Daily Sunshine

শিবগঞ্জে আটকে দুহাজার ভারতীয়, ফেরার আকুতি

Share

স্টাফ রিপোর্টার, শিবগঞ্জ: ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মালদা জেলার কালিয়াচক থানার গোলাপগঞ্জ এলাকার সমেনা বিবি। তিনি খালার মৃত্যুর খবর পেয়ে গত ৭মার্চ এসেছিলেন বাংলাদেশের চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার শিবগঞ্জ উপজেলার কানসাটে। আসার পর সোনামসজিদ ইমিগ্রেশন বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আর ফিরতে পারেননি।
করোনা ভাইরাস সংক্রমণের পরিস্থিতিতে দুই দেশের সীমান্ত পারাপার বন্ধ হয়ে যাওয়ায় নিজ দেশে স্বামী ও সন্তানদের কাছে ফিরতে পারেননি তিনি।
অশ্রুসিক্ত চোখে সমেনা বিবি জানান, ৩ ছেলে-মেয়েকে রেখে এসেছি। সংসার ভাঙ্গার উপক্রম, স্বামী ফেরার জন্য বার বার তাগাদা দেয়ায় প্রায়ই তিনি সোনামসজিদ স্থলবন্দরে খোঁজ নিতে যান। ইমিগ্রেশন চালু হলেই তিনি ফিরতে চান। তার প্রশ্ন পণ্যবাহী যান চলাচল করলেও তাদের কেন ভারতীয় ইমিগ্রেশন নিচ্ছেনা।
শুধু সমেনা বিবিই নয়, তার মতো প্রায় ২ হাজার ভারতীয় নাগরিক চাঁপাইনবাবগঞ্জে আটকে আছে। প্রতিদিনই এসব আটকে পড়ারা সোনামসজিদ স্থলবন্দরের ইমিগ্রেশন অফিসের সামনে এসে নিজ দেশে ফেরার অপেক্ষার প্রহর গুনছে এসব ভারতীয় নাগরিক।
অন্যদিকে মালদার বোস্টমনগর থানার গুলজারনগর গ্রামের আটকে পড়া আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ভোলাহাটে আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে এসে আটকে পড়েছি। উপজেলা নির্বাহী অফিসার আমাদের জানিয়েছিলেন ৩১ জুন সীমান্ত খুলবে, তবে এখনও খুলেনি।
তিনি আরও জানান, ভিসার মেয়াদও শেষ হয়ে গেছে অনেক আগেই। বউ-বাচ্চা ছাড়াই একটা ঈদ করেছি, আরেকটা ঈদ চলে আসলো। ঢাকা-কলকাতাগামী চাটার্ড বিমানের টিকিটও নিয়েছিলাম, সেটাও বাতিল হয়েছে যেতে পারছি না।
বৃহষ্পতিবার বেলা ১২ টার দিকে অন্তত ১৫-২০ জনকে সোনামসজিদ ইমিগ্রেশন সেন্টারে ধরনা দিতে দেখা গেছে। আটকেপড়াদের চোখে মুখে লক্ষ্য করা গেছে অজানা শঙ্কা। যেকোন মূল্যে যাবার জন্য মরিয়া এসব আটকেপড়ারা।
এ বিষয়ে সোনামসজিদ ইমিগ্রেশন অফিসার (উপপরিদর্শক) জাফর ইকবাল জানান, বাংলাদেশের পক্ষ থেকে কোন বাধা না থাকলেও ভারতীয় ইমিগ্রেশন সেন্টার চালু না হওয়ায় আটকে পড়াদের পাঠানো সম্ভব হচ্ছে না। আর ইমিগ্রেশন কখন চালু হবে তাও তিনি নিশ্চিত করে বলতে পারেননি। তবে মাঝে মাঝে আটকে পড়া ভারতীয় যাত্রী বা যাত্রীদের আত্মীয়স্বজন অফিসে এসে খোঁজখবর নিচ্ছেন বলে তিনি জানান।
অন্যদিকে শিবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার সাকিব আল-রাব্বি বলেন, ঠিক কখন ইমিগ্রেশন চালু হবে, সেটির অফিসিয়াল চিঠি বা নির্দেশনা পাওয়া যায়নি।

জুলাই ১০
০৫:৫৪ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

রাজশাহীর রেশম শিল্পেও করোনার থাবা

রাজশাহীর রেশম শিল্পেও করোনার থাবা

স্টাফ রিপোর্টার : চলমান করনোকালে চরম অস্তিত্ব সংকটে রাজশাহীর রেশম শিল্প। বিশ্বব্যাপী মহামারী করোনা ভাইরাসের কারণে ধুঁকে ধুঁকে চলা এ শিল্পখাত আরো অস্তিত্ব সংকটে পড়েছে। করোনা ভাইরাসের কারণে গত দুই মাসের লকডাউনে কোটি কোটি টাকার লোকসানে পড়েছে সিল্কের তৈরি পোশাকখাত। এখন সিল্কের তৈরি পোশাকের শো-রুম খোলা থাকলেও বেচাবিক্রি নেমে এসেছে

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

সরকারি চাকরিতে আরও বেড়েছে ফাঁকা পদ

সরকারি চাকরিতে আরও বেড়েছে ফাঁকা পদ

সানশাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাস মহামারীর মধ্যে সরকারি চাকরির বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ না হওয়ায় বেড়েছে চাকরিপ্রার্থীর সংখ্যা, সঙ্গে ফাঁকা পদের সংখ্যাও বাড়ছে। সরকারি চাকরিতে এখন তিন লাখ ৮৭ হাজার ৩৩৮টি পদ ফাঁকা পড়ে আছে, যা মোট পদের ২১ দশমিক ২৭ শতাংশ। জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলছেন, অগাস্ট মাসে কোভিড-১৯ সংক্রমণ কমে আসবে

বিস্তারিত