Daily Sunshine

বাগমারায় জমি বিক্রি করে রেজিস্ট্রি না দেওয়ার অভিযোগ, উল্টো মামলা

Share

স্টাফ রিপোর্টার, বাগমারা: উপজেলার বড়বিহানালী ইউনিয়নে জমি রেজিস্ট্রি করে দেওয়ার নাম করে টাকা নিয়ে প্রতারণা করার অভিযোগ উঠেছে জহুরুল নামে ব্যক্তির বিরুদ্ধে। জমির পুরো টাকা নিয়ে এখন রেজিস্ট্রি না দিয়ে তিনি টালবাহানা করে যাচ্ছেন। টাকা আত্মসাতের চেষ্টাও করে যাচ্ছেন তিনি। মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর হুমকিও দিচ্ছেন তিনি।
ফলে নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছেন জমির বায়নাসূত্রে ক্রেতা বড়বিহানালী ইউপির বাগান্না গ্রামের মাহাতাবের পুত্র মাহমুদুল হাসান ডেভিড (২৫)। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় মাতব্বরা নিম্পত্তির চেষ্টা করলেও প্রতারক একই গ্রামের জহুরুল ইসলাম তা অমান্য করে থানায় মিথ্যা মামলা সাজানোর পায়তারা করছে।
স্থানীয় গ্রামবাসী ও অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, বড়বিহানালী ইউনিয়নের বাগান্না গ্রামের মাহাতাবের পুত্র মাহমুদুল হাসান ডেভিড বিগত ২০১৭ সালের দিকে একই গ্রামের সজিমুদ্দিনের পুত্র জহুরুলের কাছে তার বাড়ি সংলগ্ন পাহাড়পুর মৌজার ৭৪২ দাগের ১.২৫ শতক ধানী জমি ক্রয় করার জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়।
এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে জমিটির মূল্য নির্ধারণ বিষয়ে একমত হলে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে মাহমুদুল হাসান ডেভিট তিন দফায় জহুরুলকে ২২ হাজার টাকা প্রদান করে। জমিটি জহুরুলের পৈত্রিক সূত্রের হওয়ায় এবং সেটির খারিজ না থাকায় পরে জহুরুল জমিটি খারিজ করার জন্য মাহমুদুল হাসান ডেভিটকে জমিটি খারিজ করার জন্য জমিটির দলিলসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র প্রদান করে।
ওইসব কাগজপত্র নিয়ে ডেভিট জমিটি জহুরুলের নামে খারিজ করে দেয় এবং শর্তমতো জমিটি তার নামে রেজিস্ট্রি করার জন্য তাগাদা দেয়। এতেই দেখা দিয়ে বিপত্তি। জমিটি জহুরুল ডেভিটকে রেজিস্ট্রি করে আজ দিব কাল দিব বলে কালক্ষেপণ করতে থাকে। এরি মাঝে গত বুধবার ডেভিট একই গ্রামের প্রাক্তন শিক্ষক সেকেন্দার আলী, কৃষক আমজাদ হোসেন, রফিকুল ইসলামসহ আরো গণ্যমান্য ৫-৬ জন মিলে জহুরুলের বাড়িতে যায় এবং জমিটি রেজিস্ট্রি করে দেওয়ার অনুরোধ জানায়।
এখানেও টালবাহানা শুরু করে জহুরুল। এ নিয়ে ডেভিট ও জহুরুলের মধ্যে বাকবিতণ্ডা লেগে গেলে গ্রামবাসীরা বিষয়টি মুঠোফোনে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিমকে অবহিত করেন। তিনি উভয়ের সাথে কথা বলে বিষয়টি মিমাংসা করে দেওয়ার আশ্বাস দিলে ডেভিট গ্রামবাসীসহ ফিরে আসে।
পরদিন ডেভিট জানতে পারে জহুরুল তাকে জমি রেজিস্ট্রি করে না দিতে এমনকি টাকাও ফেরত না দিতে ষড়য়ন্ত্রমূলক ভাবে ডেভিট তার পিতা ও তার চাচার নামে বাগমারা থানায় একটি মিথ্যা অভিযোগ দায়ের করেছে। এতে জহুরুল তার স্ত্রীর শ্লীলতাহানীরও কাল্পনিক অভিযোগ করেছে পুলিশের কাছে।
এ বিষয়ে প্রাক্তন শিক্ষক সেকেন্দার আলীসহ গ্রামের একাধিক প্রবীন ব্যক্তিরা জানান, ওইদিন জহুরুলের স্ত্রীকে শ্লীলতাহানীর কোন ঘটনাই ঘটেনি। জহুরুল টাকাগুলো আত্মসাত করার জন্যই স্ত্রীকে দিয়ে মিথ্যা মামলার পাঁয়তারা করছে। তারা জহুরুলের ভগ্নিপতি আসাদুলও এ টাকা নেওয়ার বিষয়টি অবহিত বলে দাবী করেন।
এ বিষয়ে আসাদুল বলেন, বিশ হাজার টাকায় জমিটি বিক্রি করতে জহুরুল প্রথমে রাজি হলেও পরে আরো দুই হাজার টাকা বেশি নেয়। তার পর সে জমিটি রেজিস্ট্রি করে দিতে টালবাহানা করেছে আরো বেশি টাকা নিবে বলে। এ নিয়ে তার স্ত্রীকে শ্লীলতাহানীর কোন ঘটনাই ঘটেনি।
ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক রেজাউল করিম রেজা জানান, অনেকদিন হলো জহুরুল টাকা নিয়েছে। এখন সে জমি রেজিস্ট্রি করে দিবে না। বিষয়টি নিয়ে উভয়কে নিয়ে বসার কথা হয়েছে। তার আগে ডেভিটসহ তার বাপ চাচার নামে নারী নির্যাতনের অভিযোগ হওয়ার বিষয়টি রহস্যজনক।
জহুরুল জমিটি বিক্রির কথা স্বীকার করে বলেন, আমার সাথে তাদের বিশ হাজার টাকা দাম মিটেছে আমি মাত্র তের হাজার টাকা হাতে পেয়েছি। বাকি টাকা পেলে জমিটি রেজিস্ট্রি করে দিব। টাকা পেলে জমি রেজিস্ট্রি করে দিবেন তবে কেন তাদের নামে নিজের স্ত্রীর শ্লীলতাহানী করেছে বলে অভিযোগ দিতে গেলেন এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি কোন সদুত্তোর দেননি।
বাগমারা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আতাউর রহমান জানান, কোন কিছু হলেই নারী নির্যাতনের মামলা দিবে আর পুলিশ সেটাই নিবে বিষয়টি এমনটি হয়না। কী ঘটেছে না ঘটেছে বিষয়টি খতিয়ে দেখে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সেপ্টেম্বর ১২
০৫:৫৪ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

সাহস সংগ্রাম নেতৃত্বে অবিচল

সাহস সংগ্রাম নেতৃত্বে অবিচল

সানশাইন ডেস্ক : মহামারি কোভিড-১৯ এর ধাক্কায় দুমড়ে-মুচড়ে যাচ্ছে বিশ্বব্যবস্থা। বৈশ্বিক এ মহামারির নিদারুণ প্রভাব পড়েছে বাংলাদেশেও। অথচ এমন ঘোর অমানিশার মাঝেও আশার প্রদীপ জ্বালিয়ে রেখেছেন তিনি। তিনি-ই সম্প্রতি রিজার্ভ ও রেমিট্যান্সে রেকর্ড গড়ার খবর দিয়েছেন। বিশ্লেষকরা মনে করেন, মহামারিকালে জরুরি ভিত্তিতে প্রায় এক লাখ কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

অস্ত্র মামলায় সাহেদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

অস্ত্র মামলায় সাহেদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

সানশাইন ডেস্ক : রিজেন্ট গ্রুপ ও রিজেন্ট হাসপাতাল লিমিটেডের চেয়ারম্যান সাহেদ করিম ওরফে মোহাম্মদ সাহেদের বিরুদ্ধে অস্ত্র আইনে করা একটি মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের আদেশ দিয়েছেন আদালত। সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর) ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কে এম ইমরুল কায়েশ এ রায় ঘোষণা করেন। রায় ঘোষণার আগে সাহেদকে কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা

বিস্তারিত