Daily Sunshine

যুদ্ধ জয়ের চেষ্টায় তিন চ্যালেঞ্জ

Share

দেশে করোনা পরিস্থিতি
যদি এক কথায় বলা হয় তাহলে বিষয়টা এমন দাঁড়াবে যে, সরকার করোনা পরিস্থিতি একলাই মোকাবেলা করছে। এই পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকারের সামনে চ্যালেঞ্জ তিনটি। যার একটি সর্বস্তরের মানুষের স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করা ও দ্বিতীয়টি কর্মহীনদের পাশে দাড়ানো এবং তৃতীয়টি আগামী দিনের অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা। অবশ্য এই চ্যালেঞ্জগুলো করোনা পরিস্থিতি নিয়ে মোকাবেলা করা উন্নত রাষ্ট্রগুলোর সামনেও সমান গুরুত্ব পাচ্ছে। তবে আমাদের মতো নানা সমস্যায় জর্জরিত দেশের সামনে এই চ্যালেঞ্জগুলো পাহাড় সমান।
কথাটা যেভাবেই নেই না কেনো, সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোতে জনবল চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল। বিশেষ করে স্বাস্থ্য ও পুলিশ প্রশাসনে জনবল সংকট চোখে পড়ার মতো। যা নিয়ে বিভিন্ন সময় গণমাধ্যমে সংবাদ প্রচার হয়েছে। যে কোন সংকটময় পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে ক্ষেত্রে আমাদের সামনে যে বিষয়টি বড় হয়ে দাঁড়ায় তা হলো, দেশের সম্পদের তুলনায় জনসংখ্যা আধিক্য।
সীমাবদ্ধতা থাকা সত্বেও বিশ্বমহামারির এ সময়ে সরকার শুরু থেকেই একাই লড়ে আসছে। এমন অবস্থাতে বাইরের কারো সহযোগিতার দিকেও তাকিয়ে নেই বাংলাদেশ। এনজিওগুলোকেও সে ভাবে এগিয়ে আসতে দেখা যায়নি। স্বাস্থ্য বিভাগের স্বল্প জনবল ও সম্পদ নিয়েই এই যুদ্ধে নেমেছে সরকার। আড়াই মাসের মাথায় দেশের বিভিন্ন বিভাগে বর্তমানে প্রায় ৪০টি করোনা পরীক্ষা ল্যাবে সন্দেহভাজনদের নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। এখন সরকার পরিকল্পনা করছে প্রতিটি জেলায় অন্তত একটি করে করোনা পরীক্ষা ল্যাব স্থাপনের। স্বল্প জনবল ও সম্পদ ব্যবহার করে সরকার তার সর্বোচ্চ সেবাটুকু নিশ্চিতের প্রয়াস করে চলেছে। আর এই ল্যাবগুলোতে সম্পূর্ণ বিনা মূল্যে দেশের সকল পর্যায়ের মানুষের নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। দেশের এমন ক্রান্তি কালে বেসরকারি খাতের চিকিৎসা সেবা প্রতিষ্ঠানগুলোকে পাশে পায়নি সরকার ও সাধারণ মানুষ। অথচ করোনা পরিস্থিতির আগে পর্যন্ত প্রতিটি মুহূর্তে এই প্রতিষ্ঠানগুলো চিকিৎসার নামে সাধারণ মানুষের কাছ থেকে বিপুল অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছিলো।
দেরিতে হলেও অর্থনৈতিক ক্ষতি জেনেও পুরো দেশকে লকডাউনের মতো গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। অথচ অর্থনীতির ধ্বসের ভয়ে যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়াসহ ইউরোপের অনেক দেশ এই দু:সাহস দেখাতে ভয় পেয়েছে। তারা পিছু হটে এসেছে লকডাউনের সিদ্ধান্ত থেকে। কোন কোন দেশ সিদ্ধান্ত নিলেও পরবর্তিতে অর্থনৈতিক ক্ষতি বিবেচনায় লকডাউন উঠিয়ে দিয়েছে।
দেশে লকডাউনের ফলে কর্মজীবীদের একটা বড় অংশ এখন কর্মহীন। এই মানুষগুলোর পাশে সরকার দ্রুত সময়ের মধ্যে ত্রাণ পৌঁছে দিতে কাজ করেছে। এখনো তা অব্যাহত রয়েছে। যদিও সরকারের মধ্যে ঘাপটি মেরে থাকা একদল হায়েনা এই ত্রাণ নিয়ে দুর্নীতি করে সরকারকে সমালোচনার মুখে ফেলছে। অবশ্য এরই মধ্যে সম্পৃক্তদের চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে শুরু করা হয়েছে।
এতো গেলো বর্তমান চিত্র। তবে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবার পর সরকারের সামনে আসতে চলেছে অর্থনৈতিক চ্যালেঞ্জ। আমরা বিশ্বাস করি সরকার দূরদর্শিতার মাধ্যমে আগামীর সেই চ্যালেঞ্জটুকুও কাটিয়ে উঠবে। আর এর জন্য সরকারের পাশে থাকতে হবে বাংলাদেশের সর্বস্তরের মানুষকে। সমালোচনার করলেও সরকারকে সহযোগীতা থেকে পিছ পা হওয়া যাবে না। কারণ সরকারের সফলতা বা ব্যর্থতার দায়ভার নিতে হবে বাংলাদেশকেই। সরকার জিতলে জিতে যাবে বাংলাদেশ।

মে ১৪
০২:২৬ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

শীতের আমেজে আহা…ভাপা পিঠা

শীতের আমেজে আহা…ভাপা পিঠা

রোজিনা সুলতানা রোজি : প্রকৃতিতে এখন হালকা শীতের আমেজ। এই নাতিশীতোষ্ণ আবহাওয়ায় ভাপা পিঠার স্বাদ নিচ্ছেন সবাই। আর এই উপলক্ষ্যটা কাজে লাগচ্ছেন অনেক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। লোকসমাগম ঘটে এমন মোড়ে ভাপা পিঠার পসরা সাজিয়ে বসে পড়ছেন অনেকেই। ভাসমান এই সকল দোকানে মৃদু কুয়াশাচ্ছন্ন সন্ধ্যায় ভিড় জমাচ্ছেন অনেক পিঠা প্রেমী। রাজশাহীর বিভিন্ন

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

৭ ব্যাংকের সমন্বিত নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত

৭ ব্যাংকের সমন্বিত নিয়োগ পরীক্ষা স্থগিত

সানশাইন ডেস্ক: সাত ব্যাংকের সিনিয়র অফিসার পদের সমন্বিত নিয়োগ পরীক্ষা (২০১৮ সালভিত্তিক) স্থগিত করা হয়েছে। আগামী ৫ ডিসেম্বর রাজধানীর ৬৭টি কেন্দ্রে এ পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। শনিবার (২৮ নভেম্বর) ব্যাংকার্স সিলেকশন কমিটির (বিএসসি) সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। যে সাতটি ব্যাংকের নিয়োগ পরীক্ষার স্থগিত করা হয়েছে সেগুলো হলো হলো—সোনালী

বিস্তারিত