Daily Sunshine

অসুস্থ বাবাকে হাসপাতালে দেখতে গিয়ে ছেলের মৃত্যু

স্টাফ রিপোর্টার, নাটোর : নাটোরে অসুস্থ বাবা আব্দুস সালামকে হাসপাতালে দেখতে গিয়ে কলেজ পড়ুয়া ছেলে রফিকুল ইসলাম (২৩) এর মৃত্যু হয়েছে। রোববার রাতে নাটোর সদর উপজেলার পার হালসা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
প্রত্যক্ষদর্শী প্রতিবেশী আব্দুর রাজ্জাক লাকি জানান, পার হালসা গ্রামের কৃষক আব্দুস সালাম তার আবাদী জমিতে ইঁদুরসহ পোকা-মাকড় দমনে রোববার সকালে গ্যাস ট্যাবলেট দেন। গমের জমিতে বিষাক্ত গ্যাস ট্যাবলেট দিয়ে দুপুরে বাড়িতে আসার পর আব্দুল সালাম বিষক্রিয়ায় অসুস্থবোধ করলে পরিবারের লোকজন চিকিৎসার জন্য তাকে স্থানীয় হালসা বাজারে গ্রাম্য চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যায়। কৃষক আব্দুস সালামের শারীরিক অবস্থা ভালো না থাকায় তাকে নাটোর আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়।
সন্ধ্যার পরে তার ছেলে রফিকুল ইসলাম বাড়ি থেকে খাবার নিয়ে বাবাকে দেখার জন্য হাসপাতালে যায়। সেখানে বাবাকে দেখার কিছুক্ষণ পরে ছেলে রফিকুল ইসলামও হঠাৎ করে অসুস্থ হয়ে পড়ে। এসময় পরিবারের লোকজন তাকেও চিকিৎসার জন্য ওই হাসপাতালে ভর্তি করেন। ক্রমান্বয়ে রফিকুল ইসলামের অবস্থার অবনতি হলে কর্ত্যবরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে স্থানান্তরের পরামর্শ দেন। রাজশাহীতে নিয়ের যাওয়ার প্রস্তুতির সময় রাত দুইটার দিকে তার মৃত্যু হয়।
রফিকুল ইসলাম নাটোরের নবাব সিরাজ উদ-দৌলা সরকারি কলেজের রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিভাগের অনার্সের ছাত্র। এদিকে ছেলের মৃত্যুর পর অসুস্থ বাবাকে ওই অবস্থায় হাসপাতাল থেকে রাতেই বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

জানুয়ারি ২২
০৪:১১ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

আঁকাআঁকি থেকেই তন্বীর ‘রংরাজত্ব’

আঁকাআঁকি থেকেই তন্বীর ‘রংরাজত্ব’

আসাদুজ্জামান নূর : ছোটবেলা থেকেই আঁকাআঁকির প্রতি নেশা ছিল জুবাইদা খাতুন তন্বীর। ক্লাসের ফাঁকে, মন খারাপ থাকলে বা বোরিং লাগলে ছবি আঁকতেন তিনি। কারও ঘরের ওয়ালমেট, পরনের বাহারি পোশাক ইত্যাদি দেখেই এঁকে ফেলতেন হুবহু। এই আঁকাআঁকির প্রতিভাকে কাজে লাগিয়েই হয়েছেন ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা। তুলির খোঁচায় পরিধেয় পোশাকে বাহারি নকশা, ছবি, ফুল

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

জোরালো হচ্ছে সরকারি চাকরিতে ‘বয়সসীমা’ বাড়ানোর দাবি

জোরালো হচ্ছে সরকারি চাকরিতে ‘বয়সসীমা’ বাড়ানোর দাবি

সানশাইন ডেস্ক : সর্বশেষ ১৯৯১ সালে সরকারি চাকরিতে প্রবেশের বয়সসীমা বাড়ানো হয়। এরপর অবসরের বয়স বাড়ানো হলেও প্রবেশের বয়স আর বাড়েনি। বেকারত্ব বেড়ে যাওয়া, সেশনজট, নিয়োগের ক্ষেত্রে দীর্ঘসূত্রতা, অন্যান্য দেশের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে চাকরিতে প্রবেশের সর্বোচ্চ বয়স বাড়ানোর দাবিতে আন্দোলন করে আসছেন শিক্ষার্থী ও চাকরিপ্রার্থীরা। তবে এ বিষয়ে উদ্যোগ নেয়নি

বিস্তারিত