নাটোরে স্কুল ছাত্রীকে অপহরণের অভিযোগে বাবা-ছেলে গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার, নাটোর: নাটোরে হাইস্কুলে পড়ুয়া এক স্কুল ছাত্রীকে অপহরণের অভিযোগে মামলার প্রধান অভিযুক্ত ছেলে ও অপর আসামি বাবাকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। মঙ্গলবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছেন নাটোর র‌্যাব ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার সঞ্জয় কুমার সরকার।
এর আগে সোমবার বিকেলে নাটোর শহরের হরিশপুর বাইপাস এলাকা থেকে আসামি ছেলে ও বাবাকে গ্রেপ্তার ও অপহৃত ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন বাগাতিপাড়া উপজেলার অন্তর আহম্মেদ (১৯) ও আসামীর পিতা আতাহার আলী (৪১)।
কোম্পানি কমান্ডার সঞ্জয় কুমার সরকার বলেন, ভিকটিম বাগাতিপাড়া উপজেলার রহিমানপুর উচ্চ বিদ্যালয় ১০ম শ্রেণির ছাত্রী। ওই বিদ্যালয়ে পড়াশোনা করা অবস্থায় আসামী অন্তর আহম্মেদ ভিকটিমকে রাস্তা ঘাটে বিভিন্নভাবে প্রেম-ভালোবাসার প্রলোভন দেখিয়ে আসছে। পরবর্তীতে ভিকটিমের পিতা বিষয়টি জানতে পেরে এসব করতে নিষেধ করলে আসামী অন্তর আহম্মেদ ও তার পিতা আতাহার আলী কোন কর্ণপাত করেনি।
পরবর্তীতে চলতি মাসের ৮ ফেব্রুয়ারি তারিখে ভিকটিম সকালে প্রাইভেট পড়ার জন্য বাগাতিপাড়া উপজেলার ২নং জামনগর ইউনিয়নের রহিমানপুর বাজারের মতিনের দোকানের সামনে পৌছামাত্র আসামী অন্তর আহম্মেদ ও তার পিতাসহ অজ্ঞাত ৩-৪ জন মিলে ভিকটিমকে জোর পূর্বক অপহরণ করে সিএনজি যোগে অজ্ঞাত স্থানে নিয়ে যায়।
এরপর ভিকটিম বাড়িতে ফিরে না আসলে ভিকটিমের পিতা সম্ভাব্য সকল স্থানে খোঁজাখুঁজি করে কোথাও সন্ধান না পেয়ে আসামীদের বিরুদ্ধে বাগাতিপাড়া থানায় অপহরণ মামলা দায়ের করে।
কোম্পানি কমান্ডার আরও বলেন, এ মামলার তদন্তকারী অফিসার, আসামী অন্তর আহম্মেদ (১৯) সহ অন্যান্য এজাহারনামীয় আসামীদের গ্রেপ্তার এবং মামলার ভিকটিমকে উদ্ধারের জন্য র‌্যাব-৫ বরাবর অধিযাচনপত্র প্রদান করেন। এরপর র‌্যাব মামলার আসামীদের সনাক্তকরণ সহ অপহৃত ভিকটিমকে উদ্ধারের জন্য গোয়েন্দা নজরদারী বৃদ্ধি ও ছায়াতদন্ত শুরু করে।
এরপর গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে সোমবার বিকেলে নাটোর শহরের হরিশপুর বাইপাস মোড় এলাকা থেকে অপহরণ চক্রের মুলহোতা অন্তর আহম্মেদ ও তার পিতাকে গ্রেপ্তার এবং আসামীদের হেফাজত হতে অপহৃত ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়।
গ্রেপ্তারকৃত আসামিদের বাগাতিপাড়া থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান এই র‌্যাব কর্মকর্তা।


প্রকাশিত: ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০২৪ | সময়: ৫:২৭ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ