Daily Sunshine

যমুনা শাখায় ব্রিজ দাবী পারাপারে ভরসা নৌকা

Share

স্টাফ রিপোর্টার, জয়পুরহাট: জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার বাগজানা ধরঞ্জী দুই ইউনিয়নের মাঝ দিয়ে বয়ে চলা শাখা যমুনা নদী অবস্থিত। জীবনের ঝুকি নিয়ে প্রতিনিয়ত নৌকা দিয়ে হাজার হাজার লোকজন ও ছাত্র ছাত্রীরা পারাপার হয়ে বিবিন্ন গন্তব্যে পৌছে। এ যমুনা নদীটি বর্ষা মৌসুমে ভয়াবহ আকার ধারন করে। জীবনের ঝুকি নিয়ে জনসাধারণ ও ছাত্র ছাত্রীরা নৌকায় পারাপার হওয়ায় যেকোন মূহুর্তে প্রাণহানির ঘটনা ঘটতে পারে।
বাগজানা ইউনিয়নের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থাকার কারনে যেমন বাগজানা হাইস্কুল, ভূমি অফিস, প্রাইমারী স্কুল, ব্যংক, বাসস্ট্যান্ড, থাকায় এ খেয়াঘাট দিয়ে হাজার হাজার লোকজন চলাচল করে তাই দুই ইউনিয়নের প্রাণের দাবী বাগজানায় ব্রীজটি কবে হবে। ছাত্র ছাত্রী ও শিক্ষক সময় মত স্কুলে আসতে পারে না।
বাগজানা দ্বিমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক রফিকুল ইসলাম বলেন আমরা জীবনের ঝুকি নিয়ে নৌকা পার হই আর সঠিক সময়ে বিদ্যালয়ে পৌছাতে পারি না। বর্তমানে যে নৌকাটি চলছে তা অতি পুরাতন ও জোরাতালি দেয়া। বিগত দিনগুলোতে বিভিন্ন সময় জয়পুরহাট ১ আসনের সংসদ সদস্য আল্হাজ্ব সামছুল আলম দুদু জনসভায় নির্বাচনী অঙ্গিকারে বলেছিলেন তিনি নির্বাচিত হলে বাগজানা শাখা যমুনা নদীর উপর ব্রীজ নির্মাণের ব্যপারে তিনি সার্বিক ভাবে চেষ্টা করবেন কিন্তু বর্তমানে এখনো বাস্তবায়ন হয় নাই।
প্রতিনিয়ত ঝুকিপূর্ণভাবে নদী পারাপার করতে গিয়ে যে কোন মূহুর্তে মর্মান্তাতিক দুর্ঘটনা ঘটতে পারে এবং কোন মূমুর্ষূ রোগীকে সময় মত হাসপাতালে পৌছানো অনেক দূরহ ব্যপার। তাই বাগজানা শাখা যমুনা নদীর উপর ব্রীজটি অতি জরুরী ভাবে বাস্তবায়নের জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছেন এলাকাবাসী।

অক্টোবর ১৩
০৪:১২ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

নতুন রূপ পাচ্ছে রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী সোনাদীঘি

নতুন রূপ পাচ্ছে রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী সোনাদীঘি

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের উদ্যোগে মহানগরীর ঐতিহ্যবাহী সোনাদীঘি নতুন রূপ পেতে যাচ্ছে। একই সাথে সোনাদীঘি ফিরে পাচ্ছে তার হারানোর ঐতিহ্য। সোনাদীঘিকে এখন অন্তত তিন দিক থেকে দেখা যাবে। দিঘিকে কেন্দ্র করে গড়ে তোলা হবে পায়ে হাঁটার পথসহ মসজিদ, এমফি থিয়েটার (উন্মুক্ত মঞ্চ) ও তথ্যপ্রযুক্তি

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সানশাইন ডেস্ক : করোনা মহামারিতে সাধারণ ছুটিতে স্বাভাবিক জীবনযাত্রার সঙ্গে স্থগিত ছিল সরকারি-বেসরকারি চাকরির নিয়োগ প্রক্রিয়া। এ কয়েক মাসে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পায়নি দেশের শিক্ষিত বেকার জনগোষ্ঠী। অংশ নিতে পারেনি কোনো নিয়োগ পরীক্ষাতেও। অনেকেরই বয়স পেরিয়ে গেছে ৩০ বছর। স্বাভাবিকভাবেই সরকারি চাকরির আবেদনে সুযোগ শেষ হয়ে যায় তাদের। তবে এ দুর্যোগকালীন

বিস্তারিত