‘উপজেলা ভোটে মন্ত্রী-এমপিরা নির্দেশ অমান্য করলে শাস্তি’

সানশাইন ডেস্ক: উপজেলা নির্বাচনে সংসদ সদস্য ও মন্ত্রীদের প্রভাব বিস্তার না করতে কঠোর নির্দেশনা দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের বৈঠকে বক্তব্য দিচ্ছিলেন দলীয় প্রধান ও সংসদ নেতা।
বৈঠকে অংশ নেওয়া কুড়িগ্রাম ৪ আসনের সংসদ সদস্য বিপ্লব হাসান পলাশ বলেন, প্রধানমন্ত্রী ব্ঠৈকে দলীয় নির্দেশনা অমান্য করে যেসব এমপি ও মন্ত্রীর পরিবারের সদস্য ও আত্মীয়রা উপজেলা নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছে তাদের সতর্ক করে দিয়েছেন। পলাশ বলেন, ”প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, যারা নিকট আত্মীয়দের প্রার্থী করছেন, ভবিষ্যতে তাদের পরিবার নিয়েই থাকতে হবে। জনগণ ও নেতাকর্মীদের ভোট তারা পাবেন না।”
জাতীয় সংসদের সরকারি দলের সভাকক্ষে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকের শুরুতে সূচনা বক্তব্য দেন সংসদ নেতা শেখ হাসিনা। পরে তিনি এমপিদের কথা শোনেন ও উত্তর দেন। সন্ধ্যা সাতটার পর শুরু হওয়া বৈঠক চলে এক ঘণ্টারও বেশি সময়। পলাশ বলেন, প্রধানমন্ত্রী আসন্ন নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ করতে প্রশাসনকে সর্বাত্মক সহায়তা করতেও সংসদ সদস্যদের নির্দেশনা দিয়েছেন।
আরেক সংসদ সদস্য বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন দলটা হলো সবার। সবাইকে সুযোগ দিতে হবে। দলকে কুক্ষিগত করা যাবে না। ছোট পরিবার সুখী পরিবার এ নীতি নয়। আওয়ামী পরিবারকে বড় করতে হবে। এমপিদের স্বজনদের ভোটে দাঁড়ানো ভালো কিছু না। পরে নারায়ণগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী বলেন, “আমার ছেলে নির্বাচন করতে চেয়েছিল। কিন্তু আপনি নির্দেশনা দেওয়ার পর সে করে না। তখন প্রধানমন্ত্রী বলেন, ভালো করেছ।”
দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনের প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, পঁচাত্তরের পর এইবারের ভোট সবচেয়ে ভালো হয়েছে। উপজেলায়ও এরকম ভোট চাই। উৎসবমুখর ভোট হলেও ভালো। বৈঠকের বিষয়ে বাসস জানায়, প্রধানমন্ত্রী বলেন, “যারা দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দলের নেতাকর্মীদের যথাযথ সম্মান ও জায়গা করে দিতে হবে।
“শুধু সংসদ সদস্যদের আত্মীয়-স্বজন নির্বাচনে অংশ নেওয়ার জন্য লড়বেন, এটা মোটেই ভালো দৃষ্টান্ত উপস্থাপন করবে না; সবার সমান সুযোগ পাওয়া উচিত। আওয়ামী লীগ পরিবারকে আরো বড় করতে হবে।” প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য ও অন্যান্য রাজনৈতিক দলের সঙ্গেও বসার কথা জানান। তিনি বলেন, স্বতন্ত্র এমপিদের কোনো প্রকার সমস্যা তৈরি না করার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলকে নির্দেশ দিয়েছেন।
দেশের মোট ৪৯৫ উপজেলার মধ্যে নির্বাচন উপযোগী ৪৮৫ উপজেলায় চার ধাপে ভোট হচ্ছে এবার। পরে মেয়াদোত্তীর্ণ হলে বাকিগুলোয় ভোটের আয়োজন করবে নির্বাচন কমিশন। প্রথম ধাপের ১৫০ উপজেলায় ভোট হবে ৮ মে।


প্রকাশিত: মে ৪, ২০২৪ | সময়: ৫:১১ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ