সর্বশেষ সংবাদ :

রাজশাহীর বাগমারা-পুঠিয়া-দুর্গাপুরসহ ১৫৬ উপজেলায় ভোট আজ

সানশাইন ডেস্ক: ১৮ দিনের বিরামহীন প্রচার শেষে দ্বিতীয় ধাপের রাজশাহী জেলার পুঠিয়া-দুর্গাপুর উপজেলাসহ ১৫৬ উপজেলায় চেয়ারম্যান, সাধারণ ভাইস চেয়ারম্যান ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীদের প্রচার শেষে এখন ভোটের প্রস্তুতি। মঙ্গলবার ভোটের সব ধরনের প্রস্তুতি গুছিয়ে এনেছে নির্বাচন কমিশন।
প্রথম ধাপে ৩৬ শতাংশ ভোটারের উপস্থিতির পর দ্বিতীয় ধাপে আরও বেশি ভোটার আসবে বলে আশা করা হয়েছে নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে। বলা হয়েছে, কম উপস্থিতিতে প্রথম ধাপে ভোটের পরিবেশ ছিল শান্তিপূর্ণ। এটি ভোটারদেরকে কেন্দ্রমুখী করবে। প্রথম ধাপে ৮ মে ভোটের দুই দিন আগেই দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনের প্রচার শুরু হয়ে যায়। এবার প্রচারে সময় পাওয়া গেছে মোট ১৮ দিন, যা শেষ হয়েছে রোববার মধ্যরাত।
অল্প কিছু উপজেলায় প্রচার চলাচলে কিছু কিছু সংঘাত হয়েছে। গাজীপুরে একটি উপজেলায় এক প্রার্থীর মনোনয়ন বাতিল করেছিল নির্বাচন কমিশন। তবে ভোটের দুই দিন আগে তিনি প্রার্থিতা ফিরে পেয়েছেন তিনি। প্রথম ধাপের মত এবারও ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের কোনো আনুষ্ঠানিক প্রার্থী নেই নির্বাচনে। দলটির যে নেতারা প্রতীক পেয়েছেন, তারা কেউ নৌকা পাননি। স্বতন্ত্র হিসেবে নিজেদের পছন্দের প্রতীক বেছে নিয়েছেন তারা।
বিএনপি আগের ধাপের মতোই এবারের নির্বাচনও বর্জন করেছে। তবে দলটির অন্তত ৬৪ জন নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়েছেন। তাদেরকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। সংসদে প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টিও এই নির্বাচনে প্রার্থী ঘোষণা করেনি। বলতে গেলে ভোট নিয়ে তাদের কোনো চিন্তাই নেই।
ভোটের আগের দিন সোমবার কেন্দ্রে কেন্দ্রে নির্বাচন সামগ্রী পৌঁছাবে। এদিন ব্যালট পেপার যাবে ৬৯৭ ভোটকেন্দ্রে, বাকি ১২ হাজার ৩২৩ কেন্দ্রে যাবে ভোটের দিন সকালে। মঙ্গলবার সকাল ৮টায় দেশের ১৫৭ উপজেলায় ভোট শুরু হবে, চলবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত। ২৪টি উপজেলায় ইভিএমে এবং বাকিগুলোতে ভোট হবে ব্যালট পেপারে। নির্বাচনি এলাকায় সাধারণ ছুটি থাকবে।
ভোটের সার্বিক প্রস্তুতি তুলে ধরে রোববার নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর বলেন, “আমরা আশা করি আমাদের দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হবে। ছোটখাট যে সব সমস্যা হয়েছে, সেগুলো যাতে না হয়, সেজন্য প্রশাসন ও পুলিশ অত্যন্ত সতর্ক রয়েছে। দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচন প্রথম ধাপের নির্বাচনের চেয়েও সুষ্ঠু হবে।”
ভোটাররা যাতে ভোট দিতে পারেন পছন্দের প্রার্থীকে এবং বাধাহীনভাবে ভোট কেন্দ্রে যাবেন সেটা নিশ্চিত করা হবে জানিয়ে তিনি বলেন, “আমাদের বার্তা হচ্ছে নির্বাচনটা আমরা শুধু মুখেই নয়, প্রমাণ করে দিয়েছি ৭ (জানুয়ারি) তারিখের নির্বাচন শান্তিপূর্ণ হয়েছে, ৮ (মে) তারিখের উপজেলা সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হয়েছে। ভোটারদের ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই, কেন্দ্রে আসুক। পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিন।”
তাদের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৬০৩ জন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৬৯৩ জন এবং নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৫২৮ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এ ধাপে চেয়ারম্যান পদে ৭ জন, ভাইস চেয়ারম্যান ৮ জন ও নারী ভাইস চেয়ারম্যান পদে ৭ জন, অর্থাৎ মোট ২২ জন প্রার্থী ইতোমধ্যে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। রাউজান ও কুমিল্লা আদর্শ সদর– এই দুই উপজেলায় তিনটি পদেই একক প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। ফলে এসব উপজেলায় ভোট করার প্রয়োজন পড়ছে না।
স্থগিত, মামলা ও ধাপ পরিবর্তন হয়েছেন এমন উপজেলা- বাবুগঞ্জ, উজিরপুর ও বানারীপাড়া (চতুর্থ ধাপে), রুমা (প্রশাসনিক কারণে স্থগিত), মৌলভীবাজার সদর (মামলায় স্থগিত)। দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনের জন্য তফসিল হয়েছিল ১৬১ উপজেলার। স্থগিত, ধাপ পরিবর্তন ও বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতার প্রার্থী নির্বাচিত হওয়ায় শেষ পর্যন্ত মঙ্গলবার ভোট হবে ১৫৬ উপজেলায়। ভোটের আগের দিন ব্যালট পেপার যাবে ৬৯৭ কেন্দ্রে এবং ভোটের দিন সকাল আট টার আগে পৌঁছানো হবে ১২ হাজার ৩২৩ ভোটকেন্দ্রে।
দ্বিতীয় ধাপে প্রার্থীদের প্রচারণা শেষ হয় রোববার মধ্যরাতে।
নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনায় বলা হয়েছে, রোববার রাত ১২টা থেকে ২২ মে রাত ১২টা পর্যন্ত মোটরসাইকেল চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকবে। আর ২০ মে দিবাগত রাত ১২টা থেকে ২১ মে রাত ১২টা পর্যন্ত ট্যাক্সিক্যাব, পিকআপ, মাইক্রোবাস ও ট্রাক চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।
নির্বাচনি এলাকায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষা, যানজট নিরসন ইত্যাদি প্রয়োজনে বাস্তবতার নিরিখে ও স্থানীয় বিবেচনায় উল্লিখিত যানবাহন ছাড়াও যে কোনো যানবাহন চলাচলের ওপর সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে পারবে। তবে নির্বাচনি এলাকায় রিটার্নিং অফিসারের অনুমতি সাপেক্ষে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী/তাদের নির্বাচনি এজেন্ট, দেশি/বিদেশি পর্যবেক্ষকদের (পরিচয়পত্র থাকতে হবে) ক্ষেত্রে শিথিলযোগ্য।
তাছাড়া, নির্বাচনের সংবাদ সংগ্রহের কাজে নিয়োজিত দেশি/বিদেশি সাংবাদিক (পরিচয়পত্র থাকতে হবে), নির্বাচনের কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তা-কর্মচারী, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য, নির্বাচনের বৈধ পরিদর্শক এবং কিছু জরুরি কাজ যেমন-অ্যাম্বুলেন্স, ফায়ার সার্ভিস, বিদ্যুৎ, গ্যাস, ডাক, টেলিযোগাযোগ ইত্যাদি কার্যক্রমে ব্যবহারের জন্য উল্লিখিত যানবাহন চলাচলের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না।
জাতীয় মহাসড়ক, বন্দর ও জরুরি পণ্য সরবরাহসহ অন্যান্য জরুরি প্রয়োজনে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ নিষেধাজ্ঞা শিথিলের বিষয়ে প্রয়োজনীয় কার্যকর ব্যবস্থা নিতে পারবে। নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ জানান, নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে পরিচালনার সুবিধার্থে উচ্চ পর্যায়ের একটি মনিটরিং সেল থাকবে কমিশনে। এই সেলে সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও সংস্থার প্রতিনিধিদেরও রাখা হয়।
সেলটির নেতৃত্বে থাকবেন স্মার্টকার্ড তথা আইডিইএ-২ এর প্রকল্প পরিচালক আবুল মোহাম্মদ সায়েম। আইন-শৃঙ্খলা সমন্বয় ও মনিটরিং সেলটিতে জননিরাপত্তা বিভাগ, পুলিশ সদর দপ্তর, বিজিবি, কোস্টগার্ড, র‌্যাব আনসার ও ভিডিপির প্রতিনিধি এবং আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের প্রতিনিধি থাকবেন। নির্বাচন উপলক্ষে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ নিশ্চিতকরণে আইন-শৃঙ্খলা সংস্থাগুলোর কর্মকাণ্ডের সমন্বয় সাধন ও সুসংহতকরণের লক্ষ্যে জেলা ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে আইন-শৃঙ্খলা সেলও গঠন করা হয়েছে।
স্থানীয় সরকারের এ নির্বাচন সুষ্ঠু করার ওপর তাগিদ দিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল। দ্বিতীয় ধাপের ভোটে আচরণবিধি লঙ্ঘনের ঘটনায় গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার একজন চেয়ারম্যান প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিল করে কমিশন। অবশ্য আদালতে গিয়ে প্রার্থিতা ফেরত পান মো. জামিল হাসান।
ষষ্ঠ উপজেলা ভোটে দেশের মোট ৪৯৫ উপজেলার মধ্যে নির্বাচন উপযোগী ৪৮৫ উপজেলায় চার ধাপে ভোট হচ্ছে এবার। পরে মেয়াদোত্তীর্ণ হলে বাকিগুলোয় ভোটের আয়োজন করবে নির্বাচন কমিশন। প্রথম ধাপের ১৩৯ উপজেলায় ভোট হয় ৮ মে। এসব উপজেলায় গড়ে ৩৬ শতাংশের কিছু বেশি ভোট পড়ে। এর মধ্যে প্রথম ধাপে ২২টি, দ্বিতীয় ধাপে ২৪টি, তৃতীয় ধাপে ২৪ ও চতুর্থ ধাপে দুটি উপজেলায় ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) নির্বাচন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইসি; বাকিগুলোয় ব্যালট পেপারে ভোট হবে। ২১ মে দ্বিতীয় ধাপের পর ২৯ মে তৃতীয় ধাপে ও ৫ জুন চতুর্থ ধাপের ভোট রয়েছে।


প্রকাশিত: মে ২১, ২০২৪ | সময়: ৫:৩৩ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ