Daily Sunshine

বগুড়া শেরপুরে ইঁদুর-পোকায় খাচ্ছে ঈদুল আযহার বরাদ্দ ভিজিএফের চাল !

Share
মিন্টু ইসলাম (শেরপুর বগুড়া) প্রতিনিধিঃ ঈদুল আজহা উপলক্ষে বগুড়ার শেরপুর উপজেলার শাহবন্দেগী ইউনিয়নে দরিদ্রদের জন্য বরাদ্দ দেয়া ভিজিএফের চাল সম্পূর্ণ বিতরণ করা হয়নি। স্থানীয় রাজনৈতিক নেতা এবং ইউপি চেয়ারম্যানের দ্বন্দ্বে চার হাজার কেজি চাল ইউনিয়ন পরিষদের অস্থায়ী কার্যালয়ের গোডাউনে পড়ে রয়েছে।
ঈদের পর ১৪ দিন পেরিয়ে গেলেও চাল বিতরণ করা সম্ভব হয়নি। ফলে গোডাউনে পড়ে থাকা দুস্থদের ভিজিএফের চাল খাচ্ছে ইঁদুর আর পোকায়। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় সূত্রে জানা যায়, ঈদুল আজহা উপলক্ষে হতদরিদ্রদের সামাজিক নিরাপত্তাবেষ্টনী কার্যক্রম ভালনারেবল গ্রুপ ফিডিং (ভিজিএফ) কর্মসূচির আওতায় এই উপজেলার দশটি ইউনিয়নে ২৪ হাজার ৯৮০টি পরিবারের জন্য দশ কেজি করে চাল বরাদ্দ দেয়া হয়।
এরই ধারাবাহিকতায় শেরপুর শাহবন্দেগী ইউনিয়নে ২ হাজার ৪৯৮টি পরিবারের অনুকূলে ২৪ দশমিক ৯৮০ মেট্রিক টন চাল বরাদ্দ দেয়া হয়। কিন্তু চাল বিতরণের কার্ড নিয়ে স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরোধ তৈরি হয়। এতে বরাদ্দ পাওয়া ভিজিএফের চাল সম্পূর্ণ বিতরণ করা সম্ভব হয়নি।
ফলে চার হাজার কেজি চাল পরিষদের গোডাউনেই পড়ে রয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শাহবন্দেগী ইউনিয়নের একাধিক মেম্বার (সদস্য) বলেন, ভিজিএফের চাল বিতরণে ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে। বিতরণের মাস্টাররোলে যাদের নাম রয়েছে তাদের বেশিরভাগ দুস্থ মানুষই চাল পাননি।
এছাড়া একই ব্যক্তির নিকট থেকে একাধিক স্বাক্ষর ও টিপসই নিয়ে চাল উত্তোলন দেখিয়ে তা কালোবাজারে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে। পরবর্তীতে আ. লীগ নেতাদের বাধার মুখে চাল বিতরণ বন্ধ হয়ে যায় বলে জানান তারা। ইউপি চেয়ারম্যান আল আমিন মন্ডল এ বিষয়ে বলেন, ‘ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নেতারা ভিজিএফের সাতশ কার্ড দাবি করেন। তবে তাদের চারশ কার্ড দেয়া হয়। কিন্তু দুস্থদের মধ্যে এসব কার্ড বিতরণ করা হয়নি। তাই কেউ চাল নিতে আসেননি।
এ কারণে ওইসব কার্ডের চাল পরিষদের গোডাউনেই পড়ে আছে।
তিনি আরও বলেন, ‘বিগত সময়ে দলীয় নেতাকর্মীদের যেসব কার্ড দেয়া হয়েছিল তা কালোবাজারে বিক্রি করে দেয়া হয়। এবারও সেই কাজই করা হয়।
তাই কার্ড পাওয়া দুস্থ ব্যক্তিদের না এনে দুয়েকজন নেতা তাদের ভাগের ভিজিএফের সব চাল নিতে এলে তাদের দেয়া হয়নি। একপর্যায়ে চাল না পেয়ে বাধার সৃষ্টি করেন তারা। পরবর্তীতে তাদের কার্ডের চালগুলো রেখে বাকি চাল গরিব মানুষের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। চাল বিতরণে কোনো অনিয়ম-দুর্নীতি হয়নি বলেও দাবি করেন তিনি।
তবে শাহবন্দেগী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান রিপন এসব অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘ভিজিএফের চাল বিতরণে চেয়ারম্যান নিজেই অনিয়ম করেছেন। মাস্টাররোলে ভুয়া নাম তালিকা করে এই চাল বিতরণ দেখিয়েছেন। আমরা কেবল চেয়ারম্যানের ওইসব অনিয়ম-দুর্নীতির প্রতিবাদ জানিয়েছি। এছাড়া দলীয়ভাগ হিসেবে আমাদের কোনো ভিজিএফের কার্ডই দেয়া হয়নি। তাই কার্ড বিতরণ না করার অভিযোগ সম্পূর্ণ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।
ইউপি সচিব ইকবাল হোসেন দুলাল বলেন, ‘সামান্য জটিলতার কারণে চাল বিতরণ করা সম্ভব হয়নি। তবে অচিরেই পরিষদের বৈঠক ডেকে বিষয়টি সমাধানের পাশাপাশি ওইসব চাল বিতরণ করা হবে। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শামছুন্নাহার শিউলী ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘দ্রুত চালগুলো বিতরণের জন্য ইউনিয়ন পরিষদে মিটিং ডাকতে বলা হয়েছে। সেখানে সিদ্ধান্ত নিয়ে চালগুলো বিতরণ করা হবে।
শেরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ময়নুল ইসলাম এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘ঈদের দুইদিন আগে ভিজিএফের চালগুলো বিতরণ শুরু করা হয়। কিন্তু সেখানে চেয়ারম্যান-মেম্বারদের মধ্যে বিরোধ রয়েছে। পাশাপাশি স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতাদের সঙ্গেও চেয়ারম্যান দ্বন্দ্বে জড়িয়ে পড়েন। পরবর্তীতে চাল বিতরণে বিশৃঙ্খলার খবর পেয়েই আমি ঘটনাস্থলে যাই। জটিলতা নিরসন করে চাল বিতরণের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
আগস্ট ০৬
১৮:০৮ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]