা দেয়া হয়েছে। ব্যাংক কর্মকর্তারা পৌরসভাতে এসেই টাকা বিতরণ করেন। পৌরসভায় ভাতা ভোগিদের সংখ্যাও বৃদ্ধি পেয়েছে। এখন আর ভাতার অন্তভর্‚ক্ত হতে কাউকে উৎকোচ (ঘুষ) দেয়া লাগে না।

মেয়রের জনবান্ধব উন্নয়ন যাত্রার সুবাধে এবং বিভিন্ন রকম সুযোগ তৈরি করায় দুই বছরের মধ্যে ‘গ’ শ্রেণি থেকে ‘খ’ শ্রেণীর মর্যাদা লাভ করে। বর্তমানে এই পৌরসভার সুপেয় পানি সরবরাহে আর্সেনিকের প্রভাব মুক্তে দুইটি বিশুদ্ধ পানির পাম্প স্থাপনের কাজ চলছে। বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে ও জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধীদপ্তরের অধীনে পৌরসভার কাপাশিয়ায় নির্মিত হচ্ছে এই দু’টি পাম্প। যা প্রতি মিনিটে ৩৭ হাজার ৫০০ লিটার পানি উত্তোলনযোগ্য। এই পাম্প থেকে পরিশোধন হয়ে পাইপ লাইনের মাধ্যমে বাড়ি বাড়ি পৌছে যাবে পানি। প্রতিদিন পনের লক্ষ লিটার পানি পাওয়া যাবে এ পাম্প থেকে।

অক্টোবর ০১
১৯:৩৫ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

নগরীর পুরাতন বইয়ের বাজার, কেমন আছেন দোকানীরা?

নগরীর পুরাতন বইয়ের বাজার, কেমন আছেন দোকানীরা?

আবু সাঈদ রনি: সোনাদীঘি মসজিদের কোল ঘেষে গড়ে উঠেছে রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী পুরাতন বইয়ের দোকান। নিম্নবিত্ত ও অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের একমাত্র আশ্রয়স্থল এই পুরাতন লাইব্রেরী। মধ্যবিত্তরা যে যায় না ঠিক তেমনটিও না। কি নেই এই লাইব্রেরীতে? একাডেমিক, এডমিশন, জব প্রিপারেশনসহ সব ধরনের বই রাখা আছে সারি সারি সাজানো। নতুন বইয়ের দোকানের সন্নিকটে

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

চাকুরির নিয়োগ দিচ্ছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

চাকুরির নিয়োগ দিচ্ছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

সানশাইন ডেস্ক : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন পদে জনবল নিয়োগ দেয়া হবে। রাবির নিজস্ব ওয়েবসাইটে এই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। পদের নাম: কম্পিউটার অপারেটর পদ সংখ্যা: ০১ টি। বেতন: ১২৫০০-৩০২৩০ টাকা। পদের নাম: মেডিক্যাল টেকনােলজিস্ট (ফিজিওখেরাপি) পদ সংখ্যা: ০২ টি। বেতন: ১২৫০০-৩০২৩০ টাকা। পদের নাম: মেডিক্যাল টেকনােলজিস্ট (ডেন্টাল) পদ সংখ্যা:

বিস্তারিত