Daily Sunshine

পেঁয়াজসহ উর্ধ্বমূখী কাঁচাপণ্যের দাম

Share

স্টাফ রিপোর্টার : সোমবার (১৪ সেপ্টেম্বর) হঠাৎ ভারত থেকে পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করার পর আবারো দেশজুড়ে বেড়েছে পেঁয়াজের দাম। এরই ধারাবাহিকতায় রাজশাহীর বাজারেও বেড়ে চলেছে পেঁয়াজসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম। সপ্তাহের ব্যবধানে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা। এছাড়াও চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে নতুন সবজি।
নগরীর সাহেববাজার কাঁচাবাজারে গিয়ে দেখা যায়, দেশি পেঁয়াজ ৮০ থেকে ৯০ টাকা এবং ভারতীয় পেঁয়াজ ৭০ থেকে ৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়াও মরিচ বিক্রি হয়েছে ১৫০-১৬০ টাকা কেজি দরে।
এদিকে, দাম বেড়ে আলু ৩৫-৪০ টাকা, পটল ৩০-৩৫ টাকা, করলা ও ঢেড়স ৫০ থেকে ৬০ টাকা ও বরবটি ৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হয়েছে। অন্যদিকে, বাজারে আসা নতুন সবজির প্রতিটি ১০০ টাকার বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। নতুন সবজির মধ্যে ফুলকপি ১০০-১২০ টাকা, বাধাকপি প্রতিপিস ৩০ টাকা ও সিম ১৬০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে।
এছাড়া বেগুন ও পটল কেজি প্রতি ৫ থেকে ১০টাকা হ্রাস পেয়ে বিক্রি হয়েছে ৫০ ও ৩৫ টাকায়। আদা রসুন পূর্বের মতোই জাতভেদে ১০০ থেকে ১৪০ টাকায় পাওয়া গেছে। ১৫ দিন পূর্ভে ২৪০ টাকা কেজিতে বিক্রি হওয়া কাঁচামরিচের দাম ছিল ১৫০-১৬০ টাকা।
বাজারে প্রায় অপরিবর্তিত রয়েছে মাছের দাম। বড় ইলিশ মাছ ৯০০ টাকা, ছোট ৬০০ টাকা, রুই ২৫০ টাকা, বাটা ২৪০ টাকা, পাবদা ৪০০ টাকা, সিলভার ১৩০ টাকা, কাতলা ২৫০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। শুধুমাত্র চিংড়ি কেজিতে ১০০ টাকা বেড়ে ৮০০ টাকায় বিক্রি হয়েছে। এছাড়াও মোটামুটি অপরিবর্তিত রয়েছে অন্যান্য মাছের দাম।
চালের বাজারে স্বর্ণা ৪৮ টাকা, ৫০ আটাশ, মিনিকেট ৫৫ টাকা, নাজিরশাইল ৬০ টাকা, বাসমতি ৬৫ টাকা ও আতপ ৮০ টাকা কেজিতে বিক্রি হয়েছে। তবে স্থানীয় কাটারিভোগ কেজিতে ৩ টাকা কমে ৫২ টাকায় বিক্রি হয়েছে।
চাল বিক্রেতা মোজাফফর হোসেন বলেন, এখন যে কাটারিভোগ দেখছেন এসব আশপাশ থেকে সংগ্রহ করা। দিনাজপুরের বিখ্যাত কাটারিভোগ চেষ্টা করেও পাওয়া যাচ্ছে না।
মাংসের মধ্যে গরুর মাংস কেজি প্রতি ২০-৩০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে ৫৫০টাকায় বিক্রি হলেও খাসির মাংস বিক্রি হয়েছে ৭২০ টাকায়। এছাড়া সব রকমের মুরগিই কেজি প্রতি ১০ থেকে ২০ টাকা বেশি দামে বিক্রি হয়েছে। ব্রয়লার ১২৫-১৩০ টাকা, দেশি মুরগি ৩৬০ টাকা, সোনালি ২০০ টাকা, লেয়ার জাতভেদে ২০০ টাকা ও ২৩০টাকা কেজিতে বিক্রি হয়েছে।
ডিম পূর্বের মতোই সাদা, লাল ও হাঁসের যথাক্রমে ৩২ টাকা, ৩৪ টাকা ও ৪৫ টাকায় পাওয়া গেছে। পাশাপাশি রাজহাঁসের দাম কেজিতে ৫০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে ৩৫০ টাকায় বিক্রি হলেও পাতিহাঁস পাওয়া গেছে আগের চেয়ে ১০টাকা বেশিতে ২৬০ টাকায়।
এদিকে, পেঁয়াজের দাম বাড়া প্রসঙ্গে ব্যবসায়ীরা বলছেন, আমরা ৭৫ টাকা দরে পেঁয়াজ কিনছি। কিন্তু প্রশাসনের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে ৬০ টাকা দরে বিক্রি করতে। এভাবে আমরা ব্যবসায়ীরা কিভাবে চলবো? এভাবে ব্যবসা করলে অনেক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা ব্যবসা করতে পারবেন না বলে মন্তব্য করেন তারা।
গেল বছরের সেপ্টেম্বরে আচমকা পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ ঘোষণা করেছিল ভারত। এবারও একই ঘটনা ঘটেছে। ভারতের রপ্তানি বন্ধের ঘোষণার পর বেসামাল হয়ে উঠেছে রাজশাহীর পেঁয়াজের বাজার।
সাহেববাজার কাঁচাবাজারের বিক্রেতা মুঞ্জুর হোসেন বলেন, , আমরা উপজেলার বিভিন্ন হাট থেকে ৩৬০০ টাকা মণ পেঁয়াজ কিনেছি। গত হাটে কিনেছিলাম ২০০০-২২০০ টাকা মণ। হঠাৎ দাম বাড়ায় বেশি দিয়ে কিনতে হচ্ছে। এজন্যই বেশি দামে বিক্রি করতে হচ্ছে।
ক্রেতা নাহিদ হোসাইন বলেন, কর্তৃপক্ষের সুষ্ঠু বাজার মনিটরিং না থাকার কারণেই একের পরে এক খাদ্যদ্রব্যের দাম বৃদ্ধি পাচ্ছে।

সেপ্টেম্বর ১৯
০৬:০৫ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

কোয়ারেন্টিন ব্যর্থতায় আসতে পারে ভয়াবহ বিপদ

কোয়ারেন্টিন ব্যর্থতায় আসতে পারে ভয়াবহ বিপদ

সানশাইন ডেস্ক :  দেশে আশঙ্কাজনক হারে কোয়ারেন্টিনে থাকা মানুষের সংখ্যা কমছে। এদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, কোয়ারেন্টিন ব্যর্থতার কারণে আক্রান্ত বাড়ছে। আর পুরো বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও মানুষকে কোয়ারেন্টিন না করতে পারার ব্যর্থতাকে ‘অ্যালার্মিং’ বলে মন্তব্য করেছেন বিশেষজ্ঞরা। তারা বলছেন, এমনিতেই সামনে শীতের মৌসুম। এ সময় রোগী বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যদি

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

প্রথম শ্রেণিতে নিয়োগ পাচ্ছেন ৫৪১ জন ননক্যাডার

প্রথম শ্রেণিতে নিয়োগ পাচ্ছেন ৫৪১ জন ননক্যাডার

|সানশাইন ডেস্ক: ৩৮তম বিসিএস পরীক্ষার নন-ক্যাডার থেকে প্রথম শ্রেণির বিভিন্ন পদে ৫৪১ জনকে নিয়োগের জন্য সুপারিশ করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২০ অক্টোবর) সরকারি কর্ম কমিশন (পিএসসি) থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ৩৮তম বিসিএসের নন-ক্যাডার থেকে প্রথম শ্রেণির (৯ম গ্রেড) বিভিন্ন পদে নিয়োগের জন্য সুপারিশ করা

বিস্তারিত