Daily Sunshine

রাজশাহীতে গভীর শোক আর শ্রদ্ধায় বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ

Share

স্টাফ রিপোর্টার : জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৫তম শাহাদত বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবসে গভীর শোক আর বিনম্র শ্রদ্ধায় রাজশাহীতে বঙ্গবন্ধুকে স্মরণ করে শনিবার দিনভর নানা কর্মসূচি পালিত হয়েছে। সকালে রাজশাহী নগরীর কুমারপাড়ায় মহানগর আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ের স্বাধীনতা চত্বরে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন এতে নেতৃত্ব দেন। এ সময় নগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকারসহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।
পরে দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এরপর দুস্থদের মাঝে খাবার বিতরণ করা হয়।

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা সকালে রাজশাহী কলেজ চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে নগরীর রানীবাজারে দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। কর্মসূচিতে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মেরাজ উদ্দিন মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল ওয়াদুদ দারাসহ অন্য নেতাকর্মীরা অংশ নেন।

রাজশাহী জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সরকার নগরীর লক্ষ্মীপুর মোড়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির রাজশাহী মহানগরের পক্ষ থেকে নগরীর সাহেবাবাজার জিরোপয়েন্ট এলাকায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এ সময় নগর ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি লিয়াকত আলী লিকু, সাধারণ সম্পাদক দেবাশিষ প্রামানিক দেবু, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য এন্তাজুল হক বাবু, সিরাজুর রহমান খান, আবুল কালাম আজাদ, আবদুল মতিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যালয়ের স্বাধীনতা চত্বরে রাজশাহী ১৪ দলের পক্ষ থেকেও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়। এতে নেতৃত্ব দেন রাজশাহী ১৪ দলের সমন্বয়ক এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন। এ সময় ১৪ দলের স্থানীয় নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক নেতৃবৃন্দ নগরীর লক্ষ্মীপুর মোড়ে জাতির পিতার প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এতে নেতৃত্ব দেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ।

মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতপূর্বক স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে সরকারি নির্দেশনা মোতাবেক যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সাথে দিবসটি উদযাপন করছে জেলা প্রশাসন। কর্মসূচি অনুযায়ী শনিবার সূর্যোদয়ের সঙ্গে সঙ্গে সকল সরকারি, আধা-সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও বেসরকারি ভবনসমূহে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিতভাবে উত্তোলন করা হয়। সকাল ৮টায় শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামান জেলা পরিষদ মিলনায়তন চত্বরে স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুস্পস্তবক অপর্ণ করা হয়।

এখানে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন পুলিশের রাজশাহী রেঞ্জের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) একেএম হাফিজ আক্তার, রাজশাহী মহানগর পুলিশের কমিশনার হুমায়ুন কবীর, জেলা প্রশাসক আবদুল জলিল, জেলার পুলিশ সুপার মো. শহিদুল্লাহসহ সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা।
সকাল ১০টায় শহিদ এএইচএম কামারুজ্জামান জেলা পরিষদ মিলনায়তনে ‘বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ’ শীর্ষক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। বেলা ১১টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে শিশুদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা শেষে ‘হে পিতা তোমায় নিয়ে কবিতা’ শিরোনামে আবৃত্তি অনুষ্ঠান ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার পুরষ্কার বিতরণ করা হয়।

ইসলামিক ফাউন্ডেশন, শিশু সদন ও সেফহোম, ছোটমনি নিবাস, শিশু বিকাশ কেন্দ্র, প্রতিবন্ধি ফাউন্ডেশন স্কুল ও এতিমখানায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও কর্মের উপর আলোচনা সভা, হামদ-নাত পরিবেশন, মিলাদ মাহফিল, দোয়া ও বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হচ্ছে। দিনটি উপলক্ষ্যে বাদ যোহর অথবা সুবিধামত সময়ে মসজিদসমূহে বিশেষ মোনাজাত এবং মন্দির, গীর্জা ও অন্যান্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে আলোচনা ও প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এদিকে তথ্য ও গণযোগাযোগ অধিদফতরের ব্যবস্থাপনায় মহানগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ মোড়ে বঙ্গবন্ধুর জীবনীর ওপর প্রামাণ্য চিত্র প্রদর্শন করা হয়। বাংলাদেশ বেতার ও বাংলাদেশ টেলিভিশনের রাজশাহী কার্যালয় বিশেষ অনুষ্ঠানমালা প্রচার করছে দিবসটির তাৎপর্য তুলে ধরে স্থানীয় সংবাদপত্রসমূহে বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করা হয়েছে। নগর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে প্রতিটি ওয়ার্ড কার্যালয় থেকে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণ প্রচার করা হচ্ছে।
এছাড়া বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে জাতীয় শোক দিবসের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ কবিতা আবৃত্তি, রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা, আলোকচিত্র প্রদর্শনী, আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর, সমাজসেবা অধিদপ্তর, তথ্য ও গণযোগাযোগ অধিদপ্তর এবং উপজেলা প্রশাসন জাতীয় কর্মসূচির সাথে সামঞ্জস্য রেখে স্ব-স্ব কর্মসূচি প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করছে।
অন্যদিকে দিবসটি যথাযথ মর্যাদায় পালনে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন (রাসিক) বিভিন্ন কর্মসূচির গ্রহণ করে। শনিবার সূর্যোদয়ের সাথে সাথে নগর ভবন ও সকল ওয়ার্ড কাউন্সিলর কার্যালয়ে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত করে উত্তোলন করা হয়। সকাল ১০টায় নগর ভবন চত্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, কাউন্সিলর, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের শহীদ সদস্যদের আত্মার মাগফিরাত কামনায় বাদ জোহর নগর ভবন মসজিদ ও সোনাদিঘী জামে মসজিদসহ সকল জামে মসজিদে দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

বিকালে নগর ভবনের সিটি হল সভাকক্ষে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। কর্মসূচির মধ্যে আরো রয়েছে মাসব্যপী কালো ব্যাজ ও বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি সম্বলিত কোটপিন ধারন এবং নগর ভবন ও প্রতিটি ওয়ার্ড কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারের শহীদ সদস্যদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে ব্যানার প্রদর্শন।

সানশাইন/১৫ আগস্ট/এমওআর

আগস্ট ১৫
১৪:৫৫ ২০২০

আরও খবর

পত্রিকায় যেমন

বিশেষ সংবাদ

আলোকিত সিটি পেয়েছেন মহানগরবাসী

আলোকিত সিটি পেয়েছেন মহানগরবাসী

স্টাফ রিপোর্টার : রাজশাহী মহানগরীর শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান চত্বরে দাঁড়িয়ে আছে মাস্তুল আকৃতির মজবুত দুইটি পোল। প্রতিটি পোলের উপর রিং বসিয়ে তার চতুরদিকে বসানো হয়েছে উচ্চমানের এলইডি লাইট। আর সেই লাইটের আলোয় আলোকিত বিস্তৃত এলাকা। শুধু শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান চত্বর নয়, এভাবে মহানগরীর আরো গুরুত্বপূর্ণ ১৪টি চত্বর আলোকিত হয় প্রতি

বিস্তারিত




এক নজরে

আমাদের সাথেই থাকুন

চাকরি

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সরকারি চাকরি প্রার্থীর বয়সে ছাড়

সানশাইন ডেস্ক : করোনা মহামারিতে সাধারণ ছুটিতে স্বাভাবিক জীবনযাত্রার সঙ্গে স্থগিত ছিল সরকারি-বেসরকারি চাকরির নিয়োগ প্রক্রিয়া। এ কয়েক মাসে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি পায়নি দেশের শিক্ষিত বেকার জনগোষ্ঠী। অংশ নিতে পারেনি কোনো নিয়োগ পরীক্ষাতেও। অনেকেরই বয়স পেরিয়ে গেছে ৩০ বছর। স্বাভাবিকভাবেই সরকারি চাকরির আবেদনে সুযোগ শেষ হয়ে যায় তাদের। তবে এ দুর্যোগকালীন

বিস্তারিত