Daily Sunshine

রাজশাহীর ৬টি আসনে ১৬ প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত

স্টাফ রিপোর্টার : একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রাজশাহী ৬টি নির্বাচনী আসনে ১৬ প্রার্থী জামানত হারিয়েছেন। রাজশাহী জেলার ৬টি সংসদীয় আসনে এবার ২৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলো। এদের মধ্যে একজন মাত্র স্বতন্ত্র প্রার্থী, বাকিদের সকলেই দলীয় প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছেন। রাজশাহীতে মোট ভোটার ১৯ লাখ ৪২ হাজার ৫৬২ জন। এর মধ্যে ৭৩ শতাংশ ভোটার ভোট প্রদান করেছেন।
এদিকে নির্বাচন কমিশনের দেয়া তথ্য মতে, ভোটে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে মোট প্রদেয় ভোটের আট ভাগের এক ভাগ ভোট না পেলে সেই প্রার্থির জামানতের অর্থ বাজেয়াপ্ত করা হবে।
বেসরকারি হিসেব মতে, রাজশাহী-১ (তানোর-গোদাগাড়ী) আসনে প্রতিদ্বন্দ্বীতায় ছিলেন মোট ৪ জন প্রার্থী। এদের মধ্যে বিএনপি প্রার্থী আমিনুল হক ও আ’লীগ প্রার্থী ওমর ফারুক চৌধুরীর মধ্যে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়। বাকি ২ জন প্রার্থীরা যে পরিমাণ ভোট পেয়েছেন তাতে করে তাদের জামানতের অর্থ বাজেয়াপ্ত হতে চলেছে। আসনটিতে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আ: মান্নান পেয়েছেন ৩৪৮ ভোট এবং বাসদের প্রার্থী আলফাজ হোসেন পেয়েছেন ৬৭৯ ভোট।
রাজশাহী-২ (সদর) আসনে মোট প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী ছিলেন ৫জন। এদের মধ্যে জামানতের অর্থ হারাতে চলেছেন ৩ জন। সিপিবি’র প্রার্থী এনামুল হক পেয়েছেন ৪৫৩টি ভোট, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী ফয়সাল হোসেন পেয়েছেন ২ হাজার ১২৯টি ভোট, স্বতন্ত্র প্রার্থী সাইফুল ইসলাম পেয়েছেন ২০৭ ভোট। এদিকে আসনটিতে মূল প্রতিদ্বন্দ্বীতা হয়েছে বিএনপি প্রার্থী মিজানুর রহামন মিনু ও আ’লীগের নেতৃত্বার্ধীন মহাজোট প্রার্থী ফজলে হোসেন বাদশার সাথে।
রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনে মোট প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ছিলেন ৫ জন। এদের মধ্যে ৩ জন প্রার্থী জামানতের অর্থ হারাতে চলেছেন। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী ফজলুর রহমান পেয়েছেন ৯২৫ ভোট, এলডিপি প্রার্থী মনিরুজ্জামান পেয়েছেন ৪৯১ ভোট এবং সাম্যবাদী দলের প্রার্থী সাজ্জাদ আলী পেয়েছেন ১৭৩টি ভোট। এদিকে আসনটিতে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে বিএনপি প্রার্থী শফিকুল হক মিলন ও আ’লীগ প্রার্থী আয়েন উদ্দিনের সাথে।
রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনে মোট প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ছিলেন ৪ জন। এদের মধ্যে জামানতের অর্থ হারাতে চলেছেন ৩ জন। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রাথী তাজুল ইসলাম পেয়েছেন ৪৯৮টি ভোট, এলডিপি’র প্রার্থী সিরাজুল ইসলাম পেয়েছেন ৪৩৮টি ভোট এবং বিএনপি’র প্রার্থী আবু হেনা পেয়েছেন ১৪ হাজার ১৫৭টি ভোট। আসনটিতে আ’লীয় সমর্থিত প্রার্থী এনামুল হক ১লাখ ৯০ হাজার ৪১২টি ভোট পেয়ে এগিয়ে রয়েছেন।
রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দুর্গাপুর) আসনে মোট প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ছিলেন ৫ জন। এদর মধ্যে জামানতে অর্থ হারাতে চলেছেন ৩ জন। জাতীয় পার্টির প্রার্থী আবুল হোসেন পেয়েছেন ২হাজার ২৫টি ভোট, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী রুহুল আমিন পেয়েছেন ৬৩৭ ভোট এবং জাকের পার্টিার প্রার্থী শফিকুর ইসলাম পেয়েছেন ৫০৫টি ভোট। এদিকে আসনটিতে মূল প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছে বিএনপি প্রার্থী অধ্যাপক নজুরুল ইসলামের সাথে আ’লীগ প্রার্থী ডা: মনুসর রহমানের।
রাজশাহী-৬ (চারঘাট-বাঘা) আসনে মোট প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ছিলেন ৩ জন। এদের মধ্যে জামানত হারাতে চলেছেন ২ জন। ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী আব্দুস সালাম সুরুজ পেয়েছেন ৭ হাজার ৮৭১টি ভোট এবং জাতীয় পার্টির ইকবাল হোসেন পেয়েছেন ৪হাজার ১৬২টি ভোট। এদিকে বিএনপি’র প্রার্থী আবু সাইদ চাঁদের মোননয়ন বাতিলের কারণে দলটির কোন প্রার্থী আসনটিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারেনি। আর এই সুযোগে ১লাখ ৯৭ হাজার ৪৬৬টি ভোট পেয়ে বিপুল ভোটের ব্যবধানে আসটিতে এগিয়ে রয়েছেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।

জানুয়ারি ০৩
০৩:৩৭ ২০১৯

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

আলোকিত সিটি পেয়েছেন মহানগরবাসী

আলোকিত সিটি পেয়েছেন মহানগরবাসী

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী মহানগরীর শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান চত্বরে দাঁড়িয়ে আছে মাস্তুল আকৃতির মজবুত দুইটি পোল। প্রতিটি পোলের উপর রিং বসিয়ে তার চতুরদিকে বসানো হয়েছে উচ্চমানের এলইডি লাইট। আর সেই লাইটের আলোয় আলোকিত বিস্তৃত এলাকা। শুধু শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান চত্বর নয়, এভাবে মহানগরীর আরো গুরুত্বপূর্ণ ১৪টি চত্বর আলোকিত হয় প্রতি

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সানশাইন ডেস্ক : করোনা মহামারিতে সাধারণ ছুটিতে স্বাভাবিক জীবনযাত্রার সঙ্গে স্থগিত ছিল সরকারি-বেসরকারি চাকরির নিয়োগ প্রক্রিয়া। এ কয়েক মাসে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পায়নি দেশের শিক্ষিত বেকার জনগোষ্ঠী। অংশ নিতে পারেনি কোনো নিয়োগ পরীক্ষাতেও। অনেকেরই বয়স পেরিয়ে গেছে ৩০ বছর। স্বাভাবিকভাবেই সরকারি চাকরির আবেদনে সুযোগ শেষ হয়ে যায় তাদের। তবে এ দুর্যোগকালীন

বিস্তারিত