Daily Sunshine

হীরা নদীতে সেতু, স্বস্তিতে দুই গ্রামের সহস্রাধিক মানুষ

মান্দা প্রতিনিধি : একপারে চকভোলাই, অন্যপারে রামনগর ও চককানু গ্রাম। একটি সেতুর অভাবে চরম দুর্ভোগে বসবাস করছেন দুই গ্রামের সহস্রাধিক মানুষ। গ্রামের পাশ দিয়ে বয়ে চলা হীরা নদী (বর্তমানে মরা নদী নামে পরিচিত) বিভক্ত করে রেখেছে গ্রাম দুটিকে সেই আদিকাল থেকে। অবশেষে বহুল প্রত্যাশিত সেতুটি নির্মিত হওয়ায় স্বস্তিতে গ্রামের মানুষ। সংযোগ রাস্তা নির্মাণ হলে এর সুফল ভোগ করবেন তারা।
স্থানীয়রা জানান, একসময় হীরা নদী বহমান ছিল। দুর-দুরান্তের লোকজন নদীতে নৌকা চালিয়ে ব্যবসা-বাণিজ্যসহ পণ্য আনানেয়া করতেন। কিন্তু কালের বিবর্তনে নদীটি মরা নদীতে পরিণত হয়েছে। বর্ষায় পানিতে টইটুম্বর হলেও খরা মওসুমে শুকিয়ে যায় নদীটি। তখন নদীর তলদেশে ফসলের চাষ করেন কৃষক। এ সময় গ্রামের লোকজন এপার ওপারে গিয়ে অতি সহজে প্রাত্যহিক কাজ সারতে পারেন। কিন্তু সমস্যার সৃষ্টি হয় বর্ষা মৌসুমে।
চককানু গ্রামের শহিদুল ইসলাম, রামনগর গ্রামের আতাউর রহমানসহ আরও অনেকে জানান, নদীর দক্ষিণ ধার দিয়ে দেলুয়াবাড়ি থেকে একটি পাকারাস্তা চকগৌরী-দামনাশ হয়ে বিভিন্ন দিকে চলে গেছে। এ রাস্তার কাঁঠালতলী মোড়ে নদীর উত্তরপারে দুটি গ্রামে সহস্রাধিক মানুষের বসবাস। কিন্তু নদীতে সেতু না থাকায় বর্ষা মৌসুমে অন্তত: ৩ কিলোমিটার পথ ঘুরে গ্রামের লোকজন তাদের নির্দিষ্ট গন্তব্যে যান।
স্থানীয় আজাহার আলী, আবুল কাসেম, আয়নাল হকসহ অনেকে জানান, গ্রামবাসির দুর্ভোগের বিষয়টি অনুধাবন করে কাঁঠালতলী মোড়ের অদুরে ইতোমধ্যে নির্মাণ করা হয়েছে ৫০ ফুট দৈর্ঘ্যরে একটি সেতু ৫০ ফুট দৈর্ঘ্যরে একটি সেতু। সেতুর দু’পাশে মাটি ভরাট দিলেই এর সুফল ভোগ করবেন গ্রামের মানুষ। সেতুটি নির্মিত হওয়ায় এখন স্বস্তির সুবাতাস বইছে দুই গ্রামে।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা রেজাউল করিম জানান, ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে প্রায় ৮ লাখ টাকা ব্যয়ে সেতুটি নির্মাণ করা হয়েছে। কিন্তু বর্ষা মওসুমের কারণে দুইধারে মাটি ভরাট দেয়া সম্ভব হয়নি। অচিরেই মাটি ভরাট দিয়ে চলাচলের জন্য রাস্তাটি উন্মুক্ত করে দেয়া হবে।

জানুয়ারি ১৬
০৩:৫৫ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

আলোকিত সিটি পেয়েছেন মহানগরবাসী

আলোকিত সিটি পেয়েছেন মহানগরবাসী

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী মহানগরীর শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান চত্বরে দাঁড়িয়ে আছে মাস্তুল আকৃতির মজবুত দুইটি পোল। প্রতিটি পোলের উপর রিং বসিয়ে তার চতুরদিকে বসানো হয়েছে উচ্চমানের এলইডি লাইট। আর সেই লাইটের আলোয় আলোকিত বিস্তৃত এলাকা। শুধু শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান চত্বর নয়, এভাবে মহানগরীর আরো গুরুত্বপূর্ণ ১৪টি চত্বর আলোকিত হয় প্রতি

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সানশাইন ডেস্ক : করোনা মহামারিতে সাধারণ ছুটিতে স্বাভাবিক জীবনযাত্রার সঙ্গে স্থগিত ছিল সরকারি-বেসরকারি চাকরির নিয়োগ প্রক্রিয়া। এ কয়েক মাসে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পায়নি দেশের শিক্ষিত বেকার জনগোষ্ঠী। অংশ নিতে পারেনি কোনো নিয়োগ পরীক্ষাতেও। অনেকেরই বয়স পেরিয়ে গেছে ৩০ বছর। স্বাভাবিকভাবেই সরকারি চাকরির আবেদনে সুযোগ শেষ হয়ে যায় তাদের। তবে এ দুর্যোগকালীন

বিস্তারিত