Daily Sunshine

পানে চাষিদের স্বপ্ন

মাহফুজুর রহমান প্রিন্স, বাগমারা : রাজশাহীর বাগমারায় পান চাষ লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়েছে। পান চাষে উৎপাদনের খরচের চেয়ে তুলনামূলক লাভ বেশি হওয়ায় পান চাষে ঝুঁকে পড়েছেন এলাকার কৃষকরা।
রাজশাহী জেলায় উৎপাদিত পানের প্রায় ৭০ থেকে ৮০ শতাংশই উৎপাদিত হয় বাগমারা উপজেলায়। এছাড়া এখানকার পান স্বাদে অতুলনীয় হওয়ায় এই পানের চাহিদা ব্যাপক। বাগমারায় পানের বিখ্যাত হাট হিসাবে পরিচিত তাহেরপুর ও মোহনগঞ্জ। তাহেরপুর হাটের পান ব্যাপক সুখ্যাতি অর্জন করায় এই হাটে পৌরভবন এলাকায় আলাদা একটি পানের আড়ৎ তৈরি হয়েছে। ইতিমধ্যে নতুন পান ওঠা শুরু করেছে। এভাবে নতুন পান বাজারে আমদানী বেড়ে গেলে আস্তে আস্তে পানের দাম কমতে শুরু করবে বলে খরচা বিক্রেতারা জানান।
উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে উপজেলায় পান চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৪৫০ হেক্টর জমিতে। কিন্তু লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে পানের চাষ হয়েছে সাড়ে ৫০০ হেক্টর জমিতে। আর উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে সাড়ে ৭ হাজার টন। ইতিমেধ্য বাজারে নতুন পান ওঠায় দাম কমতে শুরু করেছে। এখানকার অনাবদী জমিতে পান চাষ হওয়ায় উৎপাদন খরচ অনেকটা কম বলে কৃষকরা প্রতি বছর নতুন নতুন পানবরজ তৈরি করছে। উপজেলার গনিপুর, কাচারী কোয়ালীপাড়া, শ্রীপুর, মাড়িয়া, বাসুপাড়া, মচমইল, গোয়ালকান্দি, তাহেরপুর, যোগিপাড়া সহ বিভিন্ন এলাকায় পান চাষ বৃদ্ধি পেয়েছে। উপজেলার গনিপুর ইউনিয়নের পানচাষী সাইফুল ইসলাম জানান, তিনি চলতি বছর আট বিঘা জমিতে পানবরজ তৈরি করেছেন। এবার তার বরজে পানের ফলন খুবই ভালো হয়েছে। বাজরে পানের দাম ভালো পাচ্ছেন তিনি। বাগমারা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ রাজিবুর রহমান জানান, কৃষকদের পান চাষে উৎসাহিত করতে উপসহকারি কৃষি কর্মকর্তারা মাঠ পর্যায়ে কাজ করে যাচ্ছেন। পানচাষীদের পানের বিভিন্ন রোগবালাই দমন করে পানের বাম্পাার ফলন পেতে বিভিন্ন পরামর্শ দেয়া হচ্ছে।

জানুয়ারি ০৬
০৩:৩০ ২০১৯

আরও খবর