সেই মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে এবার নতুন ইতিহাসের হাতছানি টাইগারদের

স্পোর্টস ডেস্ক: ‘মাউন্ট মঙ্গনুই’ বাংলাদেশের ক্রিকেট ইতিহাসে সোনালী ফ্রেমে মোড়ানো একটি নাম। ২০২২ সালে জানুয়ারি মাসে এই শহরের বে ওভাল মাঠেই নিজেদের টেস্ট ক্রিকেট ইতিহাসের এখন পর্যন্ত সবচেয়ে স্মরণীয় ও ঐতিহাসিক জয়টি পেয়েছিল বাংলাদেশ। মুমিনুল হকের নেতৃত্বে সে টেস্টে টাইগাররা ৮ উইকেটে হারিয়েছিল টম ল্যাথামের নিউজিল্যান্ডকে।
ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয় (৭৮), নাজমুল হোসেন শান্ত (৬৪), অধিনায়ক মুমিনুল হক (৮৮), লিটন দাস (৮৬) ও মেহেদি মিরাজের (৪৭) দুর্দান্ত ব্যাটিং নৈপূণ্যের সঙ্গে তিন পেসার এবাদত হোসেন (২১-৬-৪৬-৬), তাসকিন (৩/৩৬) ও শরিফুলের (৩/৬৯) সাঁড়াসি বোলিংয়ে ধরা দিয়েছিল দারুন এক জয়।
প্রায় ২ বছর পর একই শহরে আবারও ইতিহাস গড়ার হাতছানি বাংলাদেশের সামনে। আজ রাতটুকু পার করে কাল শুক্রবার ২৯ ডিসেম্বর বাংলাদেশ সময় দুপুর ১২টা ১০ মিনিটে সেই মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচে মাঠে নামবে বাংলাদেশ। নেপিয়ারে পাওয়া ৫ উইকেটের জয়ের সাথে কাল শুক্রবার জিতলেই টি-টোয়েন্টি সিরিজ হয়ে যাবে বাংলাদেশের। সে লক্ষ্যেই মাঠে নামবে শান্তর দল।
২৩ মাস আগে টেস্টে পাওয়া অভাবনীয় সাফল্য চমকে দিয়েছিল গোটা ক্রিকেট বিশ্বকে। এমনি এক কাকডাকা ভোরে বিস্ময়ে চোখ ছানাবড়া হয়ে গিয়েছিল টাইগার সমর্থকদের। যে নিউজিল্যান্ডের মাটিতে ২০১৬-২০১৭ সালে এক ইনিংসে ৫৯৫ রানের হিমালয় সমান স্কোর গড়েও জেতা সম্ভব হয়নি, সেই দেশে টেস্ট জয় যে ছিল আকাশ কুসুম কল্পনা! কিন্তু সে জয় বাস্তব হয়ে দেখা দিয়েছিল। এবার সেই মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে টি-টোয়েন্টি সিরিজ বিজয়ের স্বপ্ন দেখছে বাংলাদেশ।
প্রধান সহকারি কোচ নিক পোথাসের কথায় আশার সুর। তিনিও বলেছেন, ‘বিশ্বের অন্যতম সেরা দলের বিপক্ষে সিরিজ জয়ের সুবর্ণ সুযোগ। ছেলেদের আগের উদ্যম নিয়েই নামতে হবে।’ পোথাস মানছেন ভবিষ্যত অনাগত। কেউ আগাম তা বলতে পারে না। তবে তিনি চান, বর্তান নিয়ে ভাবতে। তাই মুখে এমন কথা, ‘আপনি যে বল মোকাবেলা করছেন শুধু সেটা নিয়েই ভাবতে পারেন। পরের ২ বল কী হবে তা ভাবতে পারবেন না। কারণ ভবিষ্যতের নিয়ন্ত্রণ আপনার হাতে নেই। আমরা তাই বর্তমান নিয়েই ভাবছি। আমরা অবশ্যই সেরা ফলাফলটা পেতে চাই। তবে ভুলে যাবেন না তারা বিশ্বের অন্যতম সেরা দল। এই চ্যালেঞ্জটা আমরা উপভোগ করছি।’
নিজ দলকে নিয়ে পোথাসের অনেক আশা। তার বিশ্বাস, এই ছেলেরা যদি একসাথে আগামী দুই থেকে তিন বছর খেলতে পারে, তাহলে তারা দেখিয়ে দিবে, তারা কি পারে! তবে মাউন্ট মঙ্গানুইয়ে ব্যাটিংটা বোলিংয়ের চেয়ে কঠিন বলেই মনে করেন পোথাস। একজন ব্যাটার যখন ক্রিজে যায় এটা ভেবে যে, এটাই তার শেষ ইনিংস, ব্যাপারটা আতঙ্কের। বোলিংয়ের চেয়ে ভালো ব্যাটিং করা কঠিন। আপনার কাছে সুযোগ একটাই। বোলিংয়ে আপনি একটা খারাপ বল করার পর আরও একটা ভালো বল করে কামব্যাক করতে পারেন। ব্যাটিংয়ে একটাই চান্স। এ কারণে আপনার স্কিল প্রয়োজন।’


প্রকাশিত: ডিসেম্বর ২৯, ২০২৩ | সময়: ৫:৪৬ পূর্বাহ্ণ | সুমন শেখ