Daily Sunshine

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ

Share

গত ৯ জানুয়ারি দৈনিক সানশাইনে ‘রেশম বোর্ড কর্মকর্তার বিরুদ্ধে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ’ শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন রাজশাহী রেশম উন্নয়ন বোর্ডের সম্প্রসারণ ও প্রেষণা সদস্য ও প্রকল্প পরিচালক এম এ মান্নান।
লিখিত প্রতিবাদে তিনি উল্লেখ করেন, প্রকাশিত সংবাদটি তার দৃষ্টিগোচর হয়েছে। সংবাদটি উদ্দেশ্যপ্রণোদিত অভিযোগের ভিত্তিতে করা হয়েছে। যা সম্পূর্ণ বানোয়াট, মিথ্যাচার, ষড়যন্ত্রমূলক ও বিভ্রান্তিকর। অভিযোগে উল্লেখিত রাজশাহীর শিরোইলে ছয়তলা বাড়ি, টিকাপাড়ায় তিনতলা বাড়ি ও কুমারপাড়ায় বিভিন্নস্থানে আরো তিনটি বাড়ি কেনার বিষয়ে যে তথ্য দেয়া হয়েছে সেগুলো সর্বৈব মিথ্যে। এছাড়াও তিনি নিয়মিত ট্যাক্স প্রদানকারী একজন কর্মকর্তা, যা ট্যাক্স ফাইল থেকে যাচাই করা সম্ভব বলে দাবি করেন এই কর্মকর্তা।
অভিযোগ পত্রে বলা হয়, অভিযোগের ১০০টি আইডিয়াল রেশম পল্লীর তথ্য সম্পূর্ণ বিভ্রান্তিকর। প্রকল্পের চলমান কাজে প্রকল্প পরিচালকের অতিরিক্ত দায়িত্বগ্রহণের সময় মাত্র ৫টি আইডিয়াল রেশম পল্লীর কাজ চলছিল। এছাড়াও অর্থ ব্যয়ের সঙ্গে প্রকল্প পরিচালকের এককভাবে কোন সম্পৃক্ততা থাকে না বরং প্রকল্পের জন্য বরাদ্দকৃত অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে ছাড়ের পরে তা বোর্ডের একাউন্টে জমা হয়। জোন/রিজিয়ন এর চাহিদা মোতাবেক সম্প্রাসারণ বিভাগ, অর্থ ও পরিকল্পনা বিভাগের নিয়ন্ত্রনাধীন বাজেট শাখা, ডেপুটি চীফ, চীফ হয়ে আমার নিকট আসলে তা অনুমোদন করে হিসাব বিভাগের মাধ্যমে উপপরিচালক, আঞ্চলিক রেশম সম্প্রসারণ কার্যালয় ও সহকারী পরিচালক, জোনাল রেশম সম্প্রসারণ কার্যালয়ের হিসাবে প্রেরিত হয়। ঐ অর্থ উত্তোলন করে বাংলাদেশের ১২টি আঞ্চলিক ও জোনাল কার্যালয়ের সংশ্লিষ্ট উপপরিচালক, সহাকারী পরিচালক এবং ম্যানেজারগণ যাবতীয় ব্যয় সম্পন্ন করে থাকেন। অর্থ ব্যয়ের ক্ষেত্রে প্রকল্প পরিচালক হিসেবে তার দাপ্তরিক অনুমোদ ব্যতীত অন্য কোনরূপ প্রত্যক্ষ সংশ্লিষ্টতা নেই বলে জানান এম এ মান্নান।
এছাড়াও অভিযোগে ৪২ লাখ টাকার নতুন গাড়িটি সরকারের ‘প্রাধিকারপ্রাপ্ত সরকারি কর্মকর্তাদের বিশেষ অগ্রিম ও গাড়ি সেবা নগদায়ন নীতিমালা’ ২০১৭ (সংশোধিক) অনুসারে কেনা বলে প্রতিবাদপত্রে জানানো হয়।
এমএম মান্নানের রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতা ও অধ্যয়ন সময়কাল নিয়ে মিথ্যাচার করা হয়েছে উল্লেখ করে প্রতিবাদপত্রে বলা হয়েছে, এম এ মান্নান ১৯৮৪ সালে রাজশাহী শিক্ষাবোর্ডে মেধা তালিকায় ৫ম স্থান অধিকারসহ প্রথম বিভাগে এসএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন। দেশসেরা রাজশাহী কলেজ থেকে রাজশাহী বোর্ডে মেধা তালিকায় ১০ম স্থান নিয়ে এএইচএসসি পাশ করেন তিনি। এছাড়াও তৎকালীন গাজীপুরে অবস্থিত ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে হিসাববিজ্ঞান বিষয়ে লেখাপড়া শেষ করেন। কিন্তু প্রকাশিত সংবাদে এম এ মান্নান ১৯৮৩-৮৮ সালে কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নের কথা বলা হয়েছে, অথচ তিনি সেসময় নবম শ্রেণিতে পড়তেন বলে প্রতিবাদপত্রে উল্লেখ করা হয়। এছাড়াও তার রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতা নিয়ে ভুল তথ্য উপস্থাপন করা হয়েছে উল্লেখ করে প্রতিবাদপত্রে তিনি বিভিন্ন প্রামাণিক তথ্য উপস্থাপন করেন।

জানুয়ারি ১৫
০৪:০৮ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

ডিগ্রী থাকলেও মিলছেনা যোগ্য চাকরি

ডিগ্রী থাকলেও মিলছেনা যোগ্য চাকরি

শাহ্জাদা মিলন: বাংলাদেশের অন্যতম বিভাগীয় শহর রাজশাহী। সিল্কসিটি, আমের রাজধানী হিসেবে পরিচিত সারা দেশে রাজশাহী। তবে এসব পরিচয় ছাপিয়ে রাজশাহী ‘শিক্ষা নগরী’ হিসেবে সবচেয়ে বেশি পরিচিত। অসংখ্য নামিদামি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে এখানে। এর সুফলে রাজশাহীতে বছর বছর বাড়তে ডিগ্রিধারী মানুষের সংখ্যা। তবে সেই অনুপাতে বাড়ছে না কর্মসংস্থান। রাজশাহীতে রয়েছে রাজশাহী

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সানশাইন ডেস্ক : করোনা মহামারিতে সাধারণ ছুটিতে স্বাভাবিক জীবনযাত্রার সঙ্গে স্থগিত ছিল সরকারি-বেসরকারি চাকরির নিয়োগ প্রক্রিয়া। এ কয়েক মাসে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পায়নি দেশের শিক্ষিত বেকার জনগোষ্ঠী। অংশ নিতে পারেনি কোনো নিয়োগ পরীক্ষাতেও। অনেকেরই বয়স পেরিয়ে গেছে ৩০ বছর। স্বাভাবিকভাবেই সরকারি চাকরির আবেদনে সুযোগ শেষ হয়ে যায় তাদের। তবে এ দুর্যোগকালীন

বিস্তারিত