Daily Sunshine

চারঘাটে নিষিদ্ধ নোট-গাইড বইয়ের রমরমা ব্যবসা

স্টাফ রিপোর্টার, চারঘাট : রাজশাহীর চারঘাটে দোকানে দোকানে বিক্রি হচ্ছে নিষিদ্ধ নোট ও গাইড বই। ফলে এসব নোট ও গাইড বইয়ের দিকে হুমড়ি খেয়ে পড়ছে ছাত্রছাত্রীরাও। তবে অভিযোগ উঠেছে একশ্রেণির শিক্ষকরা এসব নিষিদ্ধ নোট ও গাইড বই কিনতে পরামর্শ দিচ্ছেন শিক্ষার্থীদের। আর এতেই শিক্ষার্থীরাও ছুটছেন এসব নিষিদ্ধ নোট ও গাইড বইয়ের দিকে।
সরজমিনে চারঘাট, সারদাসহ আশে পাশের এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, এক শ্রেণির অস্বাধু দোকানিরা প্রশাসনের চোখ ফাকি দিতে দোকানে না রেখে বিকল্প উপায়ে বাসা বাড়ীতে নিষিদ্ধ নোট ও গাইড রেখে তা বিক্রি করছে দেদারছে। কোন গ্রাহক নোট ও গাইড কিনতে গেলে বাজার করা ব্যাগে করে এনে দিচ্ছেন ক্রেতাদের হাতে। এভাবেই ছড়িয়ে পড়ছে নিষিদ্ধ নোট গাইড শিক্ষার্থীদের হাতে। এতে করে প্রকৃত শিক্ষার মান বাধাগ্রস্থ হচ্ছে।
বাংলাদেশ মানবাধিকার সংস্থা চারঘাট উপজেলা শাখার সভাপতি অবসরপ্রাপ্ত স্কুল শিক্ষক সাইফুল ইসলাম বাদশা বলেন, মুখস্থনির্ভর না হয়ে বুঝে পড়ার জন্য সরকার নোট ও গাইডবই নিষিদ্ধ করেছে। দেশের সর্বোচ্চ আদালতও এ নিষেধাজ্ঞার পক্ষে রায় দিয়েছেন। কিন্তু তা সত্ত্বেও চারঘাটসহ আশেপাশের উপজেলায় দেদারচে বিক্রি হচ্ছে নোট ও গাইড বই। কিছু অসাধু প্রকাশনা সংস্থার মাধ্যমে এসব বই ছড়িয়ে পড়ছে সারা দেশে। এ অবস্থা বহু বছর ধরে চলে এলেও বর্তমানে তা বেড়ে গেছে সৃজনশীল পদ্ধতির কারণে। এ পদ্ধতিতে পাঠদানে শিক্ষকরাও যথেষ্ট দক্ষ নন। তাই শিক্ষার্থীরা বাধ্য হচ্ছে নোট ও গাইড বইনির্ভর হতে। আর অনেক ক্ষেত্রেই শিক্ষার্থীদের স্কুল থেকে এসব নোট বা গাইড কিনতে নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে। এভাবে শিক্ষার্থীরা বঞ্চিত হচ্ছে প্রকৃত শিক্ষা থেকে আর লাভবান হচ্ছেন অসাধু ব্যবসায়ীরা।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক জনৈক এক স্কুল শিক্ষক বলেন, সংঘবদ্ধ চক্র নিষিদ্ধ এ বইয়ের বাণিজ্য চালিয়ে যাচ্ছে এখন ‘সহায়ক বই’ নাম ব্যবহার করে। মুখস্থবিদ্যা নয়, বুঝে পড়ার জন্য সৃজনশীল পদ্ধতি আবিষ্কার করা হলেও শিক্ষার্থীরা এর উপকারিতা পাচ্ছে না। তারা নোট বা গাইড বইয়ের আশ্রয় নিয়ে তোতাপাখির মতো পড়া মুখস্থ করছে।
অভিভাবকদের দাবি, নোট-গাইডের প্রভাবে শিক্ষার্থীরা বোর্ডের বই পড়ছেই না। এমনকি বিভিন্ন স্কুলের অভ্যন্তরীণ পরীক্ষায় শিক্ষকরা গাইড বইয়ের অনুশীলনীর প্রশ্ন পরীক্ষার প্রশ্ন হিসেবে ব্যবহার করছেন।
উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা জয়নাল আবেদীন বলেন, মাধ্যমিক পর্যায়ে ষষ্ঠ থেকে নবম শ্রেণি পর্যন্ত নোট-গাইড নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তা ছাড়া সরকার বিনা মূল্যে গ্রামার ও ব্যাকরণ বইও দিচ্ছে। তাই আলাদাভাবে গ্রামার ও ব্যাকরণ বই কেনার কোনো প্রয়োজন নেই।
এ ব্যাপারে রাজশাহী অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আলমগীর কবির বলেন, নোট-গাইড নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তার পরেও কোন লাইব্রেরীতে নোট গাইড পাওয়া যায় তাহলে দ্রুত অভিযান পরিচালনা করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জানুয়ারি ২১
০৩:২১ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

যৌবনা পদ্মায় মানুষের কোলাহল

যৌবনা পদ্মায় মানুষের কোলাহল

রোজিনা সুলতানা রোজি : ভাদ্রে এসে যৌবনে ফিরেছে রাজশাহীর পদ্মা নদী। কতদিন আগে হাওয়ায় ঢেউয়ের নাচন ছিলো পদ্মার প্রবাহে তা প্রায় ভুলতেই বসেছিলো নদীপারের মানুষ। তবে এবার স্বরূপে ফিরে এসেছে এ নদী। এখন আবারো সেই যৌবনা পদ্মা। শ্রাবণ পেরিয়ে ভাদ্রে ফুলে-ফেপে উঠেছে এককালের যৌবনা প্রমত্তা পদ্মা। শরতের শুভ্র মেঘ আর

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সানশাইন ডেস্ক : করোনা মহামারিতে সাধারণ ছুটিতে স্বাভাবিক জীবনযাত্রার সঙ্গে স্থগিত ছিল সরকারি-বেসরকারি চাকরির নিয়োগ প্রক্রিয়া। এ কয়েক মাসে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পায়নি দেশের শিক্ষিত বেকার জনগোষ্ঠী। অংশ নিতে পারেনি কোনো নিয়োগ পরীক্ষাতেও। অনেকেরই বয়স পেরিয়ে গেছে ৩০ বছর। স্বাভাবিকভাবেই সরকারি চাকরির আবেদনে সুযোগ শেষ হয়ে যায় তাদের। তবে এ দুর্যোগকালীন

বিস্তারিত