Daily Sunshine

ভবানীগঞ্জ পোস্ট অফিস চত্বর এখন ভাগাড়

Share

মাহফুজুর রহমান প্রিন্স, বাগমারা: দেখে বুঝার উপায় নেই এটি উপজেলা হেডকোয়ার্টার ভবানীগঞ্জের প্রধান পোস্ট অফিস কার্যালয় কিংবা অফিস চত্বর। দীর্ঘদিন ধরে ঝোপ-জঙ্গল না কাটা, পরিস্কার পরিচ্ছন্ন না রাখায় এ চত্বর এখন ভাগাড়ে পরিনত হয়েছে। যে যেমন পারছে এখানে এনে ময়লা আবর্জনা ফেলে যাচ্ছে। সময়ে অসময়ে সেখানে আখড়া বসে মাদক সেবনের, অপরাধীদের নিরাপদ আশ্রয়স্থল আশপাশের ওই এলাকা। বাজারের ওই এলাকার বিভিন্ন দোকানপাট ও আশেপাশের বাসা বাড়িতে প্রায়ই ঘটছে চুরি-চামারির ঘটনা। অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছে পোস্ট অফিস এলাকার বাসিন্দারা।
এলাকাবাসী ও পোস্ট অফিসের কর্মকর্তা ও কর্মচারির সূত্রে জানা গেছে, নব্বয়ের দশকে প্রেসিডেন্ট এরশাদের আমলে উপজেলা সদরের এ প্রধান পোস্ট অফিসটি নির্মাণ করা হয়। মির্মাণের পর দীর্ঘ প্রায় তিন দশক অতিবাহিত হলেও জরাজীর্ণ ভবনের সংস্কার হয়নি। ঝুঁকি নিয়ে কাজ করতে হয় অফিসের কর্মচারীদের। অফিসের আসবাবপত্র একেবারে পুরানো। অনেক চেয়ার টেবিল ভেঙ্গে গেছে। জানালার কাঁচ খানিকটা খুলে পড়েছে। টয়লেটেরর অবস্থা তো আরো নাজুক।
সেখানে দুর্গন্ধের ভেতরে প্রবেশ করা মুশকিল। সিলিং ফ্যানগুলোর ঘুরার ক্ষমতা নেই বললেই চলে। ছাদের পেলেস্তার খুলে পড়ে। অনেক সময় আহত হয় পোস্ট অফিসে আগত গ্রাহক ও অফিসের কর্মচারীরা। বিষয়টি উদ্বোর্তন কর্তৃপক্ষকে বার বার লিখিতভাবে জানিয়েও কাজের কাজ কিছু হয় না। এ নিয়ে পোস্ট মাস্টার ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সমস্যার কথা লিখতে লিখতে হাত ব্যথা হয়ে গেলেও সমাধানের আশ্বাস নেই।
এতে গেল অফিসের ভিতরের করুন দশা। বাইরে চত্বরের অবস্থা আরো করুণ। চারিদিকে ঝোপ-জঙ্গল, মাঝখানে একটি ডোবা। কচুরীপানায় ভরা ডোবাটি। বাজারের বিভিন্ন হোটেল রেস্তোরার ময়লা আবর্জনা এসে পড়ছে সেই ডোবায়।
স্থানীয়রা জানান, ঝোপ-জঙ্গলে ভরা এ চত্বর এখন ভাঘাড়ে পরিনত হয়েছে। দিনে দুপুরের চব্বিশ ঘণ্টাই এ ভাগাড়ের আনাচে কানাচে বসছে মাদকসেবীদের আড্ডা। চুরির ঘটনাও ঘটছে অহরহ। বিষয়টি যেন দেখার কেউ নেই। সম্প্রতি এ পোস্ট অফিস সংলগ্ন শওকত আলীর সিগারেট ও কসমেট্রিকসের দোকানে রাতের বেলা কলাপসিবল দরজার তালা কেটে চোরেরা ভিতরে প্রবেশ করে পাঁচ লক্ষাধীক টাকার দামী ব্রান্ডের সিগারেটসহ বিভিন্ন মালামাল নিয়ে যায়।
এর আগে চোরেরা একই কায়দায় কলেজ রোডের মেসার্স সাসাদ ট্রেডার্সের তালা কেটে এবং তার আগে আফসার প্লাজায় তালা কেটে নগত টাকা, ল্যাপটপ কম্পিউটার সহ দশ লক্ষাধীক টাকার মালামাল নিয়ে যায়। এসব চুরির ঘটনায় কোন কুলকিনারা হয়না। পুলিশকে অভিযোগ দিলে উল্টো দোকান মালিককেই টাকা খরচ করতে হয় এবং হয়রানীর শিকার হতে হয়। ফলে ক্ষতিগ্রস্থ দোকান মালিকরা আর পুলিশকে অভিযোগ দিতেও ভরসা পায় না।
উপায় অন্তর না পেয়ে ভুক্তভোগি ব্যবসায়ী মহল ও সাধারণ লোজজনেরা বিষয়টি নিয়ে ভবানীগঞ্জ পৌর মেয়রকে অবহিত করলে তিনিও ব্যবসায়ীদের পাশে দাড়াতে অনীহা প্রকাশ করেন।
ব্যবসায়ীরা জানান, বাজারে চুরির ঘটনা বৃদ্ধি পাওয়ায় আমরা মেয়রকে বিষয়টি জানিয়েছি। তিনি স্ট্রিট লাইট বৃদ্ধি করে দেবেন বলে জানিয়েছেন। এছাড়া আর কোন ব্যবস্থা নিতে পারবেন না বলে জানিয়েছেন।
ব্যবসায়ীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, শুধু স্ট্রিট লাইট বৃদ্ধি করলেই বাজারে চুরি বন্ধ হবে না। এ জন্য পাহারাদার বৃদ্ধি করতে হবে সেই সাথে সিসি ক্যামেরা লাগাতে পারলে চুরির প্রবনতা অনেকটা রোধ করা যাবে বলে মনে করেন ব্যবসায়ীরা। চুরির শিকার ব্যবসায়ীরা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, বাজারে বাজারে বনিক সমিতি রয়েছে। আমরা সেখানে নিয়মিত চাদা দিই। তারপর বাজারে চুরির ঘটনা বন্ধ হচ্ছে না। স্থানীয়দের অভিযোগ বাজারে পোষ্ট অফিস চত্তর, উপজেলা পরিষদের পূর্বদিকের চত্বর, ভাঙ্গা ব্রীজ পুকুর পাড় চত্তর, ভবানীগঞ্জ সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের দক্ষিন দিক পুকুর পাড়ের জঙ্গল সহ বেশ কিছু জায়গায় নিয়মিত বসে মাদকসেবীদের আড্ডা। এসব আড্ডাবাজির কারণেই বাজারে প্রতিনিয়ত চুরির ঘটনা ঘটছে।
স্থানীয়রা জানান, শুধু দোকানের তালা ভেঙ্গেই ক্ষান্ত হচ্ছেনা চোরের দল। তারা দিনে দুপুরের অভিনব কায়দায় চুরি করে নিয়ে যাচ্ছে মোটরসাইকেল। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে ভবানীগঞ্জ বাজার ও এর আশেপাশের এলাকা থেকে ৪টি মোটর সাইকেল চুরি গেলেও এর একটিও উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।
বাগমারা থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি আতাউর রহমান জানান, এসব বিষয়ে অনুসন্ধান চলছে। অপরাধ বাড়তে দেওয়া হবে না।

সেপ্টেম্বর ১৪
০৬:৩৮ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

ডিগ্রী থাকলেও মিলছেনা যোগ্য চাকরি

ডিগ্রী থাকলেও মিলছেনা যোগ্য চাকরি

শাহ্জাদা মিলন: বাংলাদেশের অন্যতম বিভাগীয় শহর রাজশাহী। সিল্কসিটি, আমের রাজধানী হিসেবে পরিচিত সারা দেশে রাজশাহী। তবে এসব পরিচয় ছাপিয়ে রাজশাহী ‘শিক্ষা নগরী’ হিসেবে সবচেয়ে বেশি পরিচিত। অসংখ্য নামিদামি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে এখানে। এর সুফলে রাজশাহীতে বছর বছর বাড়তে ডিগ্রিধারী মানুষের সংখ্যা। তবে সেই অনুপাতে বাড়ছে না কর্মসংস্থান। রাজশাহীতে রয়েছে রাজশাহী

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সানশাইন ডেস্ক : করোনা মহামারিতে সাধারণ ছুটিতে স্বাভাবিক জীবনযাত্রার সঙ্গে স্থগিত ছিল সরকারি-বেসরকারি চাকরির নিয়োগ প্রক্রিয়া। এ কয়েক মাসে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পায়নি দেশের শিক্ষিত বেকার জনগোষ্ঠী। অংশ নিতে পারেনি কোনো নিয়োগ পরীক্ষাতেও। অনেকেরই বয়স পেরিয়ে গেছে ৩০ বছর। স্বাভাবিকভাবেই সরকারি চাকরির আবেদনে সুযোগ শেষ হয়ে যায় তাদের। তবে এ দুর্যোগকালীন

বিস্তারিত