Daily Sunshine

চলনবিলে মা মাছ শিকারে মহোৎসব

Share

ভাঙ্গুড়া প্রতিনিধি: দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম বিল ও মৎস্য ভান্ডার হিসাবে খ্যাত চলনবিলে এসেছে বর্ষার নতুন পানি। নতুন পানি আসার সাথে, সাথে বিল ও নদী-নালায় মা মাছ ধরতে নেমে পড়েছে জেলেরা। নিষিদ্ধ বিভিন্ন জাল দিয়ে অবাধে মাছ শিকার করছে তারা।

কিন্তু স্থানীয় মৎস্য অধিদপ্তর বা প্রশাসন এ ব্যাপারে তেমন কোন পদক্ষেপ গ্রহন করছেন না। মা এবং ডিমওয়ালা মাছ নিধন বন্ধে এখনি প্রশাসন পদক্ষেপ না নিলে আগামী দিনে চলনবিলে মাছ উৎপাদনে বড় ধরনের সংকট দেখা দিতে পারে বলে ধারনা বিশেষজ্ঞদের।

পাবনা, নাটোর ও সিরাজগঞ্জ জেলার উপজেলা নিয়ে গঠিত দেশের চলনবিলাঞ্চলে এখন চলছে অবৈধ মাছ শিকার। আর এক শ্রেণির অসাধু জেলেরা বিভিন্ন পয়েন্টে বাদাই, চায়নাও কারেন্ট জালসহ মাছ ধরার উপকরণ দিয়ে দিনে ও রাতে মাছ শিকার করে প্রকাশ্যে হাট-বাজারে বিক্রি করছে। গত এক সপ্তাহে ভাঙ্গুড়া চাটমোহর, গুরদাসপুর, সিংড়া, ফরিদপুর উপজেলার বিভিন্ন নদী ও খালে বণ্যার পানি আসায় হাট-বাজার, মাছের আড়তে দেখা গেছে ডিমে পেট ভরা টেংরা, ফাতাসী, পুঁটি, মলা, বোয়াল, শোল মাগুরসহ বিভিন্ন দেশীয় প্রজাতীর ডিমওয়ালা মা মাছ প্রকাশ্যে বিক্রি করছে।

স্থানীয় মৎস্য অফিস সূত্র থেকে জানা যায় সাধারণত জুন-জুলাই মাসে ডিম ছাড়ে মা মাছগুলো। বর্ষা শুরু হলেই চলনবিলের মাছগুলো ডিম ফোটাতে থাকে। কিন্তু এ সময় মাছ ধরা একদম নিষিদ্ধ।

১৯৫৫ সালে মৎস্য আইন অনুযায়ী ডিম এবং মা মাছগুলো শিকার আইন গতভাবে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু বিলে পানি আসার সাথে, সাথে মাছ শিকারে নেমে পড়েন এলাকার লোকজন ও মৎস্য জীবিরা।

 

সানশাইন/০৯ জুলাই/রনি

জুলাই ০৯
২১:১২ ২০২১

আরও খবর