Daily Sunshine

কপাল পুড়ল আমির-ওয়াহাব-হাসান আলীর

Share

স্পোর্টস ডেস্ক: দল থেকে বাদ পড়েছেন অনেক আগেই। এবার বোর্ডের কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকেও বাদ পড়লেন পাকিস্তানের পেস বোলিং ত্রয়ী। তাদের পরিবর্তে কেন্দ্রীয় চুক্তিতে এসেছেন তিন পেসার।
সীমিত পরিসরের ক্যারিয়ার লম্বা করতে টেস্ট ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছেন মোহাম্মদ আমির। তাঁর দেখানো পথে হেঁটে সাদা পোশাকের ক্রিকেট থেকে অনির্দিষ্টকালের ছুটিতে ওয়াহাব রিয়াজ। দুই পেসারের ‘আকস্মিক বিদায়ে’ হোঁচট খায় পাকিস্তান ক্রিকেট। ২০১৯ বিশ্বকাপের পর তাদের জানিয়ে দেওয়া হয়, অটোমেটিক চয়েজ হিসেবে আর বিবেচিত হবেন না। এরপর তাদের আর খেলায়নি পাকিস্তান। এবার দুই পেসারকে কেন্দ্রীয় চুক্তি থেকে বাদ দিয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড।
তাদের সাথে আছেন হাসান আলী। ডানহাতি পেসারকে দূর্ভাগা বলতে হবে! ইনজুরির কারণে দল থেকে বাদ পড়ার পর আর ফেরা হয়নি। পরীক্ষিত ও অভিজ্ঞ তিন পেসারকে বাদ দিয়ে নতুন করে তিনজনকে চুক্তিতে এনেছে পিসিবি। তারা হলেন নাসিম শাহ, মোহাম্মদ হাসনাইন ও হারিস রউফ। বুধবার পিসিবি ২০২০-২১ মৌসুমের কেন্দ্রীয় চুক্তির তালিকা প্রকাশ করেছে।
এ, বি, সি-র সঙ্গে এবার নতুন করে ইমার্জিং নামে একটি গ্রেড বাড়ানো হয়েছে। এ গ্রেডে বাবর আজমের সঙ্গে নতুন করে যুক্ত হয়েছেন আজহার আলী ও শাহীন শাহ আফ্রিদি। মাসিক ১১ লাখ পাকিস্তানি রুপি বেতন পাবেন তাঁরা। এ গ্রেড থেকে বি গ্রেডে নামিয়ে দেওয়া হয়েছে পাকিস্তানের প্রাক্তন অধিনায়ক সরফরাজ আহমেদকে। তাঁর সঙ্গে আছেন ইয়াসির শাহও। মাসিক ৭ লাখ ৫০ হাজার পাকিস্তানি রুপি বেতন পাবেন এ দুজন। নতুন করে যুক্ত হওয়া ইফতেকার আহমেদ ও নাসিম শাহ রয়েছেন সি গ্রেডে। তাদের বেতন ৫ লাখ ৫০ হাজার রুপি। এছাড়া ইমার্জিং গ্রেডে হারিস রউফ ও হাসনাইনের সঙ্গে রয়েছেন হায়দার আলী।

মে ১৪
০২:২৯ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

আঁকাআঁকি থেকেই তন্বীর ‘রংরাজত্ব’

আঁকাআঁকি থেকেই তন্বীর ‘রংরাজত্ব’

আসাদুজ্জামান নূর : ছোটবেলা থেকেই আঁকাআঁকির প্রতি নেশা ছিল জুবাইদা খাতুন তন্বীর। ক্লাসের ফাঁকে, মন খারাপ থাকলে বা বোরিং লাগলে ছবি আঁকতেন তিনি। কারও ঘরের ওয়ালমেট, পরনের বাহারি পোশাক ইত্যাদি দেখেই এঁকে ফেলতেন হুবহু। এই আঁকাআঁকির প্রতিভাকে কাজে লাগিয়েই হয়েছেন ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা। তুলির খোঁচায় পরিধেয় পোশাকে বাহারি নকশা, ছবি, ফুল

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

জোরালো হচ্ছে সরকারি চাকরিতে ‘বয়সসীমা’ বাড়ানোর দাবি

জোরালো হচ্ছে সরকারি চাকরিতে ‘বয়সসীমা’ বাড়ানোর দাবি

সানশাইন ডেস্ক : সর্বশেষ ১৯৯১ সালে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানো হয়। এরপর অবসরের বয়স বাড়ানো হলেও প্রবেশের বয়স আর বাড়েনি। বেকারত্ব বেড়ে যাওয়া, সেশনজট, নিয়োগের ক্ষেত্রে দীর্ঘসূত্রতা, অন্যান্য দেশের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে চাকরিতে প্রবেশের সর্বোচ্চ বয়স বাড়ানোর দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রার্থীরা। তবে এ বিষয়ে উদ্যোগ নেয়নি

বিস্তারিত