Daily Sunshine

বিদেশে আম রপ্তানির মাধ্যমে আশার আলো দেখছেন বাঘার আম চাষিরা

Share

নুরুজ্জামান,বাঘা :রাস্তার দুই ধারে সারি-সারি আম বাগান আর সুস্বাদু-বাহারি জাতের আমের কথা উঠলেই চলে আসে রাজশাহী অঞ্চলের নাম। এই জেলাকে আমের জন্য বিখ্যাত বলা হলেও মূলত আম প্রধান অঞ্চল হিসাবে খ্যাত জেলার বাঘা উপজেলা। গত তিন বছর ধরে এই উপজেলার আম রপ্তানী হচ্ছে বিশ্বের ৬ টি দেশে। এর মধ্যে শুক্রবার (২৮-মে) প্রথম চালানে ৩ হাজার কেজি হিমসাগর আম পাঠানো হয়েছে ইংল্যান্ডে।

সূত্রে জানা গেছে, ডিপ ইন্টারন্যাশনাল নিয়েছেন ৬ শ কেজি, তাছফিক ইন্টারন্যাশনাল ১ হাজার কেজি, ফারডন ইন্টারন্যাশনাল ৬ শ’ কেজি এবং এন এই বিসি অপরেশন ৪ শ’ কেজি সর্ব মোট ৩ হাজার কেজি ফ্রেস আম রপাতানী করা হয়েছে। প্রথম চালানের এই আম গুলো সর্বরাহ করেছেন বাঘা উপজেলার পাকুড়িয়া গ্রামের প্রশিক্ষন প্রাপ্ত লিড ফার্মার(কৃষক) শফিকুল ইসলাম সানা। করোনা সংক্রমণের মধ্যেও দেশের বাইরে আম রপ্তানী করতে পারায় উপজেলার অন্যান্য আম চাষিদের মনে দেখা দিয়েছে আশার আলো। দেশের বাইরে আম রপ্তানী করতে পারায় যারা এ তালিকায় রয়েছেন তাদের অনেকেই স্থানী সাংসদ ও পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমকে ধন্যবাদ জ্ঞ্যাপন করেছেন।

বাঘা উপজেলা কৃষি অফিসার শফিউল্লাহ সুলতান(জনি)জানান, প্রতিবারের ন্যায় বাঘার সু-মিষ্ট ও দেশ বিখ্যাত আম এবারও দেশের বাইরে রপ্তানী করা শুরু হয়েছে। বিশেষ করে ইংল্যান্ড, নেদারল্যান্ড, সুইডেন, নরওয়ে, পর্তুগাল এবং ফ্রান্স-সহ রাশিয়াতে পাঠানো হবে এই উপজেলার সুনামধন্য গোপাল ভোগ,হিমসাগার,আম্রপালি, ল্যাংড়া এবং ফজলি আম। ইতোমধ্যে সম্পুর্ণ ফরমালিন ও কেমিক্যাল মুক্ত এই আম পাঠানোর জন্য রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ সহ স্থানীয় কৃষকদের আহবান জানিয়ে গেছেন স্থানীয় সাংসদের ছোট ভাই সাইফুল আলম বাদল।

উপজেলার সফল আম চাষী কলিকগ্রামের আশরাফুদৌল্লা, বাঘার মুক্তার হোসেন এবং আড়পাড়ার মহাসিন আলী সহ অনেকেই বলেন , আমরা গত তিন বছর থেকে দেশের বাইরে আম পাঠাচ্ছি। এর মধ্যে গতবার ভাল দাম পেয়েছি। তারা বলেন, যদি এ বছর অন্যবারের চেয়ে বেশি পরিমান আম রপ্তানী করতে পারি তাহলে আগামি বছর থেকে আমের উৎপাদন ও যত্ন দ্বিগুন হবে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, আম রফতানির জন্য উপজেলার ৫০ জন চাষিকে প্রশিণের মাধ্যমে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। উত্তম কৃষি ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে বাগানে উৎপাদিত ও তিকর রাসায়নিক মুক্ত আম ঢাকায় (বিএসটিআই ল্যাবে) নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এর পরে বিদেশে রপ্তানি করা হয়। তাঁরা আরো জানান, রাজশাহী জেলাতে ১৭০০০ হেক্টর আম বাগানের মধ্যে অর্ধেক অর্থাৎ ৮৫০০ হেক্টর জমিতে আম বাগান রয়েছে বাঘা উপজেলায়। এখানকার প্রধান অর্থকারী ফসল আম। এ অঞ্চলের কৃষকরা প্রতি বছর আমি বিক্রী করে আয় করে থাকেন ১৩ থেকে ১৪ শ কোটি টাকা।

মে ২৯
১০:১৫ ২০২১

আরও খবর