Daily Sunshine

মুশতাকের মৃত্যুকে ঘিরে আন্দোলনে বাতাস দিচ্ছে জঙ্গিগোষ্ঠী: তথ্যমন্ত্রী

Share

সানশাইন ডেস্ক : তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, মুশতাক আহমেদের মৃত্যুকে ঘিরে আন্দোলন নিয়ে পেছন থেকে যারা বাতাস দিচ্ছে, আর ঘাপটি মেরে বসে আছে, তারা জঙ্গিগোষ্ঠী ও স্বাধীনতার পরাজিত শক্তি।

বুধবার (৩ মার্চ) জাতীয় প্রেসক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত সদ্য প্রয়াত অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামানের স্মরণসভায় তিনি এসব কথা বলেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বাংলাদেশে যে পক্ষগুলো আজকে এটা নিয়ে মাঠ গরম করার অপচেষ্টা করছে, তাদের পেছন থেকে যারা বাতাস দিচ্ছে, আর ঘাপটি মেরে বসে আছে, সেগুলো হচ্ছে জঙ্গিগোষ্ঠী, স্বাধীনতার পরাজিত শক্তি। এই প্রেক্ষাপটে সাংস্কৃতিক কর্মীদের আরও ঐক্যবদ্ধ হওয়া প্রয়োজন। সারা দেশে সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড ছড়িয়ে দেওয়া প্রয়োজন। তাহলে আমাদের নতুন প্রজন্ম এই জঙ্গিগোষ্ঠীর হাত থেকে রক্ষা পাবে এবং সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে আমাদের দেশে নানাভাবে যে অপপ্রচার হয়, সেগুলো বন্ধ করা সহায়ক হবে।’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর মার্জিত হলেও তিনি মিথ্যা কথা বলেন মন্তব্য করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘‘আমি কাগজে দেখলাম, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব একটি কথা বলেছেন। তিনি বলেছেন, ‘৫০ বছরে আমরা শুধু দলাদলি করেছি, দেশ আগায়নি’। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের উদ্দেশে মন্ত্রী বলেন, ‘আজকে দেশ তো অনেকদূর এগিয়ে গেছে। আপনি একজন শিক্ষিত মানুষ হয়ে এটা অনুধাবন করতে পারলেন না। আপনি ঢাকা কলেজে পড়াতেন। একজন শিক্ষিত মানুষ, একজন মার্জিত মানুষও বটে। যদিও বিএনপির পক্ষে কথা বলতে গিয়ে অহরহ মিথ্যা কথা বলেন। দেশ এগিয়ে গেলো, স্বল্পোন্নত থেকে মধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হলো। জাতিসংঘ সেটি সার্টিফায়েড করেছে। এ তথ্যগুলো আপনার কাছে নাই, আমি অবাক হচ্ছি। আসলে বিষয়টা হচ্ছে তা নয়। বিএনপি যদি এই নেতিবাচক রাজনীতি আর দলাদলি না করতো, তাহলে বাংলাদেশ যে আজকে অনেকদূর এগিয়ে গেছে, তার চেয়েও অনেক বেশিদূর এগিয়ে যেতে পারতো।’’

মুশতাকের অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যু নিয়ে একটি পক্ষ মিডিয়াকে সরগরম রাখছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ‘একটি অনাকাঙ্ক্ষিত মৃত্যুকে নিয়ে প্রতিদিন প্রেসক্লাবের সামনে নানা ধরনের অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হচ্ছে। ১৯৭৫ সালের ৩ নভেম্বর কারাগারের অভ্যন্তরে চার জাতীয় নেতাকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। সেনাবাহিনীর বিপথগামী সদস্যরা সেখানে গিয়ে গুলি করে হত্যা করেছিল। তখন সেনাপ্রধান ছিলেন জিয়াউর রহমান। মোশতাকের নির্দেশে জিয়াউর রহমানের পৃষ্ঠপোষকতায় ৩ নভেম্বর ওই হত্যাকাণ্ড সংঘটিত করা হয়েছিল। আজকে সেই কথা কেউ বলে না। ১৯৭৫ সালের পর কারাগারে অসংখ্য নেতাকে নির্যাতন করে হত্যা করা হয়েছিল। যাদের প্রতিষ্ঠাতা সেই জিয়াউর রহমান, তারা এগুলো নিয়ে কথা বলে না। কারাগারের যেকোনও মৃত্যু অবশ্যই অনভিপ্রেত ও অনাকাঙ্ক্ষিত। মুশতাক আহমেদের মৃত্যুটাও অনভিপ্রেত এবং আমি ব্যথিত এবং এটি দিয়ে যেভাবে মাঠ গরম করা হচ্ছে, সেটি আরও অনভিপ্রেত।’

তদন্ত প্রতিবেদনের পরই সরকার ব্যবস্থা নেবে জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘পানি ঘোলা করে লাভ হবে না। এ বিষয়ে তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তবে তার মৃত্যু স্বাভাবিক হয়েছে, নাকি কারা কর্তৃপক্ষের অবহেলা ছিল, নাকি অন্য কোনও কারণ ছিল—সেগুলো তদন্তে বেরিয়ে আসবে। তারপর সরকার ব্যবস্থা নেবে। একজনের মৃত্যুর কারণে ওই আইন বাতিল করতে হবে—এটা তো আইনের দোষ না। আইন সবার জন্য। ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট সকল মানুষের ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য। অবশ্য এ আইনের যেন অপব্যবহার না হয়, সেজন্য আমরা সতর্ক আছি। অপব্যবহার কাম্য নয়, সরকার সে ব্যাপারে সতর্ক আছে। নানা আইনে নানাজন গ্রেফতার হয়, তারপর কারাগারে থাকে এবং অনেকের সেখানে মৃত্যু হয়। তাহলে এখন কি সেই আইনগুলো বাতিল করতে হবে?’

এটিএম শামসুজ্জামানকে স্মরণ করে মন্ত্রী বলেন, ‘আমরা কখনও ভাবিনি তিনি হঠাৎ করে আমাদের এভাবে ছেড়ে চলে যাবেন। কারণ, এর আগেও তিনি বহুবার অসুস্থ হয়েছেন এবং সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। কিন্তু হঠাৎ সকাল বেলা জানলাম, তিনি ইন্তেকাল করেছেন। এটি মাথায় বজ্রপাতের মতো লেগেছে। তার মৃত্যু আমাদের সাংস্কৃতিক অঙ্গনের জন্য একটি অপূরণীয় ক্ষতি।’

আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সহ-সভাপতি রফিকুল আলম, সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা প্রমুখ।

 

 

সানশাইন/০৩ মার্চ/রনি

মার্চ ০৩
১৯:৫০ ২০২১

আরও খবর

Subcribe Youtube Channel

বিশেষ সংবাদ

কী বন্ধ, কী খোলা জেনে নিন

কী বন্ধ, কী খোলা জেনে নিন

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে ১৪ এপ্রিল থেকে ২১ এপ্রিল পর্যন্ত দেশের সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকছে, বন্ধ থাকছে যানবাহনও। বিধি-নিষেধ থাকছে সার্বিক কার্যাবলী ও চলাচলেও। সোমবার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। বন্ধ থাকছে: সকল সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি অফিস/আর্থিক প্রতিষ্ঠান। সকল প্রকার পরিবহন (সড়ক, নৌ, রেল, অভ্যন্তরীণ

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

টিকা কার্ড নিয়ে যাতায়াত করা যাবে

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির অবনতির কারণে ১৪ এপ্রিল সকাল ৬টা থেকে ২১ এপ্রিল মধ্যরাত পর্যন্ত বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে। তবে এ সময়ে টিকা কার্ড নিয়ে টিকা গ্রহণের জন্য যাতায়াত করা যাবে বলে জানানো হয়েছে। সোমবার (১২ এপ্রিল) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, অতি জরুরি প্রয়োজন

বিস্তারিত