Daily Sunshine

মন্ত্রিসভায় থাকছে না জোট ও মহাজোট

সানশাইন ডেস্ক : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন নতুন সরকারের মন্ত্রিসভায় স্থান পাচ্ছেন মোট ৪৬ জন সদস্য। এরমধ্যে ২৪ জন মন্ত্রী, ১৯ জন প্রতিমন্ত্রী ও তিনজন উপমন্ত্রী। এদের মধ্যে টেকনোক্র্যাট কোটায় দুজন মন্ত্রী ও একজন প্রতিমন্ত্রী রয়েছেন। নতুন সরকারের মন্ত্রিসভার সদস্যরা সবাই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের। গত দুই টার্মের ধারাবাহিকতার ব্যতিক্রম হচ্ছে এবার, নতুন মন্ত্রিসভায় থাকছেন না জোট ও মহাজোটের কোনও সদস্য। টেকনোক্র্যাট কোটায় যে তিনজন মন্ত্রী হচ্ছেন তারাও আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত বা আওয়ামী ঘরানার। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে রোববার প্রকাশিত নতুন মন্ত্রিসভার তালিকা পর্যালোচনা করে এ তথ্য জানা গেছে।
১৪ দল ও জাতীয় পার্টিকে নিয়ে নির্বাচনি জোট গঠন করে ২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে ক্ষমতায় আসে আওয়ামী লীগ। ওই সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে যে সরকার গঠিত হয়, তাতে আওয়ামী লীগ ছাড়াও জোট-মহাজোট শরিকদের স্থান দেওয়া হয়। ওই সময় জাতীয় পার্টির গোলাম মোহাম্মদ কাদের ও সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক দিলীপ বড়ুয়াকে (টেকনোক্র্যাট) মন্ত্রিসভায় স্থান দেওয়া হয়েছিল। ওই সরকারের মেয়াদের দ্বিতীয়ার্ধে জাসদের হাসানুল হক ইনু ও ওয়ার্কার্স পার্টির রাশেদ খান মেননকে আমন্ত্রণ জানানো হলেও রাশেদ খান মেনন প্রথমে মন্ত্রী হননি। তবে সরকারের মেয়াদের শেষভাবে যখন নির্বাচনকালীন সরকার গঠন করা হয় ওই সময় মেনন খান মেনন মন্ত্রিসভায় যুক্ত হন। রওশন এরশাদসহ জাতীয় পার্টির একাধিক সংসদ সদস্য নির্বাচনকালীন সরকারের সঙ্গে ছিলেন।
২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পর আওয়ামী লীগ আবার ক্ষমতায় আসার পরও জাতীয় পার্টিসহ ১৪ দলীয় জোটের শরিকদের মন্ত্রিসভায় রাখা হয়। সোমবার (৭ জানুয়ারি) নতুন মন্ত্রিসভার শপথ না হওয়া পর্যন্ত বর্তমান সরকারে জাতীয় পার্টির আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, মজিবুর রহমান চুন্নু ও মসিউর রহমান রাঙ্গাঁ এবং ১৪ দলীয় জোটের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টির রাশেদ খান মেনন, জাসদের হাসানুল হক ইনু ও জাতীয় পার্টির (জেপি) আনোয়ার হোসেন (মঞ্জু) মন্ত্রিসভায় রয়েছেন।
তবে সোমবার নতুন সরকারের মন্ত্রিসভার যেসব সদস্য শপথ নিতে যাচ্ছেন, সেখানে আওয়ামী লীগের বাইরে শরিক দলের কারও স্থান হচ্ছে না। মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী ও উপমন্ত্রী মিলে ৪৬ সদস্যের মধ্যে ৪৩ জনই আওয়ামী লীগের মনোনয়নে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী হন। বাকি ৩ জন টেকনোক্র্যাট। এদের মধ্যে ইয়াফেস ওসমান আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ দলের ধর্মবিষয়ক উপদেষ্টা। অন্যদিকে, ডাক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তফা জব্বার সরাসরি কোনও রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত নন। তিনি আওয়ামী ঘরানার তথ্যপ্রযুক্তিবিদ হিসেবে পরিচিত।

জানুয়ারি ০৭
০৩:১৪ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

নতুন রূপ পাচ্ছে রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী সোনাদীঘি

নতুন রূপ পাচ্ছে রাজশাহীর ঐতিহ্যবাহী সোনাদীঘি

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনের উদ্যোগে মহানগরীর ঐতিহ্যবাহী সোনাদীঘি নতুন রূপ পেতে যাচ্ছে। একই সাথে সোনাদীঘি ফিরে পাচ্ছে তার হারানোর ঐতিহ্য। সোনাদীঘিকে এখন অন্তত তিন দিক থেকে দেখা যাবে। দিঘিকে কেন্দ্র করে গড়ে তোলা হবে পায়ে হাঁটার পথসহ মসজিদ, এমফি থিয়েটার (উন্মুক্ত মঞ্চ) ও তথ্যপ্রযুক্তি

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সানশাইন ডেস্ক : করোনা মহামারিতে সাধারণ ছুটিতে স্বাভাবিক জীবনযাত্রার সঙ্গে স্থগিত ছিল সরকারি-বেসরকারি চাকরির নিয়োগ প্রক্রিয়া। এ কয়েক মাসে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পায়নি দেশের শিক্ষিত বেকার জনগোষ্ঠী। অংশ নিতে পারেনি কোনো নিয়োগ পরীক্ষাতেও। অনেকেরই বয়স পেরিয়ে গেছে ৩০ বছর। স্বাভাবিকভাবেই সরকারি চাকরির আবেদনে সুযোগ শেষ হয়ে যায় তাদের। তবে এ দুর্যোগকালীন

বিস্তারিত