Daily Sunshine

বরেন্দ্রের চারণভূমি ঘাসশূন্য আকাশ ছুঁয়েছে খড়ের দাম

Share

সেলিম সানোয়ার পলাশ, গোদাগাড়ী: রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী উপজেলার সর্বত্র চারণভূমি ও গো-খাদ্যের তীব্র সঙ্কট চরমভাবে দেখা দেয়ায় মহাবিপাকে পড়েছেন কৃষক ও গরু খামারীরা। এ সংকটে পড়ে অনেকে কম দামে গবাদি পশু বিক্রি করতে বাধ্য হচ্ছেন। একদিকে চারণভূমির অভাব অন্যদিকে ধানের চারার (খড়) মূল্য চরমভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় দিশেহারা হয়ে পড়েছে তারা। অনেকে খড়ের অভাবে অন্যান্য খাদ্য খাওয়ানোর জন্য গরুর রোগব্যাধি দেখা দিচ্ছে।
বর্তমানে আগাম জাতের পরিজা কিংবা খাট আটাশ ধানের চারা (খড়) প্রতি হাজার বিক্রি হচ্ছে ৩ হাজার ২০০ থেকে ৩ হাজার ৫০০ টাকায়। জমি থেকে পোয়াল বিক্রি হচ্ছে প্রতি বিঘা ১৮শ থেকে ২১ টাকায়। পুরাতন চারা বিক্রি হচ্ছে প্রতি হাজার সাড়ে ৫ হাজার থেকে ৬ হাজার টাকায়।
এত উচ্চ মূল্যে খড় প্রান্তিক কৃষকদের পক্ষে ক্রয় করা অসম্ভব হয়ে পড়েছে। সামর্থবান কৃষকেরা উচ্চমূল্যে খড় কিনতে সক্ষম হলেও দরিদ্রের পক্ষে তা কোন ক্রমেই সম্ভবপর হচ্ছে না। বন্যা, করোনা এবং বৃষ্টি বাদলের জন্য যথাসময়ে কৃষকেরা তাদের ইরি-বোরো চাষকরা ধানের খড় সংগ্রহ করতে ব্যর্থ হওয়ায় এ বছর খড়ের দাম সর্বোচ্চ মূল্যে বিক্রি হচ্ছে।
শনিবার গোদাগাড়ী উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ধানের জমিতে গিয়ে দেখা গেছে, বৃষ্টির কারণে পাকাধান কাটার পর অনেকে চারা (খড়) তৈরী করতে না পারায় খড় (পোয়াল) তৈরী করেছে। এ পোয়াল জমি থেকেই চড়া মূল্যে ক্রয় করছে গো-খাদ্যর জন্য অনেকেই। যে সকল কৃষক চারা তৈরী করেছে তাদেরও চারা জমি থেকেই চড়া মূল্যে বিক্রি হয়ে যাচ্ছে।
এদিকে এ উপজেলায় কোথাও কোন পতিত জমি না থাকায় এ খাদ্য সংকটের সময় কৃষকরা তাদের গরু চরানোর জায়গা পাচ্ছে না। যার ফলে কৃষকরা গরুর খাবারের জন্য চারার (খড়) উপর নির্ভশীল হয়ে পড়েছে।
গোদাগাড়ী বোগদামারী এলাকার কৃষক লালু বলেন, ২ বিঘার জমির পোয়াল ৪ হাজার টাকায় ক্রয় করে রোদ্রে সুখিয়ে পালা করে রাখলাম গরুর খাবারের জন্য।
কৃষক ফেন্সু বলেন, গরুর খাবারের আকাল এর আগে দেখিনি। চারার দাম এতো বেশী, চারা কিনে গরুকে খায়ানো দায় হয়ে পড়েছে।
এদিকে চলতি বছর ইরি-বোরো মৌসুমে লাগাতার বৃষ্টিপাত ঘটায় কৃষকেরা তাদের চাহিদা মোতাবেক কাঙ্খিত ধানের খড় শুকাতে ব্যর্থ হয়। সে সাথে সিরাজগজ্ঞ, পাবনা, বগুড়া চট্রগ্রামসহ বিভিন্ন এলাকার গরু ব্যবসায়ীরা এ উপজেলায় এসে চারা (খড়) ট্রাক বোঝায় করে ক্রয় করে নিয়ে যাচ্ছেন। ফলে গো-খাদ্যের সঙ্কট দেখা দিচ্ছে। সেই সাথে চাহিদা বৃদ্ধি পাওয়ায় এ বছর খড়ের মূল্য দিগুণ বেড়েছে।
গোদাগাড়ী উপজেলার প্রানিসম্পদ কর্মকর্তা সুব্রত সরকার জানান, এ উপজেলায় খড়ের চাহিদা অনুযায়ী উৎপাদনও হয়েছে। কিন্তু দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে খড় উৎপাদন লক্ষ্য মাত্রা অর্জন করা সম্ভব হয় নি। এছাড়াও অন্যান্য জেলায় খড়ের চাহিদা থাকায় এ উপজেলা থেকে চড়া দামে খড় কিনে নিয়ে যাচ্ছেন।

সেপ্টেম্বর ২৭
০৭:৪৮ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

নগরীর পুরাতন বইয়ের বাজার, কেমন আছেন দোকানীরা?

নগরীর পুরাতন বইয়ের বাজার, কেমন আছেন দোকানীরা?

আবু সাঈদ রনি: সোনাদীঘি মসজিদের কোল ঘেষে গড়ে উঠেছে রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী পুরাতন বইয়ের দোকান। নিম্নবিত্ত ও অস্বচ্ছল শিক্ষার্থীদের একমাত্র আশ্রয়স্থল এই পুরাতন লাইব্রেরী। মধ্যবিত্তরা যে যায় না ঠিক তেমনটিও না। কি নেই এই লাইব্রেরীতে? একাডেমিক, এডমিশন, জব প্রিপারেশনসহ সব ধরনের বই রাখা আছে সারি সারি সাজানো। নতুন বইয়ের দোকানের সন্নিকটে

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

চাকুরির নিয়োগ দিচ্ছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

চাকুরির নিয়োগ দিচ্ছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

সানশাইন ডেস্ক : রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন পদে জনবল নিয়োগ দেয়া হবে। রাবির নিজস্ব ওয়েবসাইটে এই নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। পদের নাম: কম্পিউটার অপারেটর পদ সংখ্যা: ০১ টি। বেতন: ১২৫০০-৩০২৩০ টাকা। পদের নাম: মেডিক্যাল টেকনােলজিস্ট (ফিজিওখেরাপি) পদ সংখ্যা: ০২ টি। বেতন: ১২৫০০-৩০২৩০ টাকা। পদের নাম: মেডিক্যাল টেকনােলজিস্ট (ডেন্টাল) পদ সংখ্যা:

বিস্তারিত