Daily Sunshine

রাজশাহী সংরক্ষিত আসনে রেনীকে চায় তৃণমূল

স্টাফ রিপোর্টার : নবগঠিত মন্ত্রিসভার ন্যায় ক্লিন ইমেজের নারীদের এবার বেছে নেয়া হবে সংসদ সদস্য পদের জন্য। বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার রিপোর্টের ভিত্তিতে এসব নারীদের যাচাই-বাছাইয়ের কাজ চলছে। বিভিন্ন জেলা থেকে ত্যাগী ও পরীক্ষিতদের ব্যাপারে খোঁজ-খবর নেয়া হচ্ছে।
একাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশন বসছে আগামী ৩০ জানুয়ারি। নতুন সংসদের প্রথম অধিবেশনেই যোগ দিতে পারেন সংরক্ষিত নারী আসনের এমপিরা। নির্বাচন কমিশনের পরিকল্পনা অনুযায়ী চলতি সপ্তাহেই এ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা হতে পারে।
একাদশ জাতীয় সংসদের সংরক্ষিত রাজশাহী আসন থেকে এবার মনোনয়ন চাইবেন নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শাহীন আকতার রেনী। এবার তাকে এমপি করতে রাজশাহী নগর আওয়ামী লীগের তৃণমূল থেকে জোলালো দাবি উঠেছে। তৃণমূলের দাবি প্রেক্ষিতে তিনি মনোনয়ন চাইছেন।
শাহীন আকতার রেনী রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের সহধর্মিণী। স্বামীর সঙ্গে সমানতালে দলের হাল ধরায় এরই মধ্যে ব্যাপক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছেন তিনি। বিশেষ করে সংগঠনে নারীর অবস্থান নিশ্চিতকরণ ও নারীদের সংগঠিত করার পেছনে তার বড় অবদান রয়েছে বলে মনে করেন নেতাকর্মীরাও।
শাহীন আকতার রেনী সর্বশেষ নগর আওয়ামী লীগের সম্মেলনে সহ-সভাপতি হন। এর আগে তিনি নগর মহিলা আওয়ামী লীগের সদস্য ছিলেন। মূলত: ২০০৮ সালের সিটি নির্বাচনের পর রাজনীতিতে সক্রিয় হন শাহীন আকতার রেনী। সততা, যোগ্য ও সাংগঠনিক কর্মকান্ড দিয়ে রাজশাহীর নারী নেত্রীদের মধ্যে তিনি এখন জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছেন। অনেকেই তাকে রাজশাহীর নারী নেতৃত্বের আইকন হিসেবে অভিহিত করেন।
নগর আওয়ামী লীগের নির্ভরযোগ্য একটি সূত্র জানিয়েছে, ‘‘শাহীন আকতার রেনী বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করছেন। মঙ্গলবার রাতে রাসিক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের সঙ্গে গিয়ে শাহীন আকতার রেনী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাত করেছেন। চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হওয়ায় শেখ হাসিনাকে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান তারা।’’
আওয়ামী লীগের আরোক নেতা বলেন, ‘‘সংরক্ষিত আসনে এবার নতুন মুখ চায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা। রাজশাহীতে যতগুলো নারী নেত্রী রয়েছেন তাদের মধ্যে জনপ্রিয়তায় অনেক এগিয়ে রয়েছেন শাহীন আকতার রেনী। এ জন্য আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের পক্ষে থেকে সংরক্ষিত আসনে শাহীন আকতার রেনীকে মনোনয়ন দেয়ার দাবি উঠেছে। আমরা আশা করছি তৃণমূলের মতমতের ভিত্তিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবার শাহীন আকতার রেনীকে সংরক্ষিত আসনে এমপি করবেন।’’
নগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আজিজুল আলম বেন্টু বলেন, গত সিটি করপোরেশন ও সদ্য অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নারীদের নৌকার পক্ষে ঐক্যবদ্ধ করতে গুরুত্বপূর্ন ভূমিকা পালন করেন শাহীন আকতার রেনী। এছাড়া দলীয় কার্যক্রমের পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত থাকার কারণে ইতোমধ্যে তিনি বিশিষ্ট সমাজসেবী হিসেবেও পরিচিতি পেয়েছেন।’’
তিনি বলেন, শাহীন আকতার রেনী সৎ, যোগ্য ও সাংগঠনিক নেত্রী হিসেবে দলের হাইকমান্ডে নিজের অবস্থান তৈরী করে নিয়েছেন। এছাড়াও তিনি জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এএইচএম কামারুজ্জামানের পুত্রবধু। এ সব কারণে শাহীন আকতার রেনীকে সংরক্ষিত আসনের এমপি করতে এবার জোরালো দাবি উঠেছে নগর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে। আমরা আশা করছি আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবার শাহীন আক্তার রেণীর দলীয় ত্যাগের বিষয়টি মূল্যায়ন করবেন।
সংসদে সংরক্ষিত নারী আসনের ৫০টির মধ্যে সংসদের সরাসরি নির্বাচনে প্রাপ্ত আসন অনুপাতে এবার আওয়ামী লীগ ৪৩টি, জাতীয় পার্টি ৪টি, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট ১টি এবং স্বতন্ত্র ও অন্যান্য দল মিলে ২টি আসন পাবে। তবে দল ও জোটগুলো সমঝোতার মাধ্যমে আসন সংখ্যা কমবেশি করতে পারবে।
সংসদ নির্বাচনের ফলাফলের গেজেট প্রকাশের ৯০ দিনের মধ্যে সংরক্ষিত নারী আসনের ভোট করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এ লক্ষ্যে তফসিলের প্রস্তুতি শুরু করেছে নির্বাচনা কমিশন।

জানুয়ারি ১৩
০৩:২৬ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

ডিগ্রী থাকলেও মিলছেনা যোগ্য চাকরি

ডিগ্রী থাকলেও মিলছেনা যোগ্য চাকরি

শাহ্জাদা মিলন: বাংলাদেশের অন্যতম বিভাগীয় শহর রাজশাহী। সিল্কসিটি, আমের রাজধানী হিসেবে পরিচিত সারা দেশে রাজশাহী। তবে এসব পরিচয় ছাপিয়ে রাজশাহী ‘শিক্ষা নগরী’ হিসেবে সবচেয়ে বেশি পরিচিত। অসংখ্য নামিদামি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে এখানে। এর সুফলে রাজশাহীতে বছর বছর বাড়তে ডিগ্রিধারী মানুষের সংখ্যা। তবে সেই অনুপাতে বাড়ছে না কর্মসংস্থান। রাজশাহীতে রয়েছে রাজশাহী

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সানশাইন ডেস্ক : করোনা মহামারিতে সাধারণ ছুটিতে স্বাভাবিক জীবনযাত্রার সঙ্গে স্থগিত ছিল সরকারি-বেসরকারি চাকরির নিয়োগ প্রক্রিয়া। এ কয়েক মাসে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পায়নি দেশের শিক্ষিত বেকার জনগোষ্ঠী। অংশ নিতে পারেনি কোনো নিয়োগ পরীক্ষাতেও। অনেকেরই বয়স পেরিয়ে গেছে ৩০ বছর। স্বাভাবিকভাবেই সরকারি চাকরির আবেদনে সুযোগ শেষ হয়ে যায় তাদের। তবে এ দুর্যোগকালীন

বিস্তারিত