Daily Sunshine

অস্ট্রেলিয়ার দম্ভ চূর্ণ করে প্রথম টি-২০ জয় বাংলাদেশের

Share

শাহ্জাদা মিলন

বায়োবাবল সুরক্ষা, ক্যামেরাম্যানদের মাঠে প্রবেশ নিষেধ, পুরো হোটেল বুকিং দেয়া,আরো কতো শর্ত জুড়ে দেয়া হয়েছিলো বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাথে ৫টি টি-২০ ম্যাচ খেলার জন্য। ক্রীড়াপ্রেমি, খেলোয়ার, নীতিনির্ধারকরা এরুপ আচরণে মন থেকে নাখোশ থাকলেও অস্ট্রেলিয়ার টিমের শর্ত মেনে সব করতে রাজি হয়েছে। সবার আশা ছিলো এমন কিছু একটা করুক যেনো অস্ট্রেলিয়ার দম্ভ নিভে যাক। মিরপুরের হোম অব গ্রাউন্ড সেই আশা প্রথম টি-২০ ম্যাচেই বাংলাদেশি সকল ক্রিকেট প্রেমিদের মনে আশা পূরণ করে দিয়েছে। প্রথমবারের হারিয়েছে টিম অস্ট্রেলিয়াকে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল।

বাংলাদেশ আগে ব্যাট করে মাঝারি স্কোর গড়েও ২৩ রানে হারিয়ে দম্ভ চূর্ণবিচূর্ণ করে দিয়েছে অসিদের। এ জয়ের ফলে ৫ ম্যাচ সিরিজের ১ -০ তে এগিয়ে গেলো টিম টাইগার।
মঙ্গলবার বিকেলে মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে প্রথমে ব্যাট করে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৩১ রানের সহজ লক্ষ্য দেয় বাংলাদেশ।

তওব সুনিয়ন্ত্রিত স্পিন এ্যাটাকে প্রথম তিন ওভারে তিন উইকেট হারিয়ে ব্যাকফুটে চলে যায় অসিরা । সেখান থেকে আর ঘুরে দাড়াতে পারেনি তারা। ফলাফল ২৩ রানের হার।
ইনিংসের প্রথম বলে উইকেট হারায় অস্ট্রেলিয়া। মেহেদী হাসানের স্পিন বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন অস্ট্রেলিয়ান ওপেনার অ্যালেক্স কেরি।

দলীয় ১০ রানে স্টাম্পিং হয়ে ফেরেন অন্য ওপেনার জশ পিলিপি। মেহেদির মতো সাকিব আল হাসানও প্রথম বলে সাফল্য পান। এ বাঁ-হাতি স্পিনারের বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন ময়েস হেনরিক্স।

তিন উইকেট পতনের পর অধিনায়ক ম্যাথু ওয়েডকে সঙ্গে নিয়ে দলের হাল ধরার চেষ্টা করেন মিসেল মার্শ। এজুটি আশার আলো দেখা”িছলো অসিদের। তবে চতুর্থ উইকেটে ৩৮ রানের জুটি গড়ে নাসুম আহমেদের দ্বিতীয় শিকার হন অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক ওয়েড। তিনি ২৩ বলে মাত্র ১৩ রান করে ফেরেন। এর পর থেকেই খেলা বাংলাদেশের অনুকূলে আসতে থাকে। শেষ পর্যন্ত ব্যটসম্যানরা যাওয়া আসায় ব্যস্ত হলে ১৬ ওভারে জয়ের স্বাদ পেতে শুরু করে। শেষ পর্যন্ত আনুষ্ঠানিকতার জন্য ২০ ওভার পর্যন্ত ম্যাচের পরিধি হয় তবে জয় অধরা রেখে ১০৮ রানে অলআউট হয়ে যায় অসিরা।

তবে বাংলাদেশি ব্যাটশম্যানরাও নামের প্রতি সুবিচার করতে পারেন নি। মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই বিপাকে পড়ে যায় বাংলাদেশ। ৩.৩ ওভারে দলীয় ১৫ রানে জশ হ্যাজলউডের গতির বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন সৌম্য। ৯ বলে মাত্র ২ রান করে ফেরেন এ ওপেনার। তিনি এমনভাবে আউট হলেন মনে হলো বলকে যেভাবেই হোক স্টাম্পে লাগাতেই হবে।
বড় স্কোরের আশা দেখানো ওপেনার নাঈমও দলীয় ৩৭ রানে ২৯ বলে দুই চার ও দুই ছক্কায় ৩০ রান করে অ্যাডাম জাম্পার স্পিনে বিভ্রান্ত হয়ে ফিরে যান। এরপর ব্যাটিংয়ে নেমে জশ হ্যাজলউডের করা আগের বলেটি ডিপ ব্যাকওয়ার্ড স্কয়ারের ওপর দিয়ে ছক্কা হাঁকান বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

কিন্তু পরের বলে লং অপের ওপর দিয়ে বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে হেনরিকসের হাতে ক্যাচ তুলে দেন রিয়াদ। ১২.২ ওভারে দলীয় ৭৩ রানে তৃতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে সাজঘরে ফেরেন অধিনায়ক (২০)। ব্যাটিংয়ে নেমে ৩ বলে ৩ রান করা উইকেট কিপার নুরুল হাসান সোহান ফেরেন ৪ বলে ৩ রান করে।

১৬.৬ ওভারে দলীয় ১০৪ রানে হ্যাজলউডের তৃতীয় শিকারে পরিনত হয়ে সাজঘরে ফেরেন সাকিব আল হাসান। তার আগে ধীরগতিতে ব্যাটিং করে ৩৩ বলে তিন চারে ৩৬ রান করেন সাবেক এ অধিনায়ক।

ছয় নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ে নেমে শামিম হোসেন হতাশ করেন সবাইকে। তিনিও ৩ বলে ৪ রান করে মিসেল স্টার্কের বলে বোল্ড হন । শেষ দিকে আফিফ হোসেন ১৭ বলে তিন বাউন্ডারিতে করেন ২৩ রান করলে বাংলাদেশ দল মাঝারি স্কোর দাড় করাতে সক্ষম হয়।

দুর্দান্ত বোলিং করে ম্যাচ সেরা হয়েছেন নাসুম আহমেদ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ: ২০ ওভারে ১৩১/৭ (নাঈম ৩০, সৌম্য ২, সাকিব ৩৬, মাহমুদউল্লাহ ২০, সোহান ৩, আফিফ ২৩, শামীম ৪, মেহেদি ৭*; স্টার্ক ৪-০-৩৩-২, হেইজেলউড ৪-০-২৪-৩, জ্যাম্পা ৪-০-২৮-১, টাই ৪-০-২২-১, অ্যাগার ৪-০-২২-০)

অস্ট্রেলিয়া: ২০ ওভারে ১০৮ (কেয়ারি ০, ফিলিপি ৯, মার্শ ৪৫, হেনরিকেস ১, ওয়েড ১৩, অ্যাগার ৭, টার্নার ৮, স্টার্ক ১৪, টাই ০, জ্যাম্পা ০, হেইজেলউড ২*; মেহেদি ৪-০-২২-১, নাসুম ৪-০-১৯-৪, সাকিব ৪-০-২৪-১, মুস্তাফিজ ৪-০-১৬-২, শরিফুল ৩-০-১৯-২, মাহমুদউল্লাহ ১-০-৬-০)

ফলাফল : বাংলাদেশ ক্রিকেট দল ২৩ রানে জয়ী

আগস্ট ০৩
২২:৩৮ ২০২১

আরও খবর

[TheChamp-FB-Comments]