Daily Sunshine

ইউপি নির্বাচনের তোড়জোড় স্থানীয় সরকারে

Share

সানশাইন ডেস্ক : করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের কারণে সারাদেশে সব নির্বাচন বন্ধের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় গত ২১ মার্চ। তবে করোনার প্রকোপ কিছুটা কমার কারণে পাঁচ বছর পূর্ণ হওয়ায় আগামী মার্চে মেয়াদ উত্তীর্ণ ইউনিয়ন পরিষদগুলোতে নির্বাচনের তোড়জোড় শুরু করেছে স্থানীয় সরকার বিভাগ।

নির্বাচন কমিশন বলছে, চলতি বছরের নভেম্বর থেকে সব নির্বাচন যথানিয়মে অনুষ্ঠিত হবে।

ইতোমধ্যে নির্বাচনের উপযোগী ইউনিয়ন পরিষদের তালিকা চেয়ে দেশের সব জেলা প্রশাসকদের চিঠি দিয়েছে স্থানীয় সরকার বিভাগ।

বিশ্বব্যাপী প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের মধ্যে দেশে প্রথম ৮ মার্চ এই ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর গত ২১ মার্চ প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদার সভাপতিত্বে বৈঠকে দেশে সব ধরনের নির্বাচন স্থগিত করা হয়। ভাইরাসটির প্রকোপ থাকা পর্যন্ত এ সিদ্ধান্ত বহাল থাকবে বলে জানায় কমিশন।

করোনা ভাইরাসের কারণে ২৯ মার্চ অনুষ্ঠেয় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন (চসিক) নির্বাচন স্থগিত হয়ে যায়। একইসঙ্গে স্থগিত হয়ে যায় বগুড়া-১ ও যশোর-৬ আসনের উপ-নির্বাচনও।

তবে আগামী মার্চে দেশের ইউনিয়ন পরিষদগুলোতে নির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান এবং সদস্যদের মেয়াদ শেষ হতে যাচ্ছে। এ অবস্থায় নির্বাচনের প্রয়োজনীয়তায় স্থানীয় সরকার বিভাগ অধীন ইউনিয়ন পরিষদগুলোর তথ্য জানতে চেয়েছে।

গত ৬ সেপ্টেম্বর স্থানীয় সরকার বিভাগ জেলা প্রশাসকদের চিঠি পাঠায়।

চিঠিতে বলা হয়েছে, স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন, ২০০৯ এর ২৯ (৩) ধারা অনুযায়ী পরিষদ গঠনের জন্য কোনো সাধারণ নির্বাচন ওই পরিষদের জন্য অনুষ্ঠিত পরবর্তী সাধারণ নির্বাচনের তারিখ থেকে পাঁচ বছর পূর্ণ হবার ১৮০ দিনের মধ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠানের আইনি বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

সর্বশেষ ২০১৬ সালের মার্চ থেকে জুন মাসে ছয় ধাপে সারাদেশে ইউনিয়ন পরিষদসমূহের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছিল জানিয়ে চিঠিতে বলা হয়েছে, সেই অনুযায়ী ২০২১ সালের মার্চ থেকে ইউনিয়ন পরিষদসমূহের পর্যায়ক্রমে মেয়াদপূর্তি হবে।

স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসচিব মোহাম্মদ ইফতেখার আহমদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত চিঠিতে নির্বাচন উপযোগী ইউনিয়ন পরিষদসমূহের নামের তালিকা ১০ কার্যদিবসের মধ্যে আবশ্যিকভাবে পাঠানোর জন্য জেলা প্রশাসকদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ছক মোতাবেক জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদের নাম, সর্বশেষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার তারিখ, প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার তারিখ, নির্বাচনের মেয়াদ শেষ হওয়ার পূর্ববর্তী ১৮০ দিন শুরু হওয়ার তারিখ, নির্বাচনের তারিখ থেকে মেয়াদ শেষের তারিখ (নির্বাচনের তারিখ থেকে ৫ বছর) এবং সীমানা বা মামলা সংক্রান্ত অন্য কোনো জটিলতা আছে কিনা তা জানতে চাওয়া হয়েছে।

গুরুত্ব বিবেচনায় নিয়ে বিশেষ বাহক মারফত প্রয়োজনীয় তথ্যের হার্ডকপি এবং পেনড্রাইভে সফট কপি পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

অন্যদিকে, নির্বাচন কমিশন জানিয়েছে তারা আগামী নভেম্বর থেকে সব ধরনের নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছে।

গত ১০ সেপ্টেম্বর নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিব মো. আলমগীর জানিয়েছেন, চলতি বছরের নভেম্বর থেকে সব নির্বাচন যথানিয়মে অনুষ্ঠিত হবে। আর অক্টোবর মাস থেকে অনুষ্ঠিত হবে ঝুলে থাকা নির্বাচন।

ইসি সচিব বলেন, করোনা মহামারির কারণে এখন স্থানীয় সরকারের অনেকগুলো নির্বাচন আটকে আছে। ঝুলে থাকা নির্বাচনগুলো অক্টোবর থেকে সম্পন্ন করা হবে। আর নভেম্বর থেকে কোনো ভোট আর স্থগিত করা হবে না। যখন যে নির্বাচন সামনে আসবে সেটা আয়োজন করে ফেলা হবে।

এখন স্থানীয় সরকারের দুই শতাধিক পদে নির্বাচন করার আছে ইসির। এছাড়া করতে হবে পাঁচটি সংসদীয় আসনের উপ-নির্বাচনও। সংসদীয় আসনের মধ্যে ঢাকা-১৮, ঢাকা-৫, সিরাজগঞ্জ-১, পাবনা-৪ ও নওগাঁ-৬ আসনের উপ-নির্বাচন করতে হবে।

স্থানীয় সরকারের নির্বাচনগুলোর মধ্যে ইউনিয়ন পরিষদ, পৌরসভা, উপজেলা, জেলা এবং সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন পদে নির্বাচন আটকে আছে।

সানশাইন/১২সেপ্টেম্বর/এমইউ

সেপ্টেম্বর ১২
১৭:২৬ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

আলোকিত সিটি পেয়েছেন মহানগরবাসী

আলোকিত সিটি পেয়েছেন মহানগরবাসী

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী মহানগরীর শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান চত্বরে দাঁড়িয়ে আছে মাস্তুল আকৃতির মজবুত দুইটি পোল। প্রতিটি পোলের উপর রিং বসিয়ে তার চতুরদিকে বসানো হয়েছে উচ্চমানের এলইডি লাইট। আর সেই লাইটের আলোয় আলোকিত বিস্তৃত এলাকা। শুধু শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান চত্বর নয়, এভাবে মহানগরীর আরো গুরুত্বপূর্ণ ১৪টি চত্বর আলোকিত হয় প্রতি

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সানশাইন ডেস্ক : করোনা মহামারিতে সাধারণ ছুটিতে স্বাভাবিক জীবনযাত্রার সঙ্গে স্থগিত ছিল সরকারি-বেসরকারি চাকরির নিয়োগ প্রক্রিয়া। এ কয়েক মাসে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পায়নি দেশের শিক্ষিত বেকার জনগোষ্ঠী। অংশ নিতে পারেনি কোনো নিয়োগ পরীক্ষাতেও। অনেকেরই বয়স পেরিয়ে গেছে ৩০ বছর। স্বাভাবিকভাবেই সরকারি চাকরির আবেদনে সুযোগ শেষ হয়ে যায় তাদের। তবে এ দুর্যোগকালীন

বিস্তারিত