Daily Sunshine

ফাদারকে পালাতে সহযোগিতা করেছিলেন আদিবাসি নেতা কামেল মার্ডি

Share

বরেন্দ্র অঞ্চল প্রতিনিধি: আদিবাসি কিশোরীকে ধর্ষণের দায়ে রাজশাহী ধর্ম প্রদেশের ভিতর থেকে মঙ্গলবার রাতে ফাদারকে গ্রেপ্তার করেন র‌্যাব। গ্রেপ্তারকৃত গীর্জার ফাদার প্রদিপ কে বুধবার জেল হাজতে প্রেরণ করেছে আদালত। তার একদিন আগে মুন্ডুমালা গীর্জা থেকে সটকে পড়ে ফাদার। তিনি আত্মগোপনে ছিলেন। আর তাকে মুন্ডুমালা হতে পালাতে সহযোগিতা করেন আদিবাসির একজন নেতা।
আদিবাসি কিশোরীকে আটক রেখে ধর্ষনের তিন দিন পর জানাযানি হয়ে পড়লে নিজে বাচার জন্য প্রথমেই তানোর উপজেলা পারগানা পরিষদের সভাপতি আদিবাসি মি:কামেল মার্ডীকে ডেকে নেন গীর্জার ফাদার প্রদিপ গ্যা গরী। বিষয়টি ধাপাচাপা দিতে কামেল মার্ডীকে ম্যানেজ করে অতি গোপনে শালিসির বৈঠক করার প্রস্তাব দেন ফাদার। তার প্রস্তাবে সাই দিয়ে শালিসে বসার আয়োজন করেন কামেল মার্ডী।
এবং দ্রতগতিতে লোক দেখানো শালিস করে তরিঘরি করে ফাদার গীর্জা থেকে পাঠানোর ব্যবস্থা করেন কামেল মার্ডী। এজন্য সোমবার দুপুর নাগাদ রাজশাহী ধর্ম প্রদেশে থেকে মুন্ডুমালা গীর্জায় আসেন তিন জন প্রতিনিধি,কামেল মার্ডী মিসন পাড়া দুইজন গ্রাম্য প্রধান ডেকে নেন। এবং কিশোরীর পরিবারকে উপস্থিত করেন ফাদারের বাস ভবনে।
শালিসে কামেল মার্ডী ফাদারে সাজানো রায় পড়ে কিশোরীর পরিবার শোনান এবং বোঝান। শালিসি রায়ে বলা হয়, কিশোরী লেখাপড়া ও ভরণ পোষন গীর্জা থেকে বহন করা হবে। এবং সে এখন থেকে গীর্জার সিসটারদের ভবনে সে থাকবে।
এ রায় না মানলে কিশোরীর পরিবারকে ধর্মশালায় আসতে দেওয়া হবেনা। প্রয়োজনে সমাজ থেকে বিতারিত করা হবে বলে ঘোষনা দেন কামেল মার্ডী।
এমন রায় শুণে ভয়ে কিশোরীর রেখেই চলে আসে পরিবার। পরে সোমবার সন্ধ্যায় রাজশাহী ধর্ম প্রদেশের তিনজন প্রতিনিধি সঙ্গে ফাদার প্রদিপকে পাঠিয়ে দেন। এবং তাকে পরিবেশ শান্ত না হওয়া পর্যন্ত রাজশাহী থেকে না আসার কথা বলা হয়। তার কথা মত ফাদার সেই দিনেই সটকে পড়েন।
শালিসে উপস্থিত ছিলেন এমন একজন ও কিশোরীর পরিবারের সদস্যরা সে দিনে শালিসের ঘটনার বর্ণনা দেন সাংবাদিকদের কাছে। মিশন পাড়ার কয়েকজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন,কামেল মার্ডী আদিবাসি নেতা হলেও তিনি স্বাথ্য কাছে তার নিতি বেচে দিতে দিধা করেনা। সে অর্থ লোভী ফাদারের কাছে মোটা অংকের অর্থ পেয়ে তাকে পালাতে সহযোগিতা করেন। তাকেও আইনের আওতাই আনার দাবি জানান তারা।
তবে,এসব বিষয়ে আদিবাসি নেতা কামেল মার্ডী মঙ্গলবার বিকালে সংবাদ কর্মীদের কাছে বলেন,তিনি শালিসে যা রায় দিয়েছেন তা কিশোরীর কথা চিন্তা করে করেছেন বলে জানান।
তিনি আরো বলেন,নির্যাতিন কিশোরী ভরণ পোষন ও লেখাপড়া খরচ বহন করার তারা প্রতিশ্রতি দিয়েছেন। তাই কিশোরীকে তাদের হেফাজতে রাখা হয়েছিল। কারণ সমাজ বলে একটি কথা আছে। কিশোরীকে তার বাবা মায়ের কাছে দিয়ে সে যদি আত্মহত্যার মত ঘটনা ঘটিয়ে দেন তার দায় কে নিবে।
আর ফাদারের কে পালাতে সহযোগিতার বিষয়ে তিনি বলেন,ফাদার কে পালাতে সহযোতিা করার বিষয়টি পরিস্থিতি শান্ত করার জন্য করা হয়েছিল।

অক্টোবর ০১
০৬:৩০ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

নগরীর পুরাতন বইয়ের বাজার, কেমন আছেন দোকানীরা?

নগরীর পুরাতন বইয়ের বাজার, কেমন আছেন দোকানীরা?

আবু সাঈদ রনি: সোনাদীঘি মসজিদের কোল ঘেষে গড়ে উঠেছে রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী পুরাতন বইয়ের দোকান। নিম্নবিত্ত ও অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের একমাত্র আশ্রয়স্থল এই পুরাতন লাইব্রেরী। মধ্যবিত্তরা যে যায় না ঠিক তেমনটিও না। কি নেই এই লাইব্রেরীতে? একাডেমিক, এডমিশন, জব প্রিপারেশনসহ সব ধরনের বই রাখা আছে সারি সারি সাজানো। নতুন বইয়ের দোকানের সন্নিকটে

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

চাকুরির নিয়োগ দিচ্ছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

চাকুরির নিয়োগ দিচ্ছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

সানশাইন ডেস্ক : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন পদে জনবল নিয়োগ দেয়া হবে। রাবির নিজস্ব ওয়েবসাইটে এই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। পদের নাম: কম্পিউটার অপারেটর পদ সংখ্যা: ০১ টি। বেতন: ১২৫০০-৩০২৩০ টাকা। পদের নাম: মেডিক্যাল টেকনােলজিস্ট (ফিজিওখেরাপি) পদ সংখ্যা: ০২ টি। বেতন: ১২৫০০-৩০২৩০ টাকা। পদের নাম: মেডিক্যাল টেকনােলজিস্ট (ডেন্টাল) পদ সংখ্যা:

বিস্তারিত