নওগাঁয় জোর করে দুবিঘা জমির ভুট্টা কেটে নেওয়ার অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার, নওগাঁ: নওগাঁর মান্দার খোর্দ্দবান্দাইখাড়া এলাকায় কৃষকদের খেত থেকে ২ বিঘা জমির ভুট্টা কেটে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। ওই জমির মালিক মশিউর রহমান, তাঁর ভাই তোফাজ্জল হোসেন ও জিয়াউর রহমান। ওইতিন সহোদরের বাড়ি নওগাঁর আত্রাই উপজেলার হাটকালুপাড়া ইউনিয়নের উত্তর বিলদরগাহপাড়া গ্রামে।
জমির জিয়াউর রহমান বলেন, দীর্ঘদিন ধরে তাঁর ভগ্নিপতি উত্তর বিল দরগাহপাড়া গ্রামের মোজাহারুল ইসলামের ওরফে মোজাহার সঙ্গে পারিবারিক বিরোধ চলে আসছে। মোজাহার দীর্ঘদিন ধরে তাদেরকে হয়রানিসহ আর্থিক ক্ষতি ও তাদের জমি দখল করার জন্য পায়তাড়া করে আসছে। তাদের ক্ষতিসাধনের উদ্দেশে গত রবিবার সকালে মোজাহারুল ইসলাম ও তার ভাই নজরুল ইসলাম এবং বান্দাইখাড়া গ্রামের বাসিন্দা আব্দুল খালেক বিশার নেতৃত্বে ২০-২৫ জন সন্ত্রাসী হাতে কাস্তে, লোহার রড ও বাঁশের লাঠি নিয়ে খোর্দ্দবান্দাইখাড়া মাঠে লাগানো খেতের ভুট্টা কাটতে আসেন।
এ সময় জিয়াউর ও তার ভাইয়েরা এবং বর্গাদার সোহরাব হোসেন ঘটনাস্থলে গিয়ে ভুট্টা কাটতে নিষেধ করলে মোজাহার ও তার ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীরা ভয়ভীতি ও প্রাণনাশের হুমকি প্রদান করেন। প্রাণ ভয়ে তারা সেখান থেকে চলে আসেন। ওইদিন সকাল ৬টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত সন্ত্রাসীরা তাদের খেতের সব ভুট্টা কেটে নিয়ে যায়।
বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে মান্দা থানা পুলিশকে জানালে পুলিশের একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তবে পুলিশ আসার আগেই সন্ত্রাসীরা খেতের ভুট্টা কেটে নিয়ে যায়। এ ঘটনায় জিয়াউর রহমানের বড় ভাই মশিউর রহমান ওই দিনই মান্দা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেন।
জমির আরেক মালিক মশিউর রহমান বলেন, আইন অনুযায়ী আমার বড় বোন যেখানে যতটুকু সম্পত্তি পাবেন সব বুঝে দেওয়া হয়েছে। তারপরেও আমার ভগ্নিপতি মোজাহারুল আরও সম্পদ পাবেন বলে দাবি করে আসছে। তিনি বিভিন্নভাবে আমাদের আর্থিক ক্ষতিসাধন করেছেন এবং এখনও চেষ্টা করে যাচ্ছেন। তার বিরুদ্ধে একাধিকবার মামলা করেও প্রতিকার পাওয়া যায়নি।
ঘটনার বর্ণনা দিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ বর্গাচাষী সোহরাব হোসেন বলেন, আর ১০-১২ দিন পরেই জমির ভুট্টা তোলার পরিকল্পনা ছিল আমার। ভুট্টা তোলার জন্য দিন গুনছিলাম। কিন্তু গত রবিবার উত্তর বিল দরগাহপাড়া গ্রামের মোজাহার, নজরুল, বান্দাইখাড়ার আব্দুল খালেক বিশা দলবল নিয়ে এসে তার খেতের সব ভুট্টা কেটে নিয়ে যায়। তারা ২০-২৫ জন লোক ছিলো। তাদের হাতে লোহার রড ও বাঁশের লাঠি ছিল। আমি বাধা দিতে গেলে তারা লাঠি উঁচিয়ে আসাবে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেন। খেতের ভুট্টা কেটে নিয়ে যাওয়া শুধু চেয়ে চেয়ে দেখতে হয়েছে। দুপুরের দিকে পুলিশ আসলেও তার আগেই সব ভুট্টা কেটে নিয়ে যায়। ওই জমির ফসল দিয়েই আমার সংসার চলে। ভুট্টা কেটে নেওয়ায় এখন আমার নিঃস্ব অবস্থা। তার দাবি, তার খেত থেকে প্রায় ৯০ মণ ভুট্টা কেটে নিয়ে গেছে। এতে তার প্রায় ৯৫ হাজার টাকার ক্ষতি হয়েছে।
অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে মোজাহারুল ইসলাম বলেন, খোর্দ্দবান্দাইখাড়া মাঠে আমার স্ত্রী ওয়ারিশ সূত্রে দেড় বিঘা জমি ও আমার ছোট ভাই নজরুল ইসলামের ক্রয়সূত্রে দেড় বিঘা জমি রয়েছে। কিন্তু ওইসব জমি আমার শ্যালকেরা জোর করে ভোগদখল করার চেষ্টা করছে। আমাদের জমিতে লাগানো ভুট্টা আমরা কেটে নিয়েছি। শুধু ওই জমি নয় আমার শ্যালকেরা আমার স্ত্রীর সই জাল করে মিথ্যা দলিল করে তাকে বাবার সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করার চেষ্টা করছে। এটা নিয়ে বিভিন্ন সময় প্রতিবাদ করায় এবং স্ত্রীর জমি বুঝে নেওয়ার চেষ্টা করায় আমার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময় আটটি মিথ্যা মামলা করেছে। এবারের অভিযোগও মিথ্যা।
মান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোজাম্মেল হক কাজী বলেন, খোর্দ্দবান্দাইখাড়া এলাকায় জোর করে দুই বিঘা জমির ভুট্টা কেটে নেওয়ার ঘটনায় মশিউর রহমান নামে এক ব্যক্তি গত রবিবার একটি থানায় একটি অভিযোগ করেছেন। লিখিত অভিযোগে মোট ২৮ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। ঘটনার সত্যতা পেলে দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


প্রকাশিত: মে ১৫, ২০২৪ | সময়: ৫:৫৩ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ

আরও খবর