Daily Sunshine

রাজশাহীতে শ্রদ্ধার ফুলে ভরে গেছে শহীদ মিনারের বেদি

Share

নানা কর্মসূচিতে অমর একুশে পালন
স্টাফ রিপোর্টার : শ্রদ্ধার ফুলে ভরে গেছে রাজশাহীর শহীদ মিনারগুলোর বেদি। মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে দিবসের প্রথম প্রহর থেকে শহীদ মিনাগুলোতে ভিড় জমাতে থাকেন জনতা। শুক্রবার সকালে প্রভাতফেরি নিয়ে শহীদ মিনারে গিয়ে ঠেকে জনতার স্রোত। নানা আনুষ্ঠানিকতায় ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানায় রাজশাহীবাসী। একুশের প্রথম প্রহরে রাজশাহী কলেজের শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন রাজশাহী সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এ সময় কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক হবিবুর রহমানসহ অন্যান্য শিক্ষক-শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।
এরপর মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি মেয়র খায়রুজ্জামান লিটনের নেতৃত্বে রাজশাহী কলেজ শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে মহানগর আওয়ামী লীগ। এ সময় মহানগর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি শাহীন আকতার রেনী, সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার ও অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
এখানে আলাদাভাবে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন রাজশাহী মহানগর পুলিশ কমিশনার মো. হুমায়ুন কবীর, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু ও রাজশাহীর সাবেক মেয়র মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল।
রাজশাহী কোর্ট শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার হুমায়ুন কবীর খোন্দকার, জেলা প্রশাসক মো. হামিদুল হক, রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি একেএম হাফিজ আক্তার ও রাজশাহী পুলিশ সুপার (এসপি) মো. শহিদুল্লাহ প্রমুখ।
নগরীর ভুবনমোহন শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়ন। এ সময় বিএফইউজের সহ-সভাপতি মামুন-অর-রশিদ, রাজশাহী সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি কাজী শাহেদ, সহ-সভাপতি শরীফ সুমন, সাধারণ সম্পাদক তানজিমুল হক ও যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক সাইফুর রহমান রকি প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এখানে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি, জাসদ ও বাসদসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করে।
সকালে সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে সব সরকারি-বেসরকারি এবং আধা-সরকারি স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়। এছাড়া যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাব-গাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে শহীদ দিবস ও মাতৃভাষা দিবস উদযাপন করা হয়।
ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে মহানগরীর হেতেম খাঁ মসজিদে ভাষাশহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে বাদ জুমা কোরআনখানি ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।
এছাড়া ভাষাশহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে অন্যান্য ধর্মীয় উপাসনালয়ে বিশেষ প্রার্থনা করা হয়। মহানগরীর সড়ক দ্বীপসমূহ এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ স্থানসমূহে বাংলা বর্ণমালা সংবলিত ফেস্টুন দিয়ে সজ্জিত করা হয়েছে।
সকাল থেকে রাজশাহী শিশু একাডেমিতে স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রীদের চিত্রাঙ্কন, বাংলায় সুন্দর হাতের লেখা, ভাষার গান, দেশাত্মবোধক গান ও রচনা লিখন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। শিল্পকলা একাডেমিতে বিকেলে ভাষা সৈনিকদের সংবর্ধনা, আলোচনা সভা, পুরস্কার বিতরণী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
এছাড়া সন্ধ্যায় গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের উদ্যোগে মহানগরীর আলুপট্টি বঙ্গবন্ধু চত্বর, সাহেব বাজার ও লক্ষ্মীপুরসহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে ভ্রাম্যমাণ চলচ্চিত্র প্রদর্শন করা হয়।
রাজশাহী মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (সদর) গোলাম রুহুল কুদ্দুস জানিয়েছেন, মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়। পুলিশ মোতায়েনের পাশাপাশি র‌্যাব সদস্যরাও টহল দিচ্ছে। এছাড়া গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা সাদা পোশাকে কর্তব্য পালন করেন। প্রথম প্রহর থেকে শুক্রবার দিনভর নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা ছিল রাজশাহী কলেজ শহীদ মিনার, ভুবন মোহন শহীদ মিনার ও কোর্ট শহীদ মিনার এলাকা। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, রুয়েট ছাড়াও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দিবসটি শ্রদ্ধার সঙ্গে পালন করা হয়। উপজেলা পর্যায়েও দিবসটি যথাযথ মার্যাদায় পালন করা হয়।
রাসিক : দিবসের প্রথম প্রহরে ঐতিহাসিক ভূবনমোহন পার্ক শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন রাজশাহী সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ। ২১ ফেব্রুয়ারি দিবসের প্রথম প্রহরে রাত ১২টা ১মিনিটে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন তারা। পুষ্পস্তবক অর্পনের পর শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।
প্রথমে মেয়র ও কাউন্সিলরবৃন্দের পক্ষ থেকে শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পন করা হয়। এরপর কর্মকর্তাবৃন্দ এবং রাসিক কর্মচারী ইউনিয়নের পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পন করা হয়।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন রাসিকের প্যানেল মেয়র-১ ও ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবু, প্যানেল মেয়র-২ ও ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রজব আলী, প্যানেল মেয়র-৩ তাহেরা খাতুন মিলি, ৭নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর মতিউর রহমান, ১৩নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মমিন, ১৪নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আনোয়ার হোসেন, ১৮নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর শহিদুল ইসলাম, ১৯নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর তৌহিদুল হক সুমনসহ অন্যান্য কাউন্সিলরবৃন্দ, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. এবিএম শরীফ উদ্দিন, সচিব আবু হায়াত মোঃ রহমতুল্লাহ, প্রধান প্রকৌশলী আশরাফুল হক, বাজেট কাম হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম খানসহ অন্যান্য কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ।
এরআগে নগর ভবনের সামনে থেকে শোক র‌্যালি বের করা হয়। র‌্যালিটি শহীদ কামারুজ্জামান চত্বর হয়ে নিউ মাকের্ট এর সামনে দিয়ে ভূবনমোহন পার্কে গিয়ে শেষ হয়।
দিবসটিতে আরো ছিল ২১ ফেব্রুয়ারি সূর্যোদয়ের সাথে সাথে নগরভবনসহ ওয়ার্ড কার্যালয় ও সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক নিয়ন্ত্রিত ¯’াপনাসমূহে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতভাবে উত্তোলন, মহানগরীর সড়ক দ্বীপসমূহ এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ স্থানসমূহে বাংলা বর্ণমালা সম্বলিত ফেস্টুন দ্বারা সজ্জিতকরণ, বাদ জুম্মা সোনাদীঘি¯’ রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন জামে মসজিদে জাতির শান্তি অগ্রগতি ও ভাষা শহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।
শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস-২০২০ উপলক্ষ্যে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার বিকেলে নগর ভবনের সিটি হলরুমে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপ¯ি’ত থেকে প্রতিযোগিতায় তিনটি গ্রুপের ১ম, ২য় ও তৃতীয় স্থান অর্জনকারীদের মাঝে পুরস্কার এবং অংশগ্রহণকারীদের হাতে শুভেচ্ছা উপহার তুলে দেন দেন মেয়র।
অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন উপ¯ি’ত ছিলেন রাসিকের প্যানেল মেয়র-১ ও ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসলাম বাবু, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. এবিএম শরীফ উদ্দিন ও প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. এফএএম আঞ্জুমান আরা বেগম। অনুষ্ঠানে উপ¯ি’ত ছিলেন সচিব আবু হায়াত মো. রহমতুল্লাহ, নির্বাহী প্রকৌশলী নূর ইসলাম তুষার, প্রধান পরিচ্ছন্ন কর্মকর্তা শেখ মোঃ মামুন ডলার, হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা নিজামুল হোদা প্রমুখ।
প্রতিযোগিতায় রাজশাহী সিটি প্রাক-প্রাথমিক হতে ৭ম শ্রেণি পর্যন্ত তিনটি গ্রুপে ভাগ করা হয়। ক গ্রুপে প্রথম হয়েছে রাইয়া ইসলিয়ান, দ্বিতীয় ও তৃতীয় হয়েছে যথাক্রমে ইনয়াহ হাসান ইকরা ও আফিফা আক্তার টিনা। খ গ্রুপে প্রথম হয়েছে রাকিন সালেহ, দ্বিতীয় ও তৃতীয় হয়েছে যথাক্রমে সামিরা খানম ও মালিহা ইসলাম নেহা। গ গ্রুপে প্রথম হয়েছে মীর আফসান, দ্বিতীয় ও তৃতীয় হয়েছে যথাক্রমে লামিয়া ইসলাম ও ইনরাত জাহান অর্পণা। রাজশাহী সিটি করপোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ নগরীর বিভিন্ন স্কুলের দুই শতাধিক শিক্ষার্থী এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেয়।
রাবি : শুক্রবার দিবসের প্রথম প্রহরে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে উপাচার্য এম আবদুস সোবহানের নেতৃত্বে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও শহীদদের স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।
এসময় উপস্থিত ছিলেন বিশ^বিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা ও চৌধুরী মো. জাকারিয়া, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান আল-আরিফ, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার অধ্যাপক এমএ বারী, জনসংযোগ দপ্তরের প্রশাসক অধ্যাপক প্রভাষ কুমার কর্মকার, ছাত্র-উপদেষ্টা অধ্যাপক লায়লা আরজুমান বানু, প্রক্টর অধ্যাপক লুৎফর রহমান, অনুষদ অধিকর্তা, ইনস্টিটিউটসমূহের পরিচালক, হলসমূহের প্রাধ্যক্ষবৃন্দ।
উপাচার্যের শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদনের পর রাজশাহী মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মাসুম হাবিব ও রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. আনোয়ারুল কাদের শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।
এরপর পর্যায়ক্রমে রাবি ছাত্রলীগ, রিপোর্টার্স ইউনিটি, প্রেসক্লাব, সাংবাদিক সমিতি, পেশাজীবী সংগঠন, ছাত্র সংগঠন, ছাত্র রাজনৈতিক সংগঠনগুলো পুষ্পস্তবক অর্পণ করে।
ভোরে সূর্যোদয়ের সাথে সাথে প্রশাসন ভবনসহ অন্যান্য ভবনে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতভাবে উত্তোলন করা হয়। সকাল ৭টা থেকে বিভিন্ন আবাসিক হল ও বিভাগ, পেশাজীবী সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান, রাবি শিক্ষক সমিতি, রাবি স্কুল ও শেখ রাসেল মডেল স্কুল প্রভাত ফেরিসহ শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে। মহিলা ক্লাবের সভানেত্রী উপাচার্য পত্নী মনোয়ারা সোবহানের নেতৃত্বে উপ-উপাচার্য পত্নী রমা পোদ্দার ও উপ-উপাচার্য পত্নী শরিফা জাকারিয়াসহ ক্লাবের সদস্যবৃন্দ শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন ।
সকাল ১০টায় শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ সিনেট ভবন চত্বরে অনুষ্ঠিত হয় চিত্রাংকন ও বাংলা হস্তলিপি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন উপাচার্য অধ্যাপক এম আব্দুস সোবহান ও পুরস্কার প্রদান করেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা। বাদ জুম্মা কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে অনুষ্ঠিত হয় কোরআনখানি ও মোনাজাত।
দিবসের অন্যান্য কর্মসূচির মধ্যে ছিল সকাল সাড়ে ৮টায় কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তনের পশ্চিম চত্বরে রাবি অফিসার সমিতির কার্যালয়ে আলোচনা সভা। এছাড়াও সকাল সাড়ে ১০টায় নিজ নিজ কার্যালয়ে সহায়ক কর্মচারী সমিতি, পরিবহন টেকনিক্যাল কর্মচারী সমিতি ও সাধারণ কর্মচারী ইউনিয়নের এবং কেন্দ্রীয় কাফেটেরিয়ায় বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ রাবি ইউনিট কমান্ডের আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। সন্ধ্যায় কেন্দ্রীয় মন্দিরে বিশেষ প্রার্থনা এবং কাজী নজরুল ইসলাম মিলনায়তনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
এছাড়াও বিশ^বিদ্যালয়ের বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন আবৃত্তি ও মঞ্চ নাটকের আয়োজন করে। এদিন শহীদ স্মৃতি সংগ্রহশালা সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত দর্শকদের জন্য খোলা রাখা হয়।
রাজশাহী জেলা পরিষদ : শুক্রবার প্রথম প্রহর শুক্রবার রাত ১২টা ১ মিনিটেই রাজশাহীর কোর্ট শহীদ মিনারে জেলা পরিষদের পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে বায়ান্নোর ভাষা আন্দোলনের শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানানো হয়।
এ সময় জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সরকার, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আহসান হাবিবসহ পরিষদের সদস্য, সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ডের সদস্য এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। এরপর রাতেই নগরীর লক্ষ্মীপুর মোড়ে জেলা পরিষদ নির্মিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এ সময় জাতির পিতাকে স্মরণে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয়।
দিবসটি পালনে শুক্রবার বেলা ১১টায় জেলা পরিষদ কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের প্রেক্ষাপট নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়। এরপর শহীদদের আত্মার শান্তি কামনা এবং দেশ ও জাতির সমৃদ্ধি কামনা করে দোয়া করা হয়। রাকাব : রাজশাহী কলেজের শহীদ মিনারে রাকাবের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন ব্যাংকের উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ ইদ্রিছ। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন রাকাব, প্রধান কার্যালয়ের মহাব্যবস্থাপক (নিরীক্ষা, হিসাব ও আদায়) মোঃ মাজদার রহমান; মহাব্যবস্থাপক (পরিচালন) জিএম রুহুল আমিন; উপ-মহাব্যবস্থাপকবৃন্দ, বিভাগীয় কার্যালয়, বিভাগীয় নিরীক্ষা কার্যালয়, জোনাল কার্যালয় ও জোনাল নিরীক্ষা কার্যালয়, রাজশাহী, প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউট ও এসইসিপি, রাজশাহী এবং রাজশাহী জোনের বিভিন্ন শাখার সকল স্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারী। একই সময়ে রাকাব কর্মচারী সংসদ (রাজ-৬১১)-এর পক্ষে কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি এসএম আব্দুল হান্নান, সাধারণ সম্পাদক আবু নাঈম মোঃ ফজলে রাব্বি এবং রাকাব অফিসার্স এ্যাসোসিয়েশন, অফিসার্স ফোরাম ও বঙ্গবন্ধু পরিষদের নেতৃবৃন্দও পুষ্প স্তবক অর্পণ করেন।
বাউবি : বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজশাহী আঞ্চলিক কেন্দ্রের আঞ্চলিক পরিচালক গবেষক, লেখক ও কলামিস্ট ড. মেজবাহ উদ্দিন তুহিনের নেতৃত্বে কর্মকর্তা ও কর্মচারীগণ রাজশাহীর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে ভাষা শহীদদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।
যথাযোগ্য মর্যাদায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ও মহান শহীদ দিবসে ভাষা শহীদদের স্মরণে বাউবি’র রাজশাহী আঞ্চলিক কেন্দ্রের ক্যাম্পাস বর্ণমালা, ব্যাণার ও ফেস্টুন দিয়ে সাজানো হয়।
এনবিআইইউ : যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালিত হয়েছে। দিবসের শুরুতে শুক্রবার সকালে ইউনিভার্সিটির প্রশাসনিক ভবনে জাতীয় পতাকা ও কালো পতাকা উত্তোলন করা হয়। পরে সকাল ৯টায় নগরীর আলুপট্টিস্থ একাডেমিক ভবনের সামনে থেকে প্রভাতফেরী র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিটি নগরী প্রদক্ষিণ শেষে রাজশাহী কলেজের শহীদ মিনারে পুষ্পমাল্য অর্পণ করেন। এরপর সেখানে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সংগঠন সমকাল সুহৃদ সমাবেশের পক্ষ থেকে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করে শিক্ষার্থীরা পুস্পস্তক অর্পণ করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন ইউনির্ভাসিটির উপ-উপাচার্য প্রফেসর ড. মুহম্মদ আবদুল জলিল, চীফ কো-অর্ডিনেটর প্রফেসর ড. পি.এম.সফিকুল ইসলাম, রেজিস্ট্রার রিয়াজ মোহাম্মদসহ বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভাগীয় প্রধান, শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা ও কর্মচারীবৃন্দ।
রাজশাহী কলেজ : কলেজ প্রশাসন ও সহশিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনাকারী বিভিন্ন সংগঠনের আয়োজনে মাসব্যাপী আয়োজনের মাধ্যমে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করেছে দেশসেরা রাজশাহী কলেজ।
এছাড়াও ২০ ও ২১ ফেব্রুয়ারি ছিল বিশেষ কর্মসূচি। দিবসটি উপলক্ষে শুক্রবার (২১ ফেব্রুয়ারি) কালোব্যাজ ধারণ, কালো পতাকা উত্তোলন, জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করা, প্রভাত ফেরি, পুষ্পস্তবক অর্পণ, দোয়া মাহফিল, পুরস্কার বিতরণী, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করা হয়।
দিনের শুরুতেই কর্মসূচির অংশ হিসেবে কালোব্যাজ ধারণ, কালো পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করা হয়। এরপর সকাল সাড়ে ৭টার দিকে কলেজের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে একুশের প্রভাত ফেরি বের করা হয়। এতে নেতৃত্ব দেন রাজশাহী কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর মহা. হবিবুর রহমান ও উপাধ্যক্ষ প্রফেসর মোহাঃ আব্দুল খালেক।
প্রভাত ফেরিটি নগরীর প্রাণকেন্দ্র সাহেববাজার জিরো পয়েন্ট, কুমারপাড়া ও আলুপট্টি মোড় প্রদক্ষিণ করে কলেজের শহীদ মিনারের সামনে এসে শেষ হয়।
এরপর সেখানে রাজশাহী কলেজ প্রশাসন, কলেজের বিভিন্ন বিভাগ ও সহশিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনাকারী বিভিন্ন সংগঠন শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করেন। এছাড়াও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতেও শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।
এদিকে, কলেজ অধ্যক্ষকে নিয়ে কলেজের মুসলিম হোস্টেলে অবস্থিত দেশের প্রথম শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ করে কলেজের সাংবাদিক সংগঠন রাজশাহী কলেজ রিপোর্টার্স ইউনিটি (আরসিআরইউ)।
সকাল ৯টায় কলেজের স্বেচ্ছায় রক্তদানকারী সংগঠণ ‘বাঁধন’ কলেজ গ্রন্থাগার প্রাঙ্গনে বিনামূল্যে রক্তের গ্রুপ নির্ণয় কর্মসূচির আয়োজন করে। তারপরেই প্রশাসন ভবনের সামনে অনুষ্ঠিত হয় কবিতা আবৃত্তি।
বাদ যোহর কলেজের কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। বিকেলে প্রশাসন ভবন প্রাঙ্গনে সেমিনার, আলোচনা সভা, পুরষ্কার বিতরণী, কবিতা আবৃত্তি, একুশের গান ও নাটক ‘রক্তে ভেজা রাজপথ’ মঞ্চায়িত হয়। অনুষ্ঠানমালায় সভাপতিত্ব করেন কলেজ অধ্যক্ষ।
এর আগে, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ১২ টা ১ মিনিটে অর্থাৎ ২১ ফেব্রুয়ারির প্রথম প্রহরে কলেজ শহীদ মিনার ও মুসলিম হোস্টেলে অবস্থিত দেশের প্রথম শহীদ মিনারে পুষ্পার্ঘ অর্পণের মাধ্যমে কলেজের কেন্দ্রীয় কর্মসূচির সূচনা করেন অধ্যক্ষ।
এছাড়াও কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে গ্রন্থাগার প্রাঙ্গনে দুই দিনব্যাপী বইমেলা অনুষ্ঠিত হয়। শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামান ভবনের সামনে চলমান রয়েছে চার দিনব্যাপী পুষ্পমেলা।
আগের দিন বৃহস্পতিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) দিবসটি উপলক্ষে কলেজ শহীদ মিনারের পাদদেশে কবিতা পাঠ, একুশের গান ও সন্ধ্যায় মোমবাতি প্রজ্বলন করা হয়। এছাড়াও মঞ্চায়িত হয় মুনীর চৌধুরীর বিখ্যাত ‘কবর’ নাটক।
নিউ গভঃ ডিগ্রী কলেজ : বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করেছে রাজশাহী নিউ গভঃ ডিগ্রী কলেজ। প্রভাত ফেরি, আলোচনা সভা, পুরস্কার বিতরণী ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন কর্মসূচিতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন কলেজ অধ্যক্ষ প্রফেসর এস.এম. জার্জিস কাদির। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপাধ্যক্ষ ড. মো. অলীউল আলম। এছাড়াও শিক্ষক পরিষদ সম্পাদক তানভিরুল হকসহ কলেজের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেন।
রাজশাহী কলিজিয়েট স্কুল : স্কুলের প্রধান শিক্ষক ড. মোসা. নূরজাহান বেগমের সভাপতিত্বে স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের নিয়ে প্রভাত ফেরি, শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ, শিক্ষার্থীদের চিত্রাঙ্কন ও রচনা প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণীর মাধ্যমে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করেছে রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী কলিজিয়েট স্কুল।
বাংলাদেশ গার্লস গাইডস্ এসোসিয়েশেন : বাংলাদেশ গার্লস গাইডস্ এসোসিয়েশেন রাজশাহী জেলার উদ্যোগে হলদে পাখি, গাইড, রেঞ্জার, গাইডার, গাইড সদস্য ও কর্মকর্তাবৃন্দদের নিয়ে প্রভাত ফেরি, শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ ও দিবস ভিত্তিক আলোচনা, কবিতা আবৃত্তি ও রচনা প্রতিযোগিতার মাধ্যমে দিবসটি পালন করা হয়েছে।
এদিকে, পরের দিন ২২ ফেব্রুয়ারি বেলা ১১টায় গাইড হাউজ প্রাঙ্গনে ‘বিশ্ব চিন্তা দিবস’ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে রাজশাহী মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মোকবুল হোসেন ২১ ফেব্রুয়ারিতে আয়োজিত প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার তুলে দেন।
বিবি হিন্দু একাডেমী : যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালন করেছে মহানগরীর অন্যতম প্রাচীন এই বিদ্যাপিঠ। দিবসটি উপলক্ষে প্রধান শিক্ষক রাজেন্দ্র নাথ সরকারের নেতৃত্বে প্রভাত ফেরি, শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ, আলোচনা সভা, ভাষা আন্দোলন ও ইতিহাসের তাৎপর্য তুলে ধরে শিক্ষার্থীদের বক্তব্য উপস্থাপন, তিনজনকে নির্বাচিত করে পুরস্কার বিতরণ, শহীদদের স্মৃতির উদ্দেশ্যে নিরবতা পালনসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে স্কুলটি।
মেট্রোপলিটন কলেজ : দিবসটি উপলক্ষ্যে কলেজের উদ্যোগে সকালে প্রভাতফেরি, পুষ্পস্তবক অর্পণ ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন অধ্যক্ষ জুলফিকার আহমেদ। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন। এছাড়া উপাধ্যক্ষ সাইফুর রহমানসহ কলেজের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা বক্তব্য রাখেন।
ন্যাপ কমিউনিস্ট পার্টি ছাত্র ইউনিয়ন : দিবসটি উপলক্ষে প্রভাত ফেরি নিয়ে নগরীর ভূবনমোহন পার্কে শ্রদ্ধা নিবেদন করে সংগঠনটি। এতে নেতৃত্ব দেন বীর মুক্তিযোদ্ধা এ্যাড. সাইদুল ইসলাম। এছাড়াও প্রভাত ফেরিতে অংশ নেন- বীর মুক্তিযোদ্ধা হাফিজুর রহমান, ইসমাইল হোসেন, নারায়ন চন্দ্র সরকারী, বুলবুলি রাণী ঘোষ, বদরে আলম, জহুরুল হক প্রমূখ নেতৃবৃন্দ অংশগ্রহণ করেন।
পবা উপজেলা: সারাদেশের ন্যায় রাজশাহীর পবায় আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস ও শহীদ দিবস পালিত হয়েছে। এদিন উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন সংসদ সসদ্য আয়েন উদ্দিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান মুনসুর রহমান, উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভুমি) কর্মকর্তা আবুল হায়াত। উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ওয়াজেদ আলী খানের পরিচালনায় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সাবেক অধ্যক্ষ মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলী দেওয়ান, অধ্যক্ষ আব্দুল খালেক, অধ্যক্ষ কাউছার আলী, অধ্যক্ষ আফছার আলী, অধ্যক্ষ আলতাফ হোসেন।
উপস্থিত ছিলেন উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোখলেছুর রহমান, সমাজসেবা কর্মকর্তা তৌহিদুজ্জামান, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার শিরিন মাহবুবা, যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা সঈদ আলী রেজা প্রমুখ।

ফেব্রুয়ারি ২৩
০৪:৩৯ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

ডিগ্রী থাকলেও মিলছেনা যোগ্য চাকরি

ডিগ্রী থাকলেও মিলছেনা যোগ্য চাকরি

শাহ্জাদা মিলন: বাংলাদেশের অন্যতম বিভাগীয় শহর রাজশাহী। সিল্কসিটি, আমের রাজধানী হিসেবে পরিচিত সারা দেশে রাজশাহী। তবে এসব পরিচয় ছাপিয়ে রাজশাহী ‘শিক্ষা নগরী’ হিসেবে সবচেয়ে বেশি পরিচিত। অসংখ্য নামিদামি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে এখানে। এর সুফলে রাজশাহীতে বছর বছর বাড়তে ডিগ্রিধারী মানুষের সংখ্যা। তবে সেই অনুপাতে বাড়ছে না কর্মসংস্থান। রাজশাহীতে রয়েছে রাজশাহী

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সানশাইন ডেস্ক : করোনা মহামারিতে সাধারণ ছুটিতে স্বাভাবিক জীবনযাত্রার সঙ্গে স্থগিত ছিল সরকারি-বেসরকারি চাকরির নিয়োগ প্রক্রিয়া। এ কয়েক মাসে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পায়নি দেশের শিক্ষিত বেকার জনগোষ্ঠী। অংশ নিতে পারেনি কোনো নিয়োগ পরীক্ষাতেও। অনেকেরই বয়স পেরিয়ে গেছে ৩০ বছর। স্বাভাবিকভাবেই সরকারি চাকরির আবেদনে সুযোগ শেষ হয়ে যায় তাদের। তবে এ দুর্যোগকালীন

বিস্তারিত