গোদাগাড়ী বালু মহল নিয়ে প্রতিহিংসার শিকার ইজারদার

স্টাফ রিপোর্টার: সম্প্রতি গোদাগাড়ী বালু মহল নিয়ে বিভিন্ন পত্রিকা ও অনলাইনে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। প্রকাশিত এসব সংবাদের প্রতিবাদ জানিয়েছেন ইজারদার মুখলেসুর রহমান মুকুল। তিনি বলেন, কোন একটি মহল আমার সুনাম ক্ষুন্ন করতে ও আমাকে প্রতিদ্বন্দ্বি ভেবে এমন কাজ করছে।
মুকুল বলেন, রাজশাহীর গোদাগাড়ী বালু মহল আমরা নিলামে অংশ নিয়ে সর্বোচ্চ দরদাতা হিসেবে এই বালুমহলের ইজারা পায়। পহেলা বৈশাখ অর্থাৎ গত ১৪ এপ্রিল এই বালু মহল আমাদের জেলা প্রশাসন বুঝিয়ে দেয়। সংবাদে বলা হয়েছে পহেলা বৈশাখ থেকেই আমরা বালু উত্তোলন করছি। বাস্তবে এই বালু মহলে আমরা এখনো বালু উত্তোলন শুরুই করিনি। এখনও আমরা বালু উত্তোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছি।
সংবাদে আরো বলা হয়েছে বালু উত্তোলন, পরিবহন ও টোল আদায়সহ সরকারি কোনো নিয়ম মানছে না ইজারাদার। এই অভিযোগটি অসত্য। আমরা সরকারি নিয়ম মেনেই ১২০টাকা টোল আদায় করছি। সম্প্রতি এনিয়ে পরিকল্পিতভাবে মিথ্যাচারের চেষ্টা করে একটি মহল। বিষয়টি ৯৯৯ নম্বরে ফোন দেয়ার মাধ্যমে প্রশাসনকেও অবগত করে মিথ্যা তথ্য দেয়া হয়। পরে স্থানীয় প্রশাসনও এটির তদন্ত করে। তারা আমাদের বাড়তি অর্থ আদায়ের অভিযোগের কোন সত্যতা পায়নি।
সংবাদে বলা হয়েছে বালু বা মাটি উত্তোলন করা হচ্ছে। বাস্তবে আমরা সরকারি নিয়মের প্রতি শ্রদ্ধাশীল থেকে এই বালু মহলে কাজ করার বিষয়ে বদ্ধপরিকর। আগেই বলেছি, আমরা এখনো বালু উত্তোলন শুরুই করিনি। এখন পর্যন্ত সেখানে যাতায়াতের জন্য একটি রাস্তা বানানো হয়েছে। সেখানে মাটি বা বালু উত্তোলন বা রাতের বেলা বালু উত্তোলনের অভিযোগের সামান্যতমও সত্যতা নাই। আমরা মনে করি, পুরো সংবাদটিই উদ্দেশ্যমুলক, অসত্য ও ভিত্তিহীন। সংবাদগুলো বিশ্লেষন করলে দেখা যাবে সবগুলো সংবাদের অভিযোগ এবং সংবাদ লেখার ধরন একই রকমের। এমনকি সংবাদগুলো আমার যে বক্তব্য দেয়া হয়েছে সেটিও অসত্য। এসব থেকে সন্দেহ হওয়াটা স্বাভাবিক যে, বিশেষ কোন মহল পরিকল্পিতভাবে এসব মিথ্যাচার করছে।
আমরা সবেমাত্র এই বালুমহল ইজারা নিয়ে কাজ শুরু করার প্রস্তুতি নিচ্ছি। এরই মধ্যে এমন পরিকল্পিত মিথ্যাচারের পেছনে বিশেষ কোন মহলের পরিকল্পিত অসৎ উদ্দেশ্য থাকতে পারে বলে আমরা মনে করি। এ অবস্থায় সুষ্ঠুভাবে ব্যবসা পরিচালনার ক্ষেত্রে প্রশাসনের আন্তরিক সহযোহিতা প্রত্যাশা করেন তিনি।

এম ই


প্রকাশিত: এপ্রিল ২৩, ২০২৪ | সময়: ৮:৪৬ অপরাহ্ণ | Daily Sunshine