Daily Sunshine

বাঘায় শ্রী কৃষ্ণের ৫২৪৭ তম জন্মাষ্টমী উৎযাপন

Share

স্টাফ রিপোর্টার,বাঘা : রাজশাহীর বাঘায় প্রতিবারের ন্যায় এবারও ভগবান শ্রী কৃষ্ণের জন্মাষ্টমী উদযাপন করা হয়েছে। বাঘা উপজেলা হিন্দু,বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের উদ্যেগে সোমবার বিকেলে বাঘা উপজেলা দলিল লেখক সমিতির সম্মেলন কক্ষে এ দিবসটি পালন করা হয়।

উপজেলা পূজা উৎযাপন কমিটির সভাপতি সুজিত কুমার বাকু পান্ডের সভাপতিত্বে আয়োজিত ৫২৪৭ তম জন্মাষ্টমী উৎসবে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত থাকার কথা ছিলো চারঘাট-বাঘার গণমানুষের নেতা ও মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আলহাজ শাহরিয়ার আলমের। কিন্ত তিনি রাষ্ট্রীয় কাজে ব্যস্ত থাকায় তাঁর পক্ষ থেকে আসন অলংকিত করে মুল্যবান বক্তব্য উপস্থাপন করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আশরাফুল ইসলাম বাবুল।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, উপজেলা আ’লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক সিরাজুল ইসলাম মন্টু ,বাঘা মোজাহার হোসেন মহিলা ডিগ্রী কলেজের অধ্যাক্ষ নছিম উদ্দিন, উপজেলা হিন্দু,বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক বাবু রাম গোপাল সাহা, শিক্ষক মনি মহন পান্ডে, শিক্ষক নীশি পদ সাহা, বাঘা পৌর আ’লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন, বাঘা উপজেলা পূজা উৎযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক অপূর্ব কুমার সাহা-সহ আরো অনেকে।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর হিন্দু সম্প্রদায়ের কোন মানুষ বাংলাদেশ ছেড়ে অন্য দেশে যায়নি। বিশেষ করে চারঘাট-বাঘায় আমরা যাকে সাংসদ হিসাবে পেয়েছি তিনি একজন স্বচ্ছ ,সুন্দর ও আদর্শবান মানুষ। গত তিন-তিনবার নির্বাচিত এ সাংসদের আমলে চারঘাট-বাঘায় যে পরিমান উন্নয়ন সাধিত হয়েছে তা বিগত কোন সরকার আমলে হয়নি। তিনি আমাদের গর্ব এবং অহংকার।

বক্তারা বলেন, ধর্ম যার-যার, দেশ এবং উৎসব সবার। বাংলাদেশ পৃথিবীর একমাত্র রাষ্ট্র যেখানে মুসলিম, হিন্দৃ, বৌদ্ধ এবং খিস্টানদের সরকারি ভাবে ছুটি দেয়া হয়। যা পৃথিবীর অন্য কোন দেশে নেই। এর সূচনা করে ছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। আর এটি ধরে রেখেছেন তাঁর সুযোগ্য কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা।

কারণ তাঁর দৃষ্টিতে সংবিধান সবার জন্য সমান। এই ধর্মীয় সম্প্রীতি ধরে রাখার জন্য শেখ হাসিনার উপর বাব-বার হামলা করা হয়েছে। আমরা ২১ আগষ্ঠ গ্রেনেড হামালার কথা ভুলিনী। সেদিন শেখ হাসিনাকে মারতে না পারলেও অনেক নিরীহ মানুষকে খুন করা হয়েছিল । এটা আমাদের কাম্য নয়।

বক্তারা আরো বলেন, ঘাতকরা এ মাসে একটি পরিবার থেকে ১৭ জনকে হত্যা করেও বঙ্গবন্ধুর রক্ত মুছে ফেলতে পারেনি। সেদিন বেঁচে ছিলেন তাঁর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহেনা। এরা সত্যিকারের প্রদ্বীপ। আমাদের বিশ্বাস, সকল প্রদ্বীপ নিভে যাবে কিন্তু বেঁচে থাকবে এই দুই প্রদ্বীপ । কারণ তাঁরা পিতার আদর্শ ধারণ করে এ দেশের মাটি ও মানুষকে ভালোবেসে একের-পর এক উন্নয়ন করে চলেছেন।

আগস্ট ৩০
২০:৩৪ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]